Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ আগস্ট, ২০১৯ ২২:২৮

সেদিন ব্যর্থতা ছিল সবার

রাজনীতিবিদ সেনাবাহিনী রক্ষীবাহিনী বিডিআর গোয়েন্দা সংস্থা কেউই এগিয়ে আসেনি

নিজস্ব প্রতিবেদক

সেদিন ব্যর্থতা ছিল সবার

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রক্ষা করতে রাজনীতিবিদ, রক্ষীবাহিনী, সেনাবাহিনীসহ কেউই এগিয়ে আসেনি। সেদিন ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত পুলিশের কয়েকজন সদস্য জীবন দেন। হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর চেষ্টা করেন কেবল বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ। ৩২ নম্বর সড়কের বাড়িতে পৌঁছানের আগেই তাকে হত্যা করা হয় সোবহানবাগ মসজিদের কাছে। দীর্ঘ ৪৪ বছরেও মীমাংসিত হলো না জাতির জনককে রক্ষা করতে না পারার ব্যর্থতার দায় কার? সে সময়ের রাজনীতিবিদ, সেনাবাহিনী, রক্ষীবাহিনী, গোয়েন্দারা কী করেছিলেন? প্রশ্ন উঠেছে, বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্মদাতাকে নির্মমভাবে হত্যার প্রতিরোধে একটি গুলিও হলো না কেন?

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার সাক্ষীদের সাক্ষ্য থেকে জানা যায়, হত্যাকান্ডের আগের দিন ১৪ আগস্ট বিকাল ৪টায় খুনি ডালিম ও সাড়ে ৫টায় খুনি ক্যাপ্টেন বজলুল হুদাকে বঙ্গবন্ধুর বাড়ির পাশে মোটরসাইকেলে ঘুরতে দেখা গেছে। অর্থাৎ হত্যা মিশনের সদস্যরা কীভাবে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে ঢুকবে, কীভাবে অপারেশন শেষ করবে তা ঠিক করতেই তারা বঙ্গবন্ধুর বাড়ির অবস্থান এবং আশপাশ রেকি করে যায়। কিন্তু প্রশ্ন হলো, এটা ঊর্ধ্বতনদের কেউ জানালেন না কেন? না সেনাবাহিনী, না রক্ষীবাহিনী, না পুলিশ, না রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দÑ কেউ এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার মতো কাউকে কিছু জানাননি।

মামলাসূত্রে জানা যায়, ভোরে ধানমন্ডি ৩২ নম্বর বাড়িতে ঘাতকরা আক্রমণ করে। এর মধ্যেই আবদুর রব সেরনিয়াবাতকে হত্যার খবর জেনে যান বঙ্গবন্ধু। প্রধান গেটেও চলছিল হট্টগোল। নিচতলায় ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিগত সহকারী এ এফ এম মহিতুল ইসলাম। মহিতুলকে টেলিফোনে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘সেরনিয়াবাতের বাসায় দুষ্কৃতকারীরা আক্রমণ করেছে। জলদি পুলিশ কন্ট্রোল রুমে ফোন লাগা...।’ একপর্যায়ে নিচতলায় অভ্যর্থনা কক্ষে গিয়ে বঙ্গবন্ধু টেলিফোনের রিসিভার নিয়ে বলেন, ‘আমি প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিব...’। এরপর গুলি শুরু হয়। অভ্যর্থনা কক্ষ থেকে বেরিয়ে এসে পাহারায় থাকা সেনা ও পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশ করে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘এত গুলি হচ্ছে, তোমরা কী করছ?’ নিচতলার বারান্দা তখন রক্তে ভাসছে। বঙ্গবন্ধু তাঁর সামরিক সচিব কর্নেল জামিলকে ফোন করে বলেন, ‘জামিল! তুমি তাড়াতাড়ি আসো। আর্মির লোকেরা আমার বাসা অ্যাটাক করেছে। সফিউল্লাহকে ফোর্স পাঠাতে বল।’ তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল সফিউল্লাহকে নিজেও ফোন করেন রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান। তাকে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘সফিউল্লাহ! তোমার ফোর্স আমার বাড়ি অ্যাটাক করেছে। কামালকে (শেখ কামাল) বোধহয় মেরে ফেলেছে। তুমি জলদি ফোর্স পাঠাও।’ ফোনেও ওপাশ থেকে সফিউল্লাহ বলেন, ‘আই অ্যাম ডুয়িং সামথিং, ক্যান ইউ গেট আউট?’ এ ছাড়া অনেক রাজনীতিবিদ, বিডিআর, রক্ষীবাহিনীর কাছে টেলিফোন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কিন্তু কেউ তাকে রক্ষায় এগিয়ে আসেননি। রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হাতে। ১৯৭৫ সালে স্বরাষ্ট্র সচিব আবদুর রহিম ও পুলিশের আইজি তছলিম উদ্দিনের ভূমিকা নিয়েও আছে প্রশ্ন। বঙ্গবন্ধুর আশপাশে থাকা রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এত বড় চক্রান্ত কিছুতেই রুখতে পারবেন না, এটা মানা যায় না। এত নামি রাজনৈতিক ব্যক্তিদেরও দায় এড়ানোর সুযোগ নিয়ে প্রশ্ন আছে। সেদিন যদি তারা নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসতেন তাহলে ইতিহাস ভিন্ন হতে পারত। যে রক্ষীবাহিনীকে অনেক আদরযতেœ বিশেষ ক্ষমতা দিয়ে গড়ে তোলা হয়েছিল, তারাই বা কী করল? বঙ্গবন্ধু হত্যার পর রক্ষীবাহিনীর প্রতিক্রিয়া না থাকাও অনেক প্রশ্নের জন্ম দেয়। বরং রক্ষীবাহিনীর তৎকালীন দুই শীর্ষ কর্মকর্তা মোশতাক সরকারকে সমর্থন দেন। বলা হয়, নানা অপকৌশলে রক্ষীবাহিনীকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। প্রশ্ন হলো, রক্ষীবাহিনীর মতো অত্যাধুনিক অস্ত্রধারী বাহিনীকে এত সহজে শুধু কথার কৌশলে নিয়ন্ত্রণ করা কি সত্যিই সম্ভব? নাকি তারা নিজেরাই নিজেদের নিয়ন্ত্রিত রেখেছিলেন? সে সময় বিডিআর কী করেছিল? ঐতিহাসিক নানা বক্তব্য ও গ্রন্থ থেকে এটা পরিষ্কার যে, ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রায় চার মাস আগেই ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সতর্ক করেছিলেন। এরপর সম্ভাব্য বিপদ সম্পর্কে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ আর সোভিয়েত গোয়েন্দা সংস্থা ‘কেজিবি’ বঙ্গবন্ধুকে সতর্ক করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু একে তেমন গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। কথা উঠেছে, বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর তৎকালীন গোয়েন্দা বিভাগ কী করেছে, তাদের ভূমিকা কী ছিল? কারণ সাধারণভাবেই সামরিক গোয়েন্দাদের কাছে নিজস্ব বাহিনীর আগাম তথ্য থাকার কথা। অথচ অন্তত দুই ডজন আত্মজীবনীতে এ তথ্য পাওয়া গেছে যে, খুনি ডালিম ও রশীদরা প্রায় এক বছর আগে থেকেই হত্যার পরিকল্পনা করে আসছিল এবং এ পরিকল্পনা নিয়ে তারা তৎকালীন সেনাবাহিনীর উপপ্রধান জিয়াউর রহমানের সঙ্গে বৈঠক করেছে। পরবর্তীতে খুনি ফারুক-রশীদ ১৯৭৬ সালে সানডে টাইমস ও বিদেশি টেলিভিশনে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাে  জেনারেল জিয়ার মদদ দেওয়ার কথা বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দেন। বঙ্গবন্ধু হত্যার নয় দিন পর খুনিচক্র জিয়াকে সেনাপ্রধান হিসেবে পদোন্নতি দেয়। শুধু জিয়াই নন, জেনারেল ওসমানী, খালেদ মোশাররফ, জেনারেল এরশাদ, কর্নেল তাহেরসহ আরও অনেকের ঐতিহাসিক ভূমিকাই ছিল সন্দেহজনক। ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ সম্পর্কে লেখা এক বইয়ে গবেষক অলোক রায় লিখেছেন, অভ্যুত্থানের আগে সে বিষয়ে আলোচনার জন্য জিয়ার বাসায় ফারুক, রশীদ ও জেনারেল ওসমানী বৈঠক করেছিলেন। এ খবর পাওয়ার পর ‘র’-এর প্রধান কাউ এসে কথা পর্যন্ত বলেছিলেন বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় হাই কোর্টে দায়িত্বপ্রাপ্ত ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার দায় কেউ এড়াতে পারে না। সেনাবাহিনী, রক্ষীবাহিনী ও রাজনীতিবিদ সবাই সেদিন ব্যর্থ হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর অ্যাডভোকেট সিরাজুল হকসহ দু-একজন ছাড়া কোনো রাজনীতিবিদ সেদিন শক্ত ভাষায় প্রতিবাদও করেনি। একে একে সবাই খুনিদের দলে ভিড়েছে।’ তিনি বলেন, ‘সেদিন রাত ৩টার দিকে তৎকালীন সেনাপ্রধানকে ঘটনা বর্ণনা করে মেসেজ দিয়েছিল ৪৬ ব্রিগেড। কিন্তু সেনাপ্রধান যথাসময়ে অ্যাকশন নেননি। আর এনএসআইর প্রধান তো ছিলেন একজন পাকিস্তানপন্থি লোক। একমাত্র কর্নেল জামিল এগিয়ে এলেও তাকেও ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের কাছেই মেরে ফেলা হয়। এর ফলে সপরিবারে প্রাণ দিতে হয়েছে বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধুকে। সেদিন যাদের এই হত্যাকা- প্রতিরোধে দায়িত্ব নেওয়ার কথা ছিল, তারা নেননি। ইতিহাস কখনই তাদের ক্ষমা করবে না।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর