শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ মার্চ, ২০২০ ২৩:২৯

বিশ্ব পরিস্থিতি ভয়াবহ

নিউইয়র্ক-লন্ডনে মারা গেছেন আরও পাঁচ বাংলাদেশি, যুক্তরাষ্ট্রে নায়ক কাজী মারুফ সস্ত্রীক আক্রান্ত, চীনের চেয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু ইতালিতে, আক্রান্ত ৬ লাখ ২৯ হাজার ৬৮২, মৃত্যু ২৮ হাজার ৯৭০

প্রতিদিন ডেস্ক

বিশ্ব পরিস্থিতি ভয়াবহ

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি করেছে। এ ভাইরাস শুধু মৃত্যুই ঘটাচ্ছে না, গোটা বিশ্বকে সর্বক্ষেত্রে স্তব্ধ করে দিয়েছে। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে সবরকম যোগাযোগব্যবস্থাসহ স্বাভাবিক জীবনযাপন। মানুষকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ঘরবন্দী সময় কাটাতে হচ্ছে। আরও কত দিনে এ অবস্থার অবসান ঘটবে, এখন পর্যন্ত তা কেউই বলতে পারছে না। করোনায় এ পর্যন্ত বিশ্বে প্রায় ৬ লাখ ৩০ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন প্রায় ২৯ হাজার। ভাইরাসের উৎপত্তিস্থল চীনকে ছাড়িয়ে এখন তিন গুণ বেশি মৃত্যুর দেশ হয়ে উঠেছে ইতালি। দুই থেকে তিন দিনের ভিতর নিউইয়র্ক ও লন্ডনে নতুন করে পাঁচ বাংলাদেশিও মারা গেছেন। করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ব্রিটেনের রানী এলিজাবেথও। নিউইয়র্কে বাংলাদেশি চিত্রনায়ক কাজী মারুফ ও তার স্ত্রী আক্রান্ত হয়েছেন।

গতকাল ওয়ার্ল্ডোমিটার, আলজাজিরা ও সিএনএনের খবর অনুযায়ী, বিশ্বের প্রায় ২০০ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২৮ হাজার ৯৭০, আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লাখ ২৯ হাজার ৬৮২। এ ছাড়া মোট সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ১ লাখ ৩৮ হাজার ৮৯। এই সময় পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ইতালিতে। সেখানে মারা যান ৮৬৬ জন। নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ছিল প্রায় ১৩ হাজার। এর পরের অবস্থানে ছিল স্পেন। সেখানে ২৪ ঘণ্টায় মারা যান ৮৩২ জন। দেশটিতে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজার ৫২৯। এ ছাড়া এ সময় পর্যন্ত জার্মানিতে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৪৫৯, ইরানে ৩ হাজার ৭৬, বেলজিয়ামে ১ হাজার ৮৫০, যুক্তরাষ্ট্রে ১৩০, চীনে মাত্র ৫৪।

চীনকে ছাড়িয়ে গেল ইতালি : জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের হিসাবে শুক্রবার পর্যন্ত ইতালিতে ৮৬ হাজার ৪৯৮ জনের দেহে কভিড-১৯ ধরা পড়ে। এদিন পর্যন্ত চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৮১ হাজার ৯৪৬। এ দুই দেশই অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রের পেছনে রয়েছে। শুক্রবার পর্যন্ত বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতির এ দেশটিতে ১ লাখ ৪ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। শুক্রবার ইতালিতে ৯৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদিন পর্যন্ত প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস দেশটিতে ১০ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। এর পরই ছিল স্পেন, সেখানে কভিড-১৯-এ মৃত্যুর সংখ্যা পৌঁছায় ৫ হাজার ১৩৮-এ। চীন ও যুক্তরাষ্ট্রে নভেল করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা যথাক্রমে ৩ হাজার ২৯৫ ও ১ হাজার ৭১১। খবরে বলা হয়, করোনাভাইরাস ইতালির স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে পুরোপুরিই ভেঙে দিয়েছে। উত্তরাঞ্চল পেরিয়ে ভাইরাসের সংক্রমণ এখন ইতালির দক্ষিণেও বিস্তৃত হচ্ছে। এতে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়বে।

যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে : মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে কেবল যুক্তরাষ্ট্রেই আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। শুক্রবার এক দিনেই দেশটিতে ১৮ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে কভিড-১৯ ধরা পড়ে। মৃতের সংখ্যাও ১ হাজার ৬০০ পেরিয়ে যায়। দেশটিতে কভিড-১৯-এ আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়তে থাকায় চিকিৎসা উপকরণের ঘাটতি নিয়ে চিকিৎসকরা হাহাকার করছেন। নিউইয়র্ক সিটি, নিউ অরলিয়ন্স, ডেট্রয়েটসহ বিভিন্ন এলাকার হাসপাতাল এখন কভিড-১৯ রোগীদের ওষুধ ও চিকিৎসা উপকরণ সংকটে ভুগছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় ডোনাল্ড ট্রাম্প তার জরুরি ক্ষমতা প্রয়োগ করে জেনারেল মোটরসকে ভেনটিলেটর উৎপাদনে লাগিয়ে দিয়েছেন।

মার্কিন কংগ্রেসের পাঁচ সদস্য আক্রান্ত : মার্কিন কংগ্রেসের পাঁচ সদস্য প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এইসঙ্গে আরও ২০ জনের বেশি সদস্য সেলফ কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। আক্রান্ত পাঁচ সদস্যের মধ্যে একজন হলেন মাইক কেলি। তিনি পেনসিলভানিয়ার রিপাবলিকান নেতা। এক সপ্তাহ যাবৎ ফ্লুর মতো লক্ষণ ছিল তার শরীরে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তার শরীরে করোনা ধরা পড়ে। এ ছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন সাউথ ক্যারোলিনার ডেমোক্রেট নেতা জো কানিংহাম। মার্চের ১৯ তারিখ থেকে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন তিনি। শুক্রবার তার করোনা পজিটিভ এসেছে। মার্কিন সিনেটর র‌্যান্ড পলও গেল সপ্তাহে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে আছেন তিনি। ফ্লোরিডার রিপাবলিকান কংগ্রেস নেতা মারিও দিয়াজ বালার্টও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনিই প্রথম মার্কিন আইনপ্রণেতা যিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। অন্যদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৪৫ বছর বয়সী ডেমোক্র্যাট সদস্য বেন ম্যাকঅ্যাডামস। এ ছাড়া মহামারী করোনা আতঙ্কে সেলফ কোয়ারেন্টাইনে আছেন রিপাবলিকান সিনেটর মিট রমনে ও মাইক লি। এর আগে থেকেই কোয়ারেন্টাইনে আছেন আরও চার সিনেটর। দিয়াজ বালার্ট বা ম্যাক অ্যাডামস বা তাদের সহকারীর সংস্পর্শে ছিলেন এমন আরও বেশ কয়েকজন কংগ্রেস সদস্যও কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ আক্রান্ত : ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। বাকিংহাম প্যালেসের পক্ষ থেকে এ খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। ইউসিআর ওয়ার্ল্ড নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রানীর শরীরে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়েছে। বাকিংহাম প্যালেস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, গত ১১ মার্চ প্রধানমন্ত্রী জনসনের সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠক করেছিলেন রানী। ওই বিবৃতিতে আরও জানানো হয়েছে, করোনায় আক্রান্ত হলেও রানীর স্বাস্থ্য ভালো ও স্থিতিশীল রয়েছে। তার শরীরে করোনার লক্ষণ তেমন গুরুতর নয়।

এর আগে ব্রিটিশ সিংহাসনের উত্তরাধিকারী প্রিন্স চার্লসও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে রাজ পরিবারের তরফ থেকে নিশ্চিত হওয়া গেছে। কয়েক সপ্তাহ ধরেই বেশকিছু রাজকীয় অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন প্রিন্স অব ওয়েলস। এসব অনুষ্ঠান থেকে কোনোভাবে তার শরীরে করোনার সংক্রমণ হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। রাজ পরিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, প্রিন্স চার্লস স্ত্রী ডাচেস অব কর্নওয়ালকে নিয়ে স্কটল্যান্ডে আইসোলেশনে আছেন। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে। অন্যদিকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ ছাড়া যুক্তরাজ্যের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ক্রিস হুইটির শরীরেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ দেখা দিয়েছে। তার করোনায় আক্রান্তের বিষয়টি এখনো নিশ্চিত না হলেও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে তিনি নিজেই সাত দিনের সেলফ আইসোলেশনে রয়েছেন।

পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও আক্রান্ত : পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ার পর থেকেই সামাজিক মাধ্যমে ইমরান খানের করোনায় আক্রান্তের গুজব ছড়িয়ে পড়ে। তবে পাক প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছেন, তিনি সুস্থ আছেন। সম্প্রতি টেলিভিশনে ভাষণও দিয়েছেন ইমরান খান। এ থেকেই দাবি করা হচ্ছে তিনি করোনায় আক্রান্ত হননি। এ ছাড়া পাক সিনেটর ফয়সাল জাবেদ প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের করোনায় আক্রান্তের গুজব উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘এটা মিথ্যা কথা’। তিনি বলেন, একটি ব্রিটিশ পত্রিকা এ মিথ্যা খবর প্রকাশ করেছে। এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কভিড-১৯ পজিটিভ আসার খবর সত্য নয়। এমন মিথ্যা খবর ছড়ানো থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। উল্লেখ্য, পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৩৭৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটিতে মারা গেছেন ১১ জন।

বিশ্বে মৃত্যুর ৭০ ভাগ ইউরোপে : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) জানিয়েছে, সারা বিশ্বে বর্তমানে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত যত মানুষ মারা গেছে তার শতকরা ৭০ ভাগ ইউরোপের। হুর ইউরোপবিষয়ক আঞ্চলিক পরিচালক হ্যান্স ক্লুজ জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে গতকাল বলেন, সারা বিশ্বে যত মানুষ করোনাভইরাসে আক্রান্ত তার শতকরা ৭০ ভাগ ইউরোপে হয়েছে। গত শুক্রবার পর্যন্ত ইউরোপে ১৫ হাজার ৫০০ মানুষ মারা গেছেন, যার মধ্যে শুধু ইতালিতেই মারা গেছেন ৮ হাজার ১৬৫ জন। এর পরে রয়েছে স্পেন। সেখানে মারা গেছেন ৪ হাজার ৮৯ জন। ইউরোপে তৃতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে ফ্রান্সে। এ দেশটিতে মারা গেছেন ১ হাজার ৩৩১ জন। এ ছাড়া ইউরোপে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৬৮ হাজার ১৯১ জন।

নিউইয়র্ক-লন্ডনে পাঁচ বাংলাদেশির মৃত্যু : যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও চার বাংলাদেশি প্রবাসী মারা গেছেন। তার মধ্যে এ কে এম মনির উদ্দিন নামে ৬৩ বছরের একজন ক্যাব চালক ২৭ মার্চ মারা যান। একই দিন সফিউদ্দিন বেপারী নামে ৫৮ বছরের আরেক বাংলাদেশি মারা গেছেন। নগরীর ব্রংক্স এলাকায় বৃহস্পতিবার মারা গেছেন ৭৭ বছর বয়সী এক বাংলাদেশি এবং গত বুধবার মারা গেছেন ব্রুকলিন এলাকার ৪৫ বছরের মোছাম্মদ আক্তদারি। একই সঙ্গে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সবার পরিবারকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে। এ নিয়ে নিউইয়র্কে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মোট ১২ বাংলাদেশি মারা গেলেন। এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে লন্ডনের ম্যানচেস্টার হাসপাতালে সাঈদ হোসেন জসিম (৬৫) নামে এক বাংলাদেশি মারা গেছেন। তিনি ইতালির মিলান সেন্ট্রাল মসজিদের সাবেক সভাপতি। গত শুক্রবার স্থানীয় সময় আনুমানিক বেলা আড়াইটায় তিনি ম্যানচেস্টার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। সাঈদ হোসেন জসিম দীর্ঘদিন ধরে ইতালি ছিলেন। এরপর কয়েক বছর ধরে লন্ডন চলে যান। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সপরিবারে লন্ডন ম্যানচেস্টারে থাকতেন। তার দেশের বাড়ি ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার মুন্সীর হাটে।

করোনা ঢুকল পোষা বিড়ালের দেহে : এক ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হওয়ার মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যে তার পোষা বিড়াল কভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়েছে। বেলজিয়ামের লেইজে এ ঘটনা ঘটেছে। বিড়ালটির শ্বাসকষ্ট, পাতলা পায়খানাসহ কভিড-১৯-এ আক্রান্ত মানুষের মতোই উপসর্গ দেখা দিয়েছে। দেশটির করোনা মোকাবিলা কেন্দ্রের মুখপাত্র ইমানুয়েল আন্দ্রে বলেছেন, প্রভুর সঙ্গে অতি বেশিমাত্রায় ঘনিষ্ঠ হওয়ার কারণেই বিড়ালটি এ রোগে আক্রান্ত হয়েছে। উল্লেখ্য, এর আগে চলতি মাসের গোড়ার দিকে হংকংয়ে একটি কুকুরের শরীরে করোনা আক্রান্ত হওয়ার আলামত পাওয়া গিয়েছিল। হালকাভাবে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর কুকুরটিকে রাখা হয়েছিল কোয়ারেন্টাইনে।

ভারতে আক্রান্ত বেড়েছে : পিটিআই জানিয়েছে, নিয়মিত ধাপে ধাপে এগোচ্ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। একই সঙ্গে বাড়ছে মৃত্যুও। গতকাল পর্যন্ত দেশে ৯০৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ২০ জন। মৃতের সংখ্যা সব থেকে বেশি মহারাষ্ট্রে। সে রাজ্যে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। তার পরই রয়েছে গুজরাট। গুজরাটে মৃতের সংখ্যা ৩। এ ছাড়া কর্ণাটকে ২, মধ্যপ্রদেশে ২ এবং তামিলনাড়ু, বিহার, পাঞ্জাব, দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গ, জম্মু-কাশ্মীর ও হিমাচল প্রদেশে একজন করে কভিড ১৯-এ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। আক্রান্তের হিসাবে মহারাষ্ট্র সব থেকে এগিয়ে রয়েছে। এ রাজ্যে ১৮০ জনের শরীরে করোনার অস্তিত্ব মিলেছে। নতুন করে আরও সাতজনের কভিড-১৯ পজিটিভ ধরা পড়েছে। অন্যদিকে কেরালায়ও পরিস্থিতি বেশ খারাপ। সে রাজ্যে ১৭৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। নতুন করে সে রাজ্যে আরও ৩৯ জন ভাইরাসে আক্রান্ত হন। এ ছাড়া কর্ণাটকে ৫৫, রাজস্থানে ৪৮, তেলেঙ্গানায় ৪৮, গুজরাটে ৪৫, উত্তর প্রদেশে ৪৫, দিল্লিতে ৩৯ জন ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। পাঞ্জাব, মধ্যপ্রদেশ, জম্মু ও কাশ্মীর, পশ্চিমবঙ্গ, অন্ধ্রপ্রদেশ, লাদাখসহ দেশের প্রায় সব রাজ্যেই করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর