শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ এপ্রিল, ২০২০ ২৩:৪১

সর্দি জ্বর কাশি নিয়ে মৃত্যু আরও ১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক

সর্দি জ্বর কাশি নিয়ে মৃত্যু আরও ১৮

দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা রোগী। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। এর মধ্যে আতঙ্ক বাড়িয়ে তুলেছে সর্দি, জ্বর, কাশি নিয়ে একের পর এক মৃত্যু। গতকালও সারা দেশে করোনার উপসর্গ নিয়ে অন্তত ১৮ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তাৎক্ষণিকভাবে এসব মানুষ করোনায় আক্রান্ত ছিলেন কিনা জানা যায়নি। তবে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে ওইসব মৃত মানুষের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হচ্ছে ল্যাবে।

সর্দি-জ্বর নিয়ে গত ৫ এপ্রিল দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি হন নারায়ণগঞ্জ সদরের শহিদুল্লাহর ছেলে মো. মিয়াদ (২৩)। শ্বাসকষ্ট শুরু হলে তাকে হাসপাতালের নিচতলায় আইসোলেশনে  রাখা হয়। গতকাল সকালে তিনি মারা যান। এদিকে প্রচ- শ্বাসকষ্ট নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের বাসিন্দা মো. শারাফাত (৫৫) গতকাল ঢামেকের জরুরি বিভাগে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে আইসোলেশনে পাঠান। পরীক্ষার জন্য তার নমুনা পাঠানো হয়। বিকাল সোয়া ৩টায় তিনি মারা যান। এ ছাড়া গতকাল নারায়ণগঞ্জের জামতলা এলাকায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আফতাব উদ্দিন (৭০) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর পর আতঙ্কে পরিবারের কেউ লাশের কাছে যায়নি। খবর পেয়ে সিটি করপোরেশন মরদেহ দাফনের ব্যবস্থা করে। একই দিন বিকালে করোনা উপসর্গ নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) ভর্তি হওয়া নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার নুরুল ইসলামের মৃত্যু হয়েছে। এদিন বেলা ১১টার করোনা উপসর্গ নিয়ে রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার মুজিবর রহমান (৬৫)। তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন বলে পরিবারের বরাত দিয়ে জানিয়েছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুল ফারুক।

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের কৈয়ারধারী গ্রামে গতকাল সর্দি-জ্বর নিয়ে মহিনউদ্দীন (৩০) নামের এক নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় তিনটি বাড়ি লকডাউন ও পরীক্ষার জন্য মৃতের নমুনা সংগ্রহ করেছে প্রশাসন। স্থানীয়রা জানান, গত পাঁচ দিন ধরে তিনি সর্দি, কাশি ও জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন। অসুস্থ অবস্থায়ই তাকে মসজিদে নামাজ আদায়সহ দোকানপাটে ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে। মঙ্গলবার রাত থেকে তার পাতলা পায়খানা শুরু হয়। বুধবার ভোরে মৃত্যু হয়।

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার রশিদপুর এলাকায় গতকাল বিকালে শ্বাসকষ্ট, জ্বর ও গলা ব্যথা নিয়ে মোহাম্মদ আলী নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী হাফিজুল আমিন বলেন, ওই ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট পেলে করোনা কিনা জানা যাবে। এ ছাড়া টঙ্গীর ৫৪ নম্বর ওয়ার্ডে জ্বর, ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে গতকাল সাকিব (১৬) নামে এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর ও নবীনগর উপজেলায় শ্বাসকষ্ট নিয়ে গতকাল দুজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের একজনের বয়স ৫৭, অপরজনের ২০ বছর। করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। জানা গেছে, বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামের মজিবুর রহমান (৭০) জ্বর, শ্বাসকষ্ট, কাশি ও হার্টের সমস্যা নিয়ে দুপুরে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসার পথে মৃত্যুবরণ করেন। অপরজন কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার বলিঘর গ্রামের বাসিন্দা। গতকাল দুপুরে প্রচ- শ্বাসকষ্ট নিয়ে তিনি নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে পরীক্ষায় তার নিউমোনিয়ার লক্ষণ দেখা যায়। তাকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। অ্যাম্বুলেন্সে উঠানোর আগে বেলা ৩টার দিকে তার মৃত্যু হয়। এ ছাড়া করোনা উপসর্গ নিয়ে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢামেকে আইসোলেশনে থাকা বাঞ্ছারামপুরের আইয়ুবপুর ইউনিয়নের এক কৃষক (৪৫) মারা গেছেন। একইদিন রাতে নাসিরনগর উপজেলার জেঠাগ্রামে শ্বশুরবাড়িতে জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা যান মালয়েশিয়াফেরত এক প্রবাসী (৩৫)। পরীক্ষার জন্য তাদের দুজনের নমুনা সংগ্রহ করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট পৌর এলাকায় করোনা উপসর্গ নিয়ে বাবার বাড়িতে চিকিৎসা নিতে এসে হাজেরা বেগম (২৮) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল সকালে মৃত্যুর পর তড়িঘড়ি তাকে স্বামীর বাড়িতে নিয়ে দাফন করা হয়। এর আগের দিন নাঙ্গলকোটের দৌলখাঁর গ্রামে করোনা উপসর্গ নিয়ে মোশাররফ হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়।

রংপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। একজন কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ হাসপাতালের পরিচ্ছন্নতাকর্মী মিনা রানী। অপরজন মিঠাপুকুর উপজেলার মোর্শেদা বেগম (২৮)। তিনি গাজীপুরে একটি ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি করতেন। পরীক্ষার জন্য দুজনের নমুনা সংগ্রহ করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার বাগধা গ্রামে জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও গলাব্যথা নিয়ে গতকাল দুপুরে এক বাস শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকা এক যুবকের (৩৪) মৃত্যু হয়েছে। গতকাল মারা যাওয়া ওই যুবক সর্দি, জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে আগের দিন সদর হাসপাতালে আসলে কর্তৃপক্ষের পরামর্শে তাকে আইসোলেশনে রাখা হয়।

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার শাঁখারিকাঠী ইউনিয়নের মাদুলিহারানিয়া গ্রামে গতকাল করোনা উপসর্গ নিয়ে তাবলিগফেরত এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। তার নাম বজলুর রহমান হাওলাদার (৭০)। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমান জানান, মৃতের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে এবং ওই এলাকা লকডাউন করার প্রক্রিয়া চলছে।

নীলফামারীর ডোমারে সর্দি, জ্বর ও কাশিতে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার রাতে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। বুধবার দুপুরে তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। স্থানীয়রা এগিয়ে না আসায় বিকালে পুলিশের সহায়তায় মরদেহ দাফন করা হয়।

রাজশাহীর বাঘায় গতকাল ভোরে আবুল কালাম আজাদ নামে তাবলিগ ফেরত এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। গত ৫ এপ্রিল তাবলিগ থেকে ফেরার পর স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় তাকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল। পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে ৩ ঘণ্টার ব্যবধানে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু ঘটেছে। পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সেরেস্তাদারবাড়ি এলাকায় গতকাল সকালে এ ঘটনা ঘটে। এ খবর ছড়িয়ে পড়ামাত্র এলাকায় করোনা আতঙ্ক দেখা দেয়। তবে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে করোনার কোনো উপসর্গ পাননি। এ নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর