শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:১৩

জোটের রাজনীতি ভোটেই শেষ

গত জাতীয় নির্বাচনের আগে আটটি জোটের দৌড়ঝাঁপ ছিল, এখন সবই নিষ্ক্রিয়, একলা চল নীতিতে প্রধান দুই দল

মাহমুদ আজহার ও রফিকুল ইসলাম রনি

জোটের রাজনীতি ভোটেই শেষ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ব্যাপক তোড়জোড় শুরু হয় জোটের রাজনীতিতে। বিশেষ করে সংসদের আসন ভাগাভাগি নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কাছে জোটের শরিক দলগুলো অস্বাভাবিক আবদার করে। যদিও শেষ পর্যন্ত শরিক দলগুলোকে গুটিকয়েক আসনেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়। ভোট শেষ হয়ে যাওয়ার পর ক্রমেই জোটের রাজনীতিতে ভাটা পড়ে। প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি এখন অনেকটাই একলা চল নীতিতে এগোচ্ছে। শরিক দলগুলো এখন অনেকটাই গুরুত্বহীন। সর্বশেষ সরকারের মন্ত্রিসভায় ঠাঁই মেলেনি শরিক জোটের কোনো নেতার। ক্ষোভে ফুঁসলেও মুখ ফুটে বলছেন না কেউই। অন্যদিকে জাতীয় নির্বাচনের পর বিএনপি ২০-দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে এড়িয়ে চলছে। জাতীয় পার্টি, যুক্তফ্রন্ট বা বিএনএ জোটের তো কোনো অস্তিত্বই নেই। একাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে ব্যাপক আলোচনায় থাকা জোটগুলোর মধ্যে রয়েছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোট, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট, বিএনপি ও ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট, জাতীয় পার্টির মরহুম চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের নেতৃত্বাধীন অর্ধশত নামসর্বস্ব রাজনৈতিক দলের সমন্বয়ে সম্মিলিত জাতীয় জোট, ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার নেতৃত্বাধীন বেশ কয়েকটি নামসর্বস্ব দলের সমন্বয়ে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট এলায়েন্স (বিএনএ), বামপন্থি রাজনৈতিক আদর্শের পতাকাবাহী আটটি রাজনৈতিক দলের জোট গণতান্ত্রিক বাম জোট। এখন প্রায় সব জোটের কার্যক্রম নেই বললেই চলে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, রাজনৈতিক জোটগুলো হয় মূলত ভোটকে ঘিরে। বিশেষ করে বড় দলগুলোর সঙ্গে ছোট দলগুলো জোট বাঁধে। সবারই লক্ষ্য নির্বাচন। এসব জোটের কেউ প্রধান দুই দলের পৃষ্ঠপোষকতা চায়, আবার কোনো কোনো জোট বিকল্প শক্তি হিসেবে নিজেদের জানান দিতে চায়। এর কারণ, অনেক ছোট দলের তাদের নিজের পায়ে ভর করে ক্ষমতায় যাওয়া বা এমপি হওয়ার সুযোগ নেই। তাই তারা জোট-মহাজোটের সান্নিধ্যে থেকে এমপি-মন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখে। এক নেতার এক দল নিয়েই অধিকাংশ জোট। কিন্তু ভোট শেষ জোটও শেষ। আবার দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে জোটের রাজনীতি দেখা যাবে। ’৯০-পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের রাজনীতিতে এটা হয়ে আসছে। 

এ প্রসঙ্গে কলামিস্ট ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘ভিন্ন নীতি আদর্শের অনেক দুর্বল সংগঠনের যোগফলে একটি বড় শক্তি হয় না। নির্বাচনের আগে দুটি প্রধান দলের (আওয়ামী লীগ-বিএনপি) সঙ্গে গিয়ে জোট বাঁধে ছোট ছোট অনেক দল। তাতে শুধু বড় দল দুটিরই জোর বাড়ে। পরবর্তীতে যে দল ক্ষমতায় যায়, তার থেকে ছিটেফোঁটা সুবিধা নিয়েই ছোট দলের নেতারা সন্তুষ্ট। যে দল ক্ষমতায় যেতে পারে না, সেই জোটও অনেকটা অকার্যকর হয়ে পড়ে। এটা কোনো সুস্থ রাজনীতি নয়। বাংলাদেশের রাজনীতিতে এখন নীতি আদর্শ কোনো বিবেচ্য বিষয় নয়। সবচেয়ে প্রধান বিষয় সুবিধাবাদ।’

একলা চল নীতিতে আওয়ামী লীগ : আওয়ামী লীগের ‘একলা চল নীতি’তে ক্ষুব্ধ শরিক জোটের নেতারা। আন্দোলন, নির্বাচন একসঙ্গে হলেও অনেক বিষয় জোটের শরিকদের কাছে এখনো ‘অস্পষ্ট’ বলে মনে করছেন তারা। বিগত দুটি নির্বাচনের পর সরকার গঠনে শরিক দলের নেতারা মন্ত্রিসভায় থাকলেও এবার কাউকে রাখা হয়নি। সে কারণে শুধু ভোটের কারণেই জোট- এমনটাই বলছেন শরিক দলের নেতারা। কোনো কাজের জন্য সরকারের মন্ত্রীদের কাছে তাদের ধরনা দিতে হয় সচিবালয়ে। সচিবালয়ে যাওয়া-আসার কারণে অনেক নেতাকে ‘দালাল’ তিরস্কার শব্দও শুনতে হয়েছে। জোটের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, এখন নতুন কৌশল নিয়ে এগোচ্ছে ১৪ দল। একচেটিয়া বিজয়ের পর শরিকদের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ছে আওয়ামী লীগের। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ের পর শরিক দলগুলোকে বিরোধী দলে আসতে বলা হয়েছিল। তারা সংসদে বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করতে রাজি হয়নি। জোট করার ক্ষেত্রে যে ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার কথা ছিল তা না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ তারা। এ প্রসঙ্গে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সঙ্গে আমরা তিন ধাপের চুক্তিতে জোট করেছিলাম। তার ধারাবাহিকতায় ২০০৮, ২০১৪ এবং ২০১৮ সালে নির্বাচন করেছি। ২০০৮ ও ২০১৪ সালে জোটের শরিকরা সরকারে ছিল। এখন নেই। এটা নিয়ে কারও মনোমালিন্য থাকতে পারে। তিনি বলেন, জোটের মধ্যে কিছু সমস্যা থাকতে পারে। যেমন- দুর্নীতি, দলবাজি, ক্ষমতাবাজি ও দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে লড়তে হবে। বাংলাদেশকে নিরাপদ রাখতে ১৪-দলীয় জোট ঐক্যবদ্ধভাবেই কাজ করবে।’  জোটের শরিক দলের নেতারা জানান, ১৪-দলীয় জোট এখন কেবল কাগুজে জোটে পরিণত হতে চলেছে। আওয়ামী লীগ আর আগের মতো শরিকদের গুরুত্ব দিচ্ছে না। সে কারণে এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। ভোটের সময় তাদের ডাকা হলেও অথবা কদর থাকলেও এখন সে কদর নেই, যা ক্ষোভের সৃষ্টি করছে। যখন খুশি তখন শরিকদের ব্যবহার করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগ শক্তিশালী দল হিসেবে যখন প্রয়োজন তখন শরিকদের ডাকছে। অন্য সময় পাত্তা দেয় না। ফলে জোটের মধ্যে হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘১৪-দলীয় জোটকে শক্তিশালী করতে যারা দায়িত্বে আছেন তারাই হয়তো সিরিয়াস নন। বর্তমান পরিস্থিতিতে যে কোনো সংকট দেখা দিলে যদি রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করতে সক্ষম না হই তাহলে অন্যভাবে সম্ভব হবে না, এটা আওয়ামী লীগকে মনে রাখতে হবে।’ 

জোটের অন্যতম শরিক তরীকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারি বলেন, করোনাকালে জোটের কাজ যেভাবে করা দরকার ছিল তা করা হয়নি। জোটের শরিক দলের নেতাদের জেলা পর্যায়ের আইনশৃঙ্খলা কমিটিসহ বিভিন্ন কমিটিতে রাখা প্রয়োজন। কিন্তু তা করা হয়নি।

জোটের আরেক শরিক নেতা ন্যাপের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন বলেন, ভোটের সময় জোটের গুরুত্ব ছিল, এখন তা কমে গেছে।

জোট-ফ্রন্ট ছাড়াই চলছে বিএনপি : একাদশ জাতীয় নির্বাচনের পর জোট-ফ্রন্টের শরিকদের এড়িয়ে চলছে বিএনপি। এই দুই জোটের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই বিএনপি এককভাবে অনেক সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। এমনকি বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে এককভাবে মাঠে রয়েছে। ২০-দলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্টে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ২০-দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন শরিকরা।

জোট নেতারা জানান, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর সংসদ সদস্যদের শপথ নেওয়ার সিদ্ধান্তের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছিলেন শরিক দলের অনেকেই। এ নিয়ে প্রকাশ্যে বিএনপির সমালোচনাও করেন কেউ কেউ। ভোটের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার যৌক্তিকতাও হারিয়েছে বিএনপি। এর মাশুল দিতে হবে আগামী দিনের রাজনীতিতে। জোট নেতারা জানান, সিটি নির্বাচন, উপনির্বাচন বা স্থানীয় সরকারের অন্য সব নির্বাচনে অংশ নিতে হলে বিএনপির উচিত প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়ার আগে অন্তত জোট নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করা, যাতে ভোটের মাঠে সবাইকে পাশে পাওয়া যায়। তা না করায় এসব নির্বাচনে বিএনপি একাই মাঠে ছিল। জোট-ফ্রন্টের নেতা-কর্মীদের দেখা যায়নি। এ ছাড়া গত সংসদ নির্বাচনের পর দুই জোটের সঙ্গে নামেমাত্র  দু-একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও গুরুত্বপূর্ণ কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ অবস্থায় দুই জোট এখন অকার্যকর ও কাগুজে হয়ে পড়েছে।

বিএনপির একাধিক নীতিনির্ধারক জানান, এ মুহূর্তে দল নিয়ে বেশি ভাবছে হাইকমান্ড। এ ছাড়া দলের অধিকাংশ নেতা-কর্মী মনে করেন, দুই জোটের কারণে বিএনপিই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জোটের ব্যানারে কোনো কর্মসূচি দিলে সেখানে বিএনপির নেতা-কর্মীরাই থাকেন। ২০-দলীয় জোট বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা-কর্মীদের পাওয়া যায় না। বিএনপির সিনিয়র এক নেতা বলেন, ২০-দলীয় জোট বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করা হয়েছিল একটি বিশেষ প্রেক্ষাপটে। তাদের সঙ্গে বিএনপির আদর্শিক জোট হয়নি, এটা একটি নির্বাচন ও আন্দোলনকেন্দ্রিক জোট। তবে দুই জোটের সঙ্গে টানাপোড়েন চলছে, তা বলা যাবে না। সরাসরি বৈঠক কম হলেও জোটের সিনিয়র নেতাদের যোগাযোগ অব্যাহত আছে। আবার এটাও ঠিক, গণফোরামসহ কয়েকটি শরিক দলে অভ্যন্তরীণ কোন্দল চলছে। আবার এখনো করোনাভাইরাস সংক্রমণ আছে। এ মুহূর্তে কৌশলগত কারণেই কোনো জোটের সঙ্গে বৈঠক করা হচ্ছে না। তবে শিগগিরই ভার্চুয়ালে কিংবা সরাসরি বৈঠক করা হবে। এ প্রসঙ্গে সিঙ্গাপুর থেকে ফোনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘দুই জোটে কোনো সমস্যা নেই। করোনাভাইরাসের কারণে হয়তো দেখা হয় না; বৈঠক হয় না। কিন্তু সবার সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে। ফ্রন্ট ও জোটের ঐক্য অটুট আছে। তবে এ মুহূর্তে আমরা দল নিয়ে বেশি ভাবছি। দল গোছানোর কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি।’ 

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘গত সংসদ নির্বাচনের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে দূরত্ব বাড়ছে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। এখন কোনো বৈঠকও হয় না। এ জন্য বিএনপিই অনেকাংশে দায়ী। বর্তমানে উপনির্বাচন ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপি এককভাবে অংশ নিচ্ছে। কিন্তু অংশ নিয়ে তাদের যেমন কোনো লাভ হবে না, জনগণেরও কোনো লাভ হবে না। এসবের মাধ্যমে বিএনপি দু-একটি আসনে জিতলেও জনগণের কিছু আসে-যায় না।’ ২০-দলীয় জোটের শরিক দল ডেমোক্র্যাটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন মনি বলেন, ‘এটা সত্য যে ২০-দলীয় জোট এখন অনেকটাই গুরুত্বহীন। মাঝেমধ্যে কথাবার্তা হলেও কার্যকর কোনো সিদ্ধান্ত হয় না। বিএনপি নিজেদের নিয়েই ব্যস্ত বেশি। কোনো কোনো দল নতুন কিছু করার চিন্তাভাবনাও করছে। তবে আবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে জোটের গুরুত্ব বাড়বে।’


আপনার মন্তব্য