শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:১৬

সরকারের উদাসীনতায় দেশ বিপৎসংকুল

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারের উদাসীনতায় দেশ বিপৎসংকুল
Google News

জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে সংকট মোকাবিলায় উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, সরকারের উদাসীনতা, অগ্রাধিকার নির্ধারণে ইচ্ছাকৃত উপেক্ষা, রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়নের অপকৌশল হিসেবে করোনা সংক্রমণের তথ্য গোপন ও সীমাহীন ব্যর্থতা পুরো দেশকে এক বিপৎসংকুল পথে নিয়ে চলেছে। এ অবস্থায় জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে সর্বদলীয় কমিটি গঠন করে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সমস্যার সমাধান করা হোক। এ বিশাল চ্যালেঞ্জ জনগণের সম্পৃক্ততা ছাড়া মোকাবিলা সম্ভব নয়। গতকাল বিকালে রাজধানীর উত্তরায় নিজ বাসভবন থেকে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব এ প্রস্তাব দেন। তিনি বলেন, জনগণকে সম্পৃক্ত করতে হলে রাজনৈতিক দল, সংগঠন, ব্যক্তি সব স্তরের মানুষকে এর সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে হবে। সবার মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। মানুষকে এ ব্যাধি ও এর ভয়াবহতা সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে। আসুন আমরা জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে এ সংকট মোকাবিলায় উদ্যোগ নিয়ে মানুষ বাঁচাই, দেশ বাঁচাই।

মির্জা ফখরুল বলেন, এখন মানুষের জীবন ও জীবিকা রক্ষা করা সবচেয়ে বড় প্রয়োজন। সরকারকে আহ্বান করব অতিদরিদ্র থেকে শুরু করে নিম্ন আয়ের শ্রমিক, দোকান-শিল্পকারখানায় কর্মরতদের ভাতা প্রদান করতে হবে। যত দিন লকডাউন থাকবে তাদের ভাতা দিতে হবে। বিশেষ করে যারা একেবারে দিন আনে দিন খায় তাদের ব্যাপক হারে ত্রাণসামগ্রী দিতে হবে। সব মানুষের জন্য করোনার টিকা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশকে যদি হার্ড ইমিউনিটির মধ্যে আনতে হয় তাহলে কমপক্ষে সাড়ে ১২ কোটি মানুষকে টিকা দিতে হবে। একই সঙ্গে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, সাড়ে ১২ কোটি টিকার এখন পর্যন্ত কোনো সংস্থান হয়নি। এখন চীন ও রাশিয়া থেকে তারা টিকা আনার কথা ভাবছে। এখন কেন ভাববেন? এক বছর আগে থেকে এটা করলেন না কেন? এক বছর থাকলেন তাদের বিভিন্ন বর্ষ উদ্যাপনের জন্য, বিভিন্ন রকম তাদের যেসব দৈনন্দিন কাজ বিশেষ করে মেগা প্রজেক্ট, ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট নিয়ে ব্যস্ত থাকলেন।

তিনি বলেন, আমরা প্রস্তাব রাখছি মানুষের মধ্যে হার্ড ইমিউনিটি তৈরির জন্য সাড়ে ১২ কোটি টিকা সংগ্রহ করতে হবে। এ টিকা সংগ্রহের জন্য সরকারের উচিত হবে এখনই ব্যবস্থা নেওয়া। রোডম্যাপ তৈরি করা, কীভাবে টিকা আসবে, কীভাবে বিতরণ হবে, কীভাবে যাবে জনগণের কাছে। বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেন, করোনা মোকাবিলায় বিভিন্ন হাসপাতালে বেড ও আইসিইউ সংকট, করোনা পরীক্ষার অপ্রতুলতাসহ যে দুরবস্থা চলছে তার জন্য সরকারের ব্যর্থতা, উদাসীনতা, সমন্বয়হীনতা ও অব্যবস্থাপনাই দায়ী।

এই বিভাগের আরও খবর