শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩১ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মে, ২০২১ ২৩:১৯

কাউন্সিল সামনে রেখে সুসংগঠিত করা হচ্ছে আওয়ামী লীগকে

রফিকুল ইসলাম রনি

কাউন্সিল সামনে রেখে সুসংগঠিত করা হচ্ছে আওয়ামী লীগকে
মাহবুব-উল আলম হানিফ
Google News

জাতীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দলীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। তিনি বলেছেন, চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই মেয়াদ উত্তীর্ণ জেলা-উপজেলা ও ইউনিয়নের সম্মেলন শেষ করা হবে। দলের ২২তম জাতীয় কাউন্সিল সামনে রেখেই তৃণমূলকে শক্তিশালী করা হচ্ছে। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, করোনার কারণে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম বন্ধ নেই। দলের পক্ষ থেকে রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ড চলমান রয়েছে। প্রথম ধাপে করোনার সময় সরকারি সহযোগিতা ছাড়াও দলীয়ভাবে ১ কোটি ২৫ লাখ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা, নগদ ১০ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপে ৩৫ লাখ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা করা হয়েছে। তিনি বলেন, করোনার প্রথম থেকেই দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশে আমরা জনগণের পাশে ছিলাম। মাস্ক, স্যানিটাইজার, খাদ্যসামগ্রী এবং নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়েছে। করোনা রোগীদের চিকিৎসা সহায়তা দিতে ছাত্রলীগ, যুবলীগের নেতা-কর্মীদের নেতৃত্বে টিম গঠন করে চিকিৎসাসেবা এমনকি দাফন-সৎকারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

হানিফ বলেন, করোনা সংক্রমণ কিছুটা কমে আসায় সীমিত আকারে সাংগঠনিক কার্যক্রম করেছিলাম। তিন শতাধিক ইউনিয়ন, অর্ধশত উপজেলা এমনকি একটি জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনও করা হয়েছে এই সময়ে। করোনার দ্বিতীয় ধাপ শুরু হওয়ার পর সাংগঠনিক কার্যক্রম কিছুটা সীমিত করা হয়েছে। করোনার প্রকোপ কমলেই জাতীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে দলকে সুসংগঠিত করতে জোরালোভাবে ইউনিয়ন, উপজেলা-জেলা সম্মেলন করা হবে। আমাদের লক্ষ্য চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই মেয়াদ উত্তীর্ণ সাংগঠনিক জেলা-উপজেলার সম্মেলন শেষ করা।  তৃণমূলকে শক্তিশালী করাই আমাদের লক্ষ্য।

‘দেশের জন্য কখনো আওয়ামী লীগ শুভ কাজ করেনি এবং দেশকে তাঁবেদারি রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে’ বলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করে হানিফ বলেন, এসব কথাবার্তা অর্বাচীনরাই বলে থাকেন। দ্বিতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার যখন বাংলাদেশের দায়িত্ব নেয় তখন দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা কেমন ছিল? অথচ আজকে মাথাপিছু আয়ে ভারতকে ছাড়িয়েছি। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু হচ্ছে। রিজার্ভ বাড়ছে। কর্নফুলী ট্যানেল, মেট্রোরেল হচ্ছে, বড় বড় প্রকল্পের মাধ্যমে উন্নত রাষ্ট্রের কাছাকাছি নিয়ে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব। বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ চলতি বছরে ৪৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে, যা ২০১০ সালে ছিল মাত্র ৯ বিলিয়ন ডলার। এ ছাড়া দেশে রেমিট্যান্সের পরিমাণ ২০০ বিলিয়ন ডলার স্পর্শ করেছে। বিশ্বনেতারা ও শক্তিশালী গণমাধ্যম বাংলাদেশকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি দিচ্ছেন। অথচ বিএনপির নেতারা অর্বাচীনের মতো কথাবার্তা বলছেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, আসলে বিএনপির এখন নিজস্ব কোনো রাজনীতি নেই। তাদের রাজনীতি খালেদা জিয়ার চিকিৎসার মধ্যে আটকে আছে। একবার তারা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি করেন। আবার চিকিৎসার দাবিও করেন। কখন কি দাবি করছেন, তার কোনো ঠিক নেই। তাদের এসব দাবির সঙ্গে জনগণের কোনো সম্পর্ক নেই।

তিনি বলেন, ভুল রাজনীতির কারণে বিএনপি জনবিচ্ছিন্ন হওয়ার পথে। তারা রাজনীতির মাঠে হারিয়ে যাচ্ছে। সে কারণেই তাদের চোখে সবকিছু ধূসর লাগছে। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকায় তাদের মধ্যে হতাশা চলে এসেছে। তাই নানা অসংলগ্ন কথাবার্তা বলছেন দলটির নেতারা।

এই বিভাগের আরও খবর