শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩১ জুলাই, ২০২১ ২৩:৩২

সংঘর্ষে সাতজন নিহত

বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী আসাম-মিজোরামের মধ্যে উত্তেজনা

নয়াদিল্লি প্রতিনিধি

Google News

বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী ভারতের দুই রাজ্য আসাম ও মিজোরাম পরিস্থিতির গতকাল অবনতি ঘটেছে। মিজোরাম পুলিশ আসামের বিজেপি দলীয় মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা ও উচ্চপদস্থ সব পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে খুনের মামলা দায়ের করেছে। মিজোরাম রাজ্যও বিজেপির শরিক মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্ট দ্বারা শাসিত। গত সোমবার সীমান্তে অনুপ্রবেশের অভিযোগে আসাম ও মিজোরাম পুলিশের মধ্যে প্রকাশ্যে সশস্ত্র সংঘর্ষ হয়। এতে আসাম পুলিশের ছয় সদস্যসহ সাতজন মারা যান। মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরাইথাংগা সংবাদমাধ্যমে বলেছেন, উভয় পুলিশ বাহিনী একে অন্যের বিরুদ্ধে মেশিনগানের  মতো আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করেছে। সংঘর্ষে মিজোরামের বহু মানুষ আহত। বরাক উপত্যাকার করিমগঞ্জ, কাছাড় ও হাইলাকান্দির সঙ্গে মিজোরামের সীমান্ত রয়েছে। রাজ্য দুটির মধ্যে বিবাদ প্রায় দেড় শ বছরের পুরনো। কিন্তু হঠাৎ এ বিবাদ সংঘর্ষে রূপান্তরিত হওয়ায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ওই এলাকা সফর করেন। তাতেও বিবাদ মেটেনি। উভয় মুখ্যমন্ত্রী একে অন্যের বিরুদ্ধে টুইটে বাক্যবাণ ছুড়ছেন। পরস্পর পরস্পরের বিরুদ্ধে সীমানা লঙ্ঘনের অভিযোগ করছেন। এ এলাকা বাংলাদেশের নিকটবর্তী সীমান্ত। মিজোরাম পুলিশ আসামের মুখ্যমন্ত্রী আর পুলিশের মহাপরিচালকসহ পদস্থ অফিসারদের বিরুদ্ধে এফআই দাখিল করেছে। পরে আসাম পুলিশও মিজোরামের পুলিশ কর্তাদের বিরুদ্ধে দিল্লিতে থানায় অভিযোগ দায়ের করে। ইতিমধ্যে আসাম সরকার নাগরিকদের উদ্দেশে সতর্কবাণী জারি করে জানিয়েছে এখন যেন কেউ মিজোরাম সফর না করেন।

আসামের মুখ্যমন্ত্রী প্রস্তাব দেন, নিরপেক্ষ সংস্থা দিয়ে তদন্ত করে দেখা হোক কে দায়ী? ভারতে এই প্রথম দুই রাজ্য একে অনে র বিরুদ্ধে অস্ত্র নিয়ে আক্রমণ করছে। বিরোধী নেতা রাহুল গান্ধীও প্রধানমন্ত্রী মোদির সমালোচনা করে বলেন, ‘আজ দুই শরিক একে অন্যের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। এটাই মোদির সুশাসনের নমুনা!’

এই বিভাগের আরও খবর