শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ টা

জঙ্গিসংক্রান্ত পেজ বন্ধ করা ইতিবাচক

নতুন পেজের বিষয়ে সতর্ক পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ততার অভিযোগে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ সংশ্লিষ্ট সাত পেজ বন্ধ করাকে স্বাগত জানিয়েছে উগ্রবাদ দমনে কাজ করা পুলিশের এন্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ)। সংস্থাটির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা বলছেন, এখন জঙ্গিরা হয়তো নতুন করে পেজ বা আইডি খুলে প্রচারণা চালাবে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ৪ হাজারের বেশি ব্যক্তি এবং দলকে বিপজ্জনক হিসেবে চিহ্নিত করে নিষিদ্ধ করেছে। এই তালিকায় বাংলাদেশ সংশ্লিষ্ট সাতটি নাম রয়েছে। ফেসবুক দীর্ঘদিন ধরে এ তালিকা তৈরি করলেও কখনো তা প্রকাশ্যে আনেনি।

দ্য ইন্টারসেপ্ট নামে একটি সংবাদ সংস্থা একটি তালিকা প্রকাশ করে বলেছে, এটিই  ফেসবুকের তৈরি করা কালো তালিকা। বাংলাদেশের সাতটি পেইজ বন্ধ করা প্রসঙ্গে এটিইউর অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মনিরুজ্জামান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে জঙ্গিবাদ সম্পর্কিত প্রচারণা। এসব পেইজ থেকে প্রচারণা চালানো হতো। এসব পেইজ নিষিদ্ধ করায় এখন আর তারা সেরকম প্রচারণা চালাতে পারবে না। তাই বিষয়টি ইতিবাচক। আবার কিছু নেতিবাচক দিকও আছে। এসব পেইজে জঙ্গিবাদ সংক্রান্ত প্রচারণা চালাতো বলে আমরা জঙ্গিবাদে সম্পৃক্তদের শনাক্ত করতে পারতাম। এখন সেটি কিছুটা কঠিন হবে। তারা নতুন নামে নতুন করে পেইজ খুলে প্রচারণা চালাবে। তারা অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ডাইভার্ট হতে পারে। আমাদের এখন সেগুলো শনাক্তের জন্য সতর্ক থাকতে হবে।’ দীর্ঘদিন থেকে উগ্রবাদ দমনে কাজ করা এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমি নিজেও ফেসবুকের আঞ্চলিক প্রধানের সঙ্গে মিটিং করেছি। আমরা তাদের তালিকা দিয়ে বলেছি এই পেইজগুলো বন্ধ করা হোক এবং পর্যবেক্ষণ করা হোক।’ বাংলাদেশ ও উগ্রবাদ সংক্রান্ত যে ৭টি পেইজ ফেসবুক কর্তৃপক্ষ তালিকাভুক্ত করেছে সেগুলো হচ্ছে, আল মুরসালাত মিডিয়া; যা ইসলামিক স্টেটের মিডিয়া উইং এবং এর কর্মপরিধি বাংলাদেশ, ভারত ও দক্ষিণ এশিয়া। আনসারুল্লাহ বাংলা তালিকাভুক্ত রয়েছে আল-কায়েদা কেন্দ্রীয় কমান্ডের অঙ্গসংগঠন হিসেবে। একই শীর্ষ সংগঠনের অধীনে রয়েছে হরকত-উল জিহাদ-ই-ইসলামী ও জামাতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ। ইসলামিক স্টেট বা আইএসের আদর্শ নিয়ে বাংলাদেশে কাজ করছে ইসলামিক স্টেট বাংলাদেশ। মিডিয়া উইংয়ের অংশ হিসেবে ইসলামিক স্টেটের অধীনে আল মুরসালাত মিডিয়া ছাড়াও রয়েছে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানে বিস্তৃত সাহাম আল হিন্দ মিডিয়া। এর বাইরে তরিকুল ইসলাম নামে আরও একটি নাম রয়েছে যার সংশ্লিষ্টতা জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের সঙ্গে। বাংলাদেশ সংশ্লিষ্ট সাতটি নামই উগ্রবাদ সংক্রান্ত।

সর্বশেষ খবর