শিরোনাম
প্রকাশ : ২৯ জানুয়ারি, ২০২০ ০৮:৩২
প্রিন্ট করুন printer

‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ মানবে না ফিলিস্তিন, বিশ্বের জন্য 'দুঃস্বপ্ন' আখ্যা ইরানের

অনলাইন ডেস্ক

‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ মানবে না ফিলিস্তিন, বিশ্বের জন্য 'দুঃস্বপ্ন' আখ্যা ইরানের
মাহমুদ আব্বাস

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেছেন, আমেরিকার উপস্থাপিত কথিত শান্তি চুক্তি ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ মধ্যপ্রাচ্যসহ গোটা বিশ্বের জন্য একটি দুঃস্বপ্ন। তিনি মঙ্গলবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষ থেকে ওই একতরফা আপোষ চুক্তি উপস্থাপনের পর এক টুইটার বার্তায় ওই মন্তব্য করেন।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার বার্তায় কথিত এই ‘শতাব্দির সেরা চুক্তি’কে একটি ব্যর্থ লেনদেন থেকে উৎসারিত ‘কল্পনাপ্রসূত প্রকল্প’ হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, এই পরিকল্পনা উত্থাপনের ফলে বিশ্বের সকল মুসলমান উদাসীনতার ঘুম থেকে জেগে উঠবে এবং একথা উপলব্ধি করবে যে, আমেরিকা ও ইহুদিবাদী ইসরাইল মিলে এতদিন তাদেরকে বিভ্রান্ত করে এসেছে।  

ফিলিস্তিনিদের প্রবল বিরোধিতা উপেক্ষা করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শেষ পর্যন্ত ইহুদিবাদী পরিকল্পনা ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ উপস্থাপন করেছেন। তিনি মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে পাশে নিয়ে তার একপেশে এই আপোষ প্রক্রিয়া উপস্থাপন করেন।

ফিলিস্তিনের স্বশাসন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, আমি হাজার বার বলেছি, এ পরিকল্পনা মানি না, মানি না, মানি না।

‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ উপস্থাপনের পর ডোনাল্ড ট্রাম্প মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে কথা বলার জন্য তাকে টেলিফোন করলেও তিনি ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি। তিনি বলেছেন, যে পরিকল্পনায় জেরুজালেম আল-কুদসকে রাজধানী করে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের কথা না থাকছে সে পরিকল্পনা তিনি মেনে নেবেন না।

মার্কিন-ইহুদিবাদী এই পরিকল্পনায় ঐতিহাসিক জেরুজালেম আল-কুদস শহরকে ইসরাইলি ভূখণ্ডের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেইসঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত ফিলিস্তিনি শরণার্থীদেরকে তাদের মাতৃভূমিতে ফিরে যাওয়ার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এ ছাড়া, জর্দান নদীর পশ্চিম তীরের অবশিষ্ট অংশ ও গাজা উপত্যকা নিয়ে একটি দুর্বল ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের কথা বলা হয়েছে।

এমন সময় ফিলিস্তিনি জনগণকে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে একটি ইহুদিবাদী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য এ পরিকল্পনা উপস্থাপন করা হয়েছে যখন জেরুজালেম আল-কুদস’সহ গোটা অধিকৃত ভূখণ্ডের মালিক ফিলিস্তিনি জনগণ। ইহুদিবাদীরা ফিলিস্তিনিদের ভূমি জবরদখল করে ইসরাইল নামক অবৈধ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছে।

অবশ্য ফিলিস্তিনি জনগণের ন্যায়সঙ্গত অধিকার উপেক্ষা করে তৈরি করা এই পরিকল্পনার প্রতি সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনসহ আরো কিছু আরব দেশ সমর্থন জানিয়েছে। 

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:২৮
প্রিন্ট করুন printer

ট্রাম্পের অভিশংসন: সিনেটে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগপত্র দাখিল

অনলাইন ডেস্ক

ট্রাম্পের অভিশংসন: সিনেটে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগপত্র দাখিল
ডোনাল্ড ট্রাম্প

আমেরিকার সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দ্বিতীয় অভিশংসন বিচার শুরুর জন্য সিনেটে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেছে প্রতিনিধি পরিষদ।

স্থানীয় সময় সোমবার সিনেটে এই অভিযোগ উপস্থাপন করা হয়েছে। খবর আল-জাজিরা’র।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি মাসের শুরুতে ক্যাপিটলে ট্রাম্প সমর্থকদের হামলার আগে এক বক্তব্যে তাদের উসকানি দিয়েছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট।

জো বাইডেনের বিজয়কে বৈধতা দিতে গত ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল ভবনে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশন চলাকালে ট্রাম্পের সমর্থকদের নজিরবিহীন হামলায় এক পুলিশ সদস্যসহ পাঁচজন নিহত হন।

প্রতিনিধি পরিষদের নয়জন ডেমোক্র্যাট সদস্য হাউসের সচিব ও ভারপ্রাপ্ত সার্জেন্ট অ্যাট আর্মসকে সঙ্গে নিয়ে ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারের জন্য আনুষ্ঠানিক অভিযোগ কংগ্রেসের কাছে হস্তান্তর করেন।

এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি ট্রাম্পকে অভিশংসিত করে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদ। ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টির ১০ জন সদস্যও ডেমোক্রেটিক পার্টির আনা ওই অভিশংসন প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয়। মোট ৪৩৫ সদস্যের প্রতিনিধি পরিষদে প্রস্তাবটি ২৩২-১৯৭ ভোটে পাস হয়।

এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দ্বিতীয়বারের মতো অভিশংসিত হন ট্রাম্প। ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে এর আগে ২০১৯ সালে একবার প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসিত হয়েছিলেন ট্রাম্প। তবে সে দফায় রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ সিনেটে ভোটাভুটিতে বেঁচে যান তিনি। 

সিনেটের অভিশংসন বিচারে ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করতে দুই-তৃতীয়াংশ সদস্যের সমর্থন প্রয়োজন পড়বে। সব সদস্য উপস্থিত থাকলে ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করতে তার দলেরও কমপক্ষে ১৭ জন সদস্যের ভোট প্রয়োজন হবে যা সহজ হবে না বলে মনে করা হচ্ছে।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:২০
আপডেট : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:২৩
প্রিন্ট করুন printer

সেনাবাহিনীতে যোগদানে তৃতীয় লিঙ্গের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল বাইডেন প্রশাসন

অনলাইন ডেস্ক

সেনাবাহিনীতে যোগদানে তৃতীয় লিঙ্গের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল বাইডেন প্রশাসন

মার্কিন সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে তৃতীয় লিঙ্গের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা ছিল তা তুলে নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ২০১৭ সালে ক্ষমতার আসার পরই সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলেন।

সোমবার এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউজ জানায়, লিঙ্গ পরিচয়ের ভিত্তিতে কেউ সুবিধা বঞ্চিত হবে বা কাজের সুযোগ হারাবে এমন ব্যবস্থা থাকবে না।

জো বাইডেন বলেন, কোনওভাবেই লিঙ্গ পরিচয় সামরিক সেবার ক্ষেত্রে বাধা হওয়া উচিত নয়।

এ বিষয়ে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ও সাবেক সেনা প্রধান লয়েড অস্টিন জানান, তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের অন্তর্ভুক্তির জন্য যথাযথ নীতি গ্রহণ করবে সেনাবাহিনী এবং এই কার্যক্রম দ্রুততার সাথে করা হবে। তথ্য বলছে, ২০১৯ সাল পর্যন্ত মার্কিন সামরিক বাহিনীতে তৃতীয় লিঙ্গের সদস্য সংখ্যা ছিল প্রায় ৯ হাজার।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১০:৪৬
আপডেট : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১০:৪৯
প্রিন্ট করুন printer

পদত্যাগ করছেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

পদত্যাগ করছেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী

ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিসেপে কন্তে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। সোমবার এক বিবৃতিতে কন্তে জানিয়েছেন, তিনি মঙ্গলবার পদত্যাগ করবেন।

মঙ্গলবার সকাল ৯টায় মন্ত্রিসভার বৈঠক ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী কন্তে। তার কার্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, তিনি ওই বৈঠকে তার নিজের ইচ্ছার কথা মন্ত্রীদের কাছে ব্যক্ত করবেন। এরপরেই হয়তো তিনি প্রেসিডেন্ট সার্জিও মাত্তারেলার কার্যালয়ে পদত্যাগপত্র জমা দিতে যাবেন।

করোনা মহামারির কারণে দেশজুড়ে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তার বিরুদ্ধে লড়াই করতে কন্তে হয়তো নতুন সরকার গঠনের পরামর্শ চাইতে পারেন। 

মহামারী করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপে হতাশ হয়ে গত ১৩ জানুয়ারি সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাত্তিও রেনজি তার ইটালিয়া ভিভা পার্টিকে প্রত্যাহারের পর থেকেই ক্ষমতাসীন জোট ভেঙে পড়েছে। গত সপ্তাহে পার্লামেন্টের আস্থা ভোটে কোনমতে টিকে গেছেন কন্তে। কিন্তু সিনেটের উচ্চ কক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। ফলে তার সরকার বেশ দুর্বল হয়ে পড়েছে।

এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে পদত্যাগ করেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী মাত্তিও রেনজি। সংবিধান সংস্কারের পরিকল্পনা করেছিলেন রেনজি। ওই পরিকল্পনার ওপর গণভোটে শোচনীয় পরাজয় দেখে আকস্মিক পদত্যাগ করেন তিনি। মাত্র মাত্র আড়াই বছর ক্ষমতায় থাকার পর দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নেন রেনজি।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১০:৪১
প্রিন্ট করুন printer

ইরানের আমন্ত্রণে তেহরান সফরে তালেবান প্রতিনিধিদল

অনলাইন ডেস্ক

ইরানের আমন্ত্রণে তেহরান সফরে তালেবান প্রতিনিধিদল
মোল্লা আব্দুলগনি বারাদার তালেবান প্রতিনিধিদলটির নেতৃত্বে রয়েছেন

আফগানিস্তানের তালেবানের একটি রাজনৈতিক প্রতিনিধিদল তেহরান সফরে এসেছে বলে খবর দিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদে। মোল্লা আব্দুলগনি বারাদার প্রতিনিধিদলটির নেতৃত্বে রয়েছেন।

খাতিবজাদে জানান, ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে এবং আগে থেকে সমন্বয়ের মাধ্যমে এ সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

তালেবান প্রতিনিধিদলটি মঙ্গলবার সকালে তেহরানে পৌঁছেছে জানিয়ে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, বিমানবন্দরে তার মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা প্রতিনিধিদলটিকে স্বাগত জানিয়েছেন।

খাতিবজাদে বলেন, তালেবান প্রতিনিধিদলটি এ সফরে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ ও আফগানিস্তান বিষয়ক ইরানের বিশেষ প্রতিনিধি মোহাম্মাদ ইব্রাহিম তাহেরিয়ানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবে। এসব সাক্ষাতে আফগানিস্তানের চলমান শান্তি প্রক্রিয়াসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা হবে।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১০:১৫
প্রিন্ট করুন printer

ইরান-আমেরিকা সম্পর্ক উন্নয়নে ‘নতুন সুযোগ’ সৃষ্টি হয়েছে: মার্কিন জেনারেল

অনলাইন ডেস্ক

ইরান-আমেরিকা সম্পর্ক উন্নয়নে ‘নতুন সুযোগ’ সৃষ্টি হয়েছে: মার্কিন জেনারেল
কেনেথ ফ্রাঙ্ক ম্যাকেনজি

মধ্যপ্রাচ্যে মোতায়েন সন্ত্রাসী মার্কিন বাহিনী- সেন্টকমের কমান্ডার জেনারেল কেনেথ ফ্রাঙ্ক ম্যাকেনজি দাবি করেছেন, জো বাইডেন আমেরিকার প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণ করার পর ইরান ও আমেরিকার সম্পর্ক উন্নয়নে ‘নতুন সুযোগ’ সৃষ্টি হয়েছে।

বিগত বছরগুলোতে ইরানের সঙ্গে তীব্র উত্তেজনা প্রসঙ্গে তিনি আরও দাবি করেন, “আমরা একটি যুদ্ধ প্রতিহত করতে চেয়েছিলাম।”

প্রেসিডেন্ট হিসেবে বাইডেন দায়িত্ব গ্রহণ করার পর প্রথমবারের মতো মধ্যপ্রাচ্য সফরের আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন। 

জেনারেল ম্যাকেনজি আরও দাবি করেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বাইডেনের বিজয়ের আগের ও পরের মাসগুলোতে ইরানের পক্ষ থেকে ‘কঠোর হুমকি সৃষ্টিকারী তৎপরতা’ লক্ষ্য করা গেছে।

তিনি আরও বলেন, কোনও কোনও সামরিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষকের ভবিষ্যদ্বাণী ভুল প্রমাণ করে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শাসনামলের শেষ দিনগুলোতে ইরান মধ্যপ্রাচ্যে আমেরিকার কোনো লক্ষ্যবস্তুতে হামলা করেনি। উল্টো ইরাকসহ মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য দেশে নিজের অনুসারী বাহিনীগুলোকে নিয়ন্ত্রণে রেখেছে তেহরান।

নয়া মার্কিন প্রশাসন তার নীতিতে পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছে জানিয়ে সেন্টকমের কমান্ডার আরও দাবি করেন, “আমার মনে হয় ইরানের কোনো কোনো মহল নয়া মার্কিন প্রশাসনের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করে ওয়াশিংটনের নীতিতে পরিবর্তন আসে কিনা তা দেখতে চায়।”

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালের মে মাসে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। এর ফলে দু’দেশের সম্পর্কে তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয় এবং মার্কিন সন্ত্রাসী সেনারা ২০২০ সালের ৩ জানুয়ারি ইরানের শীর্ষস্থানীয় জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করলে সে উত্তেজনা চরমে পৌঁছে যায়।

তবে নয়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন নির্বাচনি প্রচারণায় ইরানের পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু তেহরান স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছে, ইরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার আগে আমেরিকার পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসার বিষয়টিকে স্বীকৃতি দেওয়া হবে না।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এই বিভাগের আরও খবর