শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১১:০৩

এক নজরে চিকিৎসা পর্যটনে ভারতের সেরা হাসপাতালগুলো

অনলাইন ডেস্ক

এক নজরে চিকিৎসা পর্যটনে ভারতের সেরা হাসপাতালগুলো
প্রতীকী ছবি

করোনার কারণে কার্যত বন্ধ ভারতের চিকিৎসা পর্যটন। সবচেয়ে বেশি সমস্যায় কলকাতা এবং চেন্নাইয়ের হাসপাতালগুলো।

ভারতে মেডিকেল ভিসা
প্রতি বছর কয়েক লাখ বাংলাদেশি শুধুমাত্র চিকিৎসার জন্য ভারতে যান। ২০১৯ সালে শুধুমাত্র মেডিকেল ভিসায় বাংলাদেশ থেকে ভারতে গিয়েছিলেন ২ লাখ ২৫ হাজার ৬৬৮ জন বাংলাদেশের মানুষ। করোনাকালে সেই সংখ্যা কার্যত শূন্যে নেমে গেছে।

কলকাতায় ভিড় নেই
বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রোগী কলকাতায় চিকিৎসা করাতে যান। এছাড়াও সেখানে আসেন বিপুল পরিমাণ আফগান রোগী। যে কারণে চিকিৎসা পর্যটনে কলকাতা ভারতের মধ্যে অন্যতম। দক্ষিণ ভারতেও বহু রোগী চিকিৎসা করাতে যান। তবে করোনাকালে কলকাতা, চেন্নাইয়ে কার্যত কোনও বিদেশি রোগী নেই।

চিকিৎসা পর্যটনের তালিকা
ভারতে বেশ কিছু সংস্থা চিকিৎসা পর্যটনের ব্যবস্থা করে। বিভিন্ন হাসপাতাল চেইনের সঙ্গে তাদের টাই আপ করা থাকে। তারই ভিত্তিতে বিদেশি রোগীদের কোন হাসপাতালে যাওয়া উচিত, তার পরামর্শ দেয় তারা।

এক নম্বরে অ্যাপোলো
কলকাতায় সবচেয়ে বেশি বিদেশি রোগী, বিশেষ করে বাংলাদেশের রোগী যান অ্যাপোলো হাসপাতালে। মাসে প্রায় ছয় হাজার রোগী গড়ে ওই হাসপাতালে চিকিৎসা করান।

এএমআরআই  হাসপাতাল
অ্যাপোলোর পরেই রয়েছে এএমআরআই  হাসপাতাল। সাধারণত এই হাসপাতালেও মাসে গড়ে পাঁচ হাজার বাংলাদেশের রোগী চিকিৎসা করাতে যান। এএমআরআই হাসপাতালের একাধিক ব্রাঞ্চ আছে। সল্টলেকের ব্রাঞ্চে বিদেশি রোগীর সংখ্যা বেশি। তবে এই বর্তমানে কার্যত কোনও বিদেশি রোগী নেই এই হাসপাতালগুলোতে।

রবীন্দ্রনাথ টেগোর হাসপাতাল
হার্টের চিকিৎসার জন্য বহু রোগী বিশিষ্ট চিকিৎসক দেবী শেঠির তৈরি রবীন্দ্রনাথ টেগোর হাসপাতালে যান। এছাড়াও ফোর্টিস, মেডিকা, রুবি জেনারেল হাসপাতালেও বহু বিদেশি চিকিৎসা করাতে যান।

দ্বিতীয় সারির হাসপাতাল
অ্যাপোলো বা এএমআরআই  হাসপাতালে চিকিৎসার খরচ যারা সামলাতে পারেন না, তাদের জন্য রয়েছে দ্বিতীয় সারির হাসপাতাল। ভিআইপি রোড এবং বাইপাসের ধারে এমন আরও অসংখ্য হাসপাতাল রয়েছে। রয়েছে চোখের হাসপাতালও। অপেক্ষাকৃত কম খরচে এই হাসপাতালগুলোতে বহু মধ্যবিত্ত বিদেশি চিকিৎসা করাতে যান।

ক্যান্সার চিকিৎসা
ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য অবশ্য সবচেয়ে বেশি বিদেশি মুম্বাইয়ে যান, টাটার ক্যান্সার হাসপাতালে। তবে কলকাতাতেও টাটা ক্যান্সার হাসপাতাল তৈরি করেছে। এখন সেখানেও বহু বিদেশি চিকিৎসা করাতে যাচ্ছেন।

ভেলোর এখনও প্রথম
যাদের হাতে অর্থ বেশি, তারা এখনও দক্ষিণ ভারতের ভেলোরে গিয়ে চিকিৎসা করাতে পছন্দ করেন। দক্ষিণ ভারতের ভেলোর অত্যন্ত নামকরা চিকিৎসা কেন্দ্র। বহু মানুষ মাসের পর মাস থেকে সেখানে চিকিৎসা করান। বিশেষ করে ক্রনিক অসুখের চিকিৎসায় ভেলোর এক নম্বরে।

দক্ষিণের অ্যাপোলো, মিঅট
দক্ষিণ ভারতেও অ্যাপোলো হাসপাতালের চেইন রয়েছে। চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতালে বহু বিদেশি চিকিৎসার জন্য যান। দিল্লির অ্যাপলো হাসপাতালেও প্রচুর বিদেশি রোগী চিকিৎসা করাতে যান। এছাড়াও দক্ষিণ ভারতে রয়েছে মিঅট হাসপাতাল চেইন।

নেত্রালয়ে চোখ
চোখের চিকিৎসার জন্য কয়েক দশক ধরে এক নম্বর দক্ষিণ ভারতের নেত্রালয়। তবে গত কয়েক বছরে কলকাতাতেও বেশ কিছু ভালো চোখের হাসপাতাল তৈরি হয়েছে। দিশা, প্রিয়ম্বদা বিড়লা এর মধ্যে অন্যতম। নেত্রালয়ের ব্রাঞ্চ তৈরি হয়েছে কলকাতায়।

সরকারি হাসপাতাল
বিদেশি রোগীরা ভারতের সরকারি হাসপাতালে খুব বেশি যান না। তবে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট ফর মেডিকেল সায়েন্সে (এইমস) কিছু কিছু বিদেশি রোগী দেখা যায়। অন্য হাসপাতাল থেকে রেফার করলে তবেই তারা এইমসে যান।

সরকারি হাসপাতাল চিকিৎসা পর্যটনে নেই
চিকিৎসা পর্যটনের সঙ্গে বিশাল অংকের ব্যবসা জড়িত। ফলে বিদেশি রোগীদের ভারতের সরকারি হাসপাতালে পাঠানো হয় না। বস্তুত, ভারতের সরকারি হাসপাতালগুলোতে বেড পাওয়াও খুব কঠিন। তবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের বক্তব্য, এখনও দেশটির সরকারি হাসপাতালগুলো যেকোনও বেসরকারি হাসপাতালের চেয়ে অনেক এগিয়ে। সূত্র: ডয়েচে ভেলে

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর