শিরোনাম
প্রকাশ : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:৫২
আপডেট : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১১:১০
প্রিন্ট করুন printer

দালাই লামার উত্তরসূরি নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের লড়াই

অনলাইন ডেস্ক

দালাই লামার উত্তরসূরি নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের লড়াই

চতুর্দশ দালাই লামার উত্তরাধিকার নিয়ে জল ঘোলা হতে শুরু করেছে। বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে এক ধরনের বিবাদমুখর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে। এ পরিস্থিতির সূচনা গত ডিসেম্বরে  যুক্তরাষ্ট্রে তিবেতান পলিসি অ্যান্ড সাপোর্ট অ্যাক্ট ২০২০ (টিপিসিএ) আইন পাস হওয়ার পর থেকে। ওই আইন পাস হয়েছে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের যৌথ উদ্যোগে। তিব্বতি মালভূমি অঞ্চলের প্রতিবেশগত সুরক্ষা থেকে শুরু করে সেখানকার মানবাধিকার এমনকি দালাই লামার উত্তরাধিকার নির্বাচন পর্যন্ত অনেক কিছুই আইনের বিষয়বস্তুতে উঠে এসেছে।

সম্প্রতি The United States and China Are Fighting Over the Dalai Lama’s Reincarnation Plans শিরোনামে এ নিয়ে বিশ্লেষণধর্মী খবর প্রকাশ করেছে ফরেইন পলিসি।

দালাই লামার উত্তরাধিকার নির্বাচন নিয়ে এতে বলা রয়েছে, বিষয়টি পুরোপুরি তিব্বতের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু ও সেখানকার বাসিন্দাদের ইচ্ছার ওপর ছেড়ে দেয়া উচিত। যদি চীনা কর্মকর্তারা এতে হস্তক্ষেপ করে, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে অবরোধ-নিষেধাজ্ঞার মতো পদক্ষেপ নিতে পারবে ওয়াশিংটন। বিষয়টি ক্ষিপ্ত করে তুলেছে বেইজিংকে। জাতীয়তাবাদী চীন কখনই সাবেক কিং সাম্রাজ্যের অধীন অঞ্চলটির ওপর থেকে দাবি ছাড়েনি। একই সঙ্গে সেখানকার ধর্মগুরু নির্বাচনের অধিকারও

শুধু বেইজিংয়ের বলে দাবি চীন সরকারের। এ বিষয়ে চীনের ভাষ্য হলো, কিং সম্রাটদের স্বীকৃতির ভিত্তিতেই তিব্বতের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু নির্বাচিত হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়ার আগে চীন সরকারের অনুমতি নিতে হবে। 

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত ডিসেম্বরে বিলটিতে সই করার পর থেকেই এ নিয়ে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে কূটনৈতিক পরিস্থিতি ক্রমেই ঘোলা হয়ে উঠেছে। ট্রাম্প এতে সই করার পর পরই চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান একটি বিবৃতি প্রকাশ করেন। তাতে অভিযোগ তোলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র চীনের ‘অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাচ্ছে’।

এদিকে ট্রাম্পের ওই আইনের পর ভারতীয় গণমাধ্যম এ নিয়ে উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠে। বিষয়টিতে আরও বেশি করে অনিরাপত্তা অনুভব করতে থাকে চীন। এ নিয়েও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় বেইজিং।

যদিও চতুর্দশ দালাই লামা বলছেন, বয়স ৯০ হওয়ার পরেই তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন, তার উত্তরসূরি হিসেবে কাউকে নির্বাচিত করা হবে কিনা।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর