শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ জুন, ২০২১ ১৬:০৮
আপডেট : ২৫ জুন, ২০২১ ১৬:২৮
প্রিন্ট করুন printer

কাশ্মীরকে ‌‘উপযুক্ত সময়ে’ ফের রাজ্য করার প্রতিশ্রুতি মোদির

অনলাইন ডেস্ক

কাশ্মীরকে ‌‘উপযুক্ত সময়ে’ ফের রাজ্য করার প্রতিশ্রুতি মোদির
কাশ্মীরের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে নরেন্দ্র মোদি
Google News

জম্মু ও কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে আবার রাজ্য করা হবে বলে জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার কাশ্মীরের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে এ কথা জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার দীর্ঘদিন পর কাশ্মীরের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। 

৩৭০ ধারা বিলোপের পর জম্মু ও কাশ্মীরকে একটি রাজ্য থেকে দুইটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করার পর এই প্রথম বৈঠক। তাতে যোগ দেন আটটি দলের ১৪ জন নেতা। বৈঠকে ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং লেফটন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহাও।

সেই বৈঠকেই মোদি বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে আবার রাজ্য করা হবে। তবে সেটা করা হবে উপযুক্ত সময়ে। সেই উপযুক্ত সময়ের কোনো ব্যাখ্যা দেননি তিনি।

মোদি জানান, কাশ্মীরের সঙ্গে দিল বা মনের দূরত্ব এবং দিল্লির দূরত্ব ঘোচাতে হবে। তিনি কাশ্মীরে নির্বাচনের কথা বলেন। তার জন্য ডিলিমিটেশন বা নির্বাচনকেন্দ্রের সীমানার পুনর্বিন্যাসের কথাও বলেন। তার পরেই নির্বাচিত সরকার হবে।

বৈঠকে অমিত শাহ বলেন, তিনি সংসদেই জানিয়েছিলেন, জম্মু ও কাশ্মীরকে রাজ্যের মর্যাদা দেয়া হবে। তার জন্য ডিলিমিটেশন দরকার, শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হওয়া দরকার।

সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লাহ বলেছেন, ডিলিমিটেশন কেন শুধু কাশ্মীরেই হবে? তিনি জানিয়েছেন, অনেক নেতাই বলেছেন, জম্মু ও কাশ্মীরকে পূর্ণ রাজ্যের মর্যাদা দিতে হবে। দিল্লির মতো কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করে রেখে বিধানসভা নির্বাচন করালে হবে না। আর প্রশাসনে কাশ্মীর ক্যাডার আবার ফিরিয়ে আনতে হবে।

ওমর আবদুল্লাহ জানিয়েছেন, কোনো দলই কাশ্মীরে ডিলিমিটেশন নিয়ে খুশি নয়। অন্য রাজ্যে ডিলিমিটেশন হবে ২০২৬ সালে। কাশ্মীরে এখনই করার কথা বলা হচ্ছে। প্রায় সব রাজনৈতিক দলই জানিয়ে দিয়েছে, কাশ্মীরে এখন ডিলিমিটেশন দরকার নেই। আগে কেন্দ্রীয় সরকার ও কাশ্মীরের মধ্যে আস্থা ফেরানো দরকার।

কাশ্মীরের নেতাদের দাবি মেনে বৈঠকে ঠিক হয়েছে, রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দেয়ার দাবি খতিয়ে দেখতে একটা কমিটি করবেন লেফটন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা। কমিটি বন্দিদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

সূত্র: ডয়েচে ভেলে ও এনডিটিভি।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন

এই বিভাগের আরও খবর