২১ অক্টোবর, ২০২২ ১১:৪১

লিজ ট্রাসের পদত্যাগ, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী পদের লড়াইয়ে আসছেন আরেক নারী?

অনলাইন ডেস্ক

লিজ ট্রাসের পদত্যাগ, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী পদের লড়াইয়ে আসছেন আরেক নারী?

পেনি মরড্যান্ট

মাত্র ৪৫ দিন দায়িত্ব পালনের পরই পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন ব্রিটেনের ‘আয়রন লেডি খ্যাত মার্গারেট থ্যাচার-খ্যাত’ প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস। 

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ৩২ মিনিটে তিনি দশ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটের কার্যালয়ের সামনে দাঁড়িয়ে নিজের পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে আরেক নারী

পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর দৌড়ে ভারতীয় বংশোদ্ভূত ঋষি সুনাকের পরই উঠে আসছে কনজারভেটিভ পার্টির নেত্রী পেনি মরড্যান্টের নাম। প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের চতুর্থ এবং পঞ্চম রাউন্ডে সাংসদদের ভোট অনুযায়ী সুনাকের পরই ছিলেন তিনি। দলেও তার জনপ্রিয়তা রয়েছে। 

যদিও লিজ ট্রাসের পদত্যাগের আগে থেকেই ঋষি সুনাককে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী পদের দৌঁড়ে ফেভারিট হিসেবে উল্লেখ করেছে বিভিন্ন পশ্চিমা সংবাদমাধ্যম।

তবে ব্রিটেনের ‘দ্য নিউজ’ সংবাদমাধ্যমের দাবি, “বর্তমানে ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌঁড়ে ফেভারিটদের মধ্য এগিয়ে রয়েছেন পেনি মরড্যান্ট।”

কে এই পেনি মরড্যান্ট?

পেনি মরড্যান্ট ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির একজন নেতা। তিনি ২০১০ সাল থেকে পোর্টসমাউথ নর্থের সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

পেনি যুক্তরাজ্যের ডেভনের টরকুয়েতে ১৯৭৩ সালের ৪ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। কিন্তু তিনি পোর্টসমাউথে বড় হয়েছেন এবং ওকল্যান্ডস কমপ্রিহেনসিভ স্কুলে ও ওয়াটারলুভিলে ষষ্ঠ ফর্মে পড়াশোনা করেছেন।

বিভিন্ন বেসরকারি, সরকারি এবং দাতব্য সংস্থার যোগাযোগ বিভাগে কাজ করার আগে তিনি রিডিং ইউনিভার্সিটিতে দর্শন বিষয়ে অধ্যয়ন করেন।

বর্তমান সরকারে পেনি মরড্যান্টের ভূমিকা কী?

বিভিন্ন সংস্থায় যোগাযোগের বিভাগে কাজ করার পরই তিনি কনজারভেটিভ পার্টির রাজনীতিবিদ হিসেবে সফল কর্মজীবনের সূচনা করেন।

তিনি প্রথম প্রচেষ্টায় ২০০৫ সালে পোর্টসমাউথ নর্থে নির্বাচন করে হেরে গিয়েছিলেন। এরপর ২০১০, ২০১৫, ২০১৭ এবং ২০১৯ সালে নির্বাচনে জয়ী হন।

২০১৪ সালে তিনি স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর দায়িত্ব পান এবং পরের বছর সশস্ত্র বাহিনীর মন্ত্রী করা হয়।

পেনিই ছিলেন প্রথম মহিলা যিনি এই পদে অধিষ্ঠিত হন এবং ২০১৬ সালে তিনি প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, স্বাস্থ্য এবং শ্রম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হন।

২০১৭ সালে তিনি আবার পদোন্নতি পেয়েছিলেন। এসময় তিনি আন্তর্জাতিক উন্নয়নের সেক্রেটারি অব স্টেট হিসেবে মন্ত্রিসভায় প্রথমবারের মতো প্রবেশ করেন। এর ফলে তিনিই প্রথম মহিলা প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হয়েছিলেন ব্রিটেনের সংসদে।

পেনি মরড্যান্ট ২০২০ সালে ফের সরকারে ফিরে আসেন এবং পে-মাস্টার জেনারেলের ভূমিকায় নিযুক্ত হন। এরপর ২০২১ সালে তিনি আন্তর্জাতিক বাণিজ্যনীতির মন্ত্রী নিযুক্ত হন।

তিনি বর্তমানে হাউস অব কমন্সের নেত্রী এবং কাউন্সিলের লর্ড সভাপতি। পেনি মরড্যান্ট সেপ্টেম্বরে এই দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সূত্র: দ্য নিউজ, রয়টার্স

বিডি প্রতিদিন/কালাম

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর