৩ জানুয়ারি, ২০২৩ ২২:২১

ইসরায়েলি উগ্রপন্থী মন্ত্রীর আল-আকসায় প্রবেশ, উত্তেজনা বৃদ্ধির আশঙ্কা

অনলাইন ডেস্ক

ইসরায়েলি উগ্রপন্থী মন্ত্রীর আল-আকসায় প্রবেশ, উত্তেজনা বৃদ্ধির আশঙ্কা

ইসরায়েলের উগ্রপন্থী মন্ত্রী ইতামার-বেন-গিভির পবিত্র আল-আকসা মসজিদের চত্বরে প্রবেশ করেন

ইসরায়েলের উগ্রপন্থী জাতীয় নিরাপত্তামন্ত্রী ইতামার-বেন-গিভির পবিত্র আল-আকসা মসজিদের চত্বরে প্রবেশ করেছেন। হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও ব্যাপক নিরাপত্তা নিয়ে ইতামার-বেন-গিভির মঙ্গলবার সকালে আল-আকসা চত্বরে আসেন।

তার এ সফরকে উসকানিমূলক অভিহিত করে ফিলিস্তিন হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, উসকানির ফলাফল খারাপ হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রসহ যেসব দেশ ফিলিস্তিনি শান্তি প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত, তারা এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে।

ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস সতর্ক করে বলে, ইতামার-বেন-গিভির আল-আকসায় প্রবেশ ‘সীমা লঙ্ঘন’ হিসেবে বিবেচিত হবে। তবে বেন-গিভিরের মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বলেন, হামাসের হুমকির কাছে আমাদের সরকার মাথা নত করবে না।

ইসরায়েলের বর্তমান বিরোধী দলীয় নেতা এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইয়ার লাপিদ স্বয়ং সতর্ক করেন, বেন-গিভিরের কর্মকাণ্ড উত্তেজনা বৃদ্ধি করবে।

পবিত্র নগরী মক্কা ও মদিনার পর আল-আকসা মসজিদকে ইসলামের তৃতীয় সর্বোচ্চ পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচনা করা হয়। চুক্তি অনুযায়ী, আল-আকসায় শুধুমাত্র মুসলিমরা ইবাদত করতে পারবেন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে সেখানে জোর করে ইহুদি ধর্মাবলম্বীদের উপাসনা করার সুযোগ দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে ইসরায়েল।  আল-আকসার পাশে নিজেদের উপাসনালয়ও বানাতে চায় তারা। 

বিভিন্ন গণমাধ্যম জানিয়েছে, ইসরায়েলের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বেনজামিন নেতানিয়াহু ইতামার-বেন-গিভিরকে আটকানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু তার কথা শোনেননি মাত্র ৭ দিন আগে মন্ত্রিত্ব পাওয়া বেন-গিভির।

 ২০০০ সালে ইসরায়েলের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এরিয়েল শ্যারন আল-আকসা মসজিদে প্রবেশ করেছিলেন। তার সেই সফরের জেরে ফিলিস্তিনে দ্বিতীয় ইন্তিফাদা বা বিদ্রোহ দেখা দেয়। বেন-গিভিরের উসকানিমূলক কর্মকাণ্ড আবারও সে ধরনের বিদ্রোহের শঙ্কা তৈরি করেছে। বেন-গিভির মন্ত্রী হওয়ার আগ থেকেই বেশ সমালোচিত। তিনি এর আগেও কয়েকবার আল-আকসায় এসেছিলেন। সূত্র: আল জাজিরা

বিডিপ্রতিদিন/কবিরুল

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর