শিরোনাম
প্রকাশ : ১২ জুন, ২০২১ ০৮:৩৮
আপডেট : ১২ জুন, ২০২১ ১১:১৬
প্রিন্ট করুন printer

মৃত্যুর পর মানুষ যা আশা করবে

জাওয়াদ তাহের

মৃত্যুর পর মানুষ যা আশা করবে
ফাইল ছবি
Google News

আশা আর প্রত্যাশার মধ্যেই মানুষের জীবনচাকা বয়ে চলে। মানুষভেদে আশা-আকাঙ্ক্ষাও ভিন্ন হয়ে থাকে। সবার প্রত্যাশা চাওয়া-পাওয়া এক ও অভিন্ন নয়। দুনিয়ার জীবনে কারো চাওয়া-পাওয়া শেষ হওয়ার নয়। যার সব কিছু পর্যাপ্ত আছে সেও তাঁর সম্পদ দ্বিগুণ করার স্বপ্ন দেখে। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যদি বনি আদমের স্বর্ণভরা একটা উপত্যকা থাকে, তথাপি সে তার জন্য দুটি উপত্যকা হওয়ার কামনা করবে। তার মুখ মাটি ছাড়া অন্য কিছুতেই ভরবে না। তবে যে ব্যক্তি তাওবা করবে, আল্লাহ তার তাওবা কবুল করবেন।’ (বুখারি, হাদিস, ৬৪৩৯)

দুনিয়াতে মানুষ তাঁর আশা অনুযায়ী চেষ্টা সাধনা করে, সে কখনো কখনো লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে। কিন্তু মৃত্যু-পরবর্তী জীবন, যে জীবনে মানুষ অনেক কিছুই আশা করবে, তার কোনোটা বিন্দুমাত্র বাস্তবায়ন করার সুযোগ পাবে না। নিম্নে মানুষ মৃত্যুর পরে কী কী আশা করবে, তা নিয়ে আলোচনা করা হলো—

এক. দ্রুত কাফন-দাফন করার আশা করবে। আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, ‘যখন জানাজা (খাটিয়ায়) রাখা হয় এবং পুরুষ লোকেরা তা তাদের কাঁধে তুলে নেয়, সে পুণ্যবান হলে তখন বলতে থাকে, আমাকে সামনে এগিয়ে দাও। আর পুণ্যবান না হলে সে আপন পরিজনকে বলতে থাকে, হায় আফসোস! এটা নিয়ে তোমরা কোথায় যাচ্ছ? মানুষ ছাড়া সবাই তার চিৎকার শুনতে পায়। মানুষ যদি তা শুনতে পেত তবে অবশ্যই অজ্ঞান হয়ে যেত।’ (বুখারি, হাদিস, ১৩১৬)

দুই. সৎ লোক আশা করবে যাতে দ্রুত কিয়ামত কায়েম হয়ে যায়। যেন সে চিরস্থায়ী ও সম্মানের আসনে আসীন হতে পারে। আর পাপিষ্ঠ কেয়ামত না হওয়ার আকাঙ্ক্ষা করবে।

মুমিন ব্যক্তি বলবে, হে আল্লাহ, তুমি কিয়ামত কায়েম করে ফেলো। হে আল্লাহ, তুমি কিয়ামত কায়েম করে ফেলো। আমি যেন আমার পরিবার-পরিজন ও ধন-সম্পদের কাছে যেতে পারি। কাফির বলবে, হে আমার রব, তুমি কিয়ামত কায়েম কোরো না। ( মুসনাদে আহমাদ, হাদিস : ১৮৫৩৪ )

তিন. পরিবার-পরিজনকে তার অবস্থা জানানোর আকাঙ্ক্ষা করবে। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘কবরে সওয়াল-জওয়াবের পর মুমিন ব্যক্তিকে বলা হবে, তুমি ঘুমিয়ে থাকো। তখন সে বলবে, আমার পরিবার-পরিজনকে সুসংবাদ দেওয়ার জন্য আমি তাদের কাছে ফিরে যেতে চাই। তারা উভয়ে (মুনকার-নাকির) বলবেন, বাসরঘরের বরের মতো তুমি এখানে এমন গভীর ঘুম দাও, যাকে তার পরিবারের সবচেয়ে প্রিয়জন ছাড়া আর কোনো ব্যক্তি জাগিয়ে তুলতে পারে না।’ ( তিরমিজি, হাদিস : ১০৭১ )

চার. আল্লাহর রাস্তায় শাহাদাতবরণকারী আশা করবে তাঁকে পুনরায় দুনিয়াতে পাঠানো হোক, যাতে সে আবার আল্লাহর রাস্তায় শাহাদাতবরণ করতে পারে। আনাস ইবনে মালেক (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘জান্নাতে প্রবেশের পর আর কেউ দুনিয়ায় ফিরে আসার আকাঙ্ক্ষা করবে না, যদিও দুনিয়ার সব জিনিস তাঁকে দেওয়া হয়। একমাত্র শহীদ ছাড়া, সে দুনিয়ায় ফিরে আসার আকাঙ্ক্ষা করবে যেন ১০ বার শহীদ হতে পারে। কেননা সে শাহাদাতের মর্যাদা দেখেছে।’ (বুখারি, হাদিস : ২৮১৭)

পাঁচ. মৃত ব্যক্তি পুনরায় জীবিত হয়ে নামাজ পড়ার আকাঙ্ক্ষা করবে। রাসুল (সা.) একবার এক কবরের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন তিনি সাহাবাদের বলেন, এটা কার কবর?  সাহাবারা বলেন, অমুকের। তখন রাসুল (সা.) বলেন, এই ব্যক্তির কাছে দুই রাকাত নামাজ আদায় করা পুরো পৃথিবীর চেয়ে শ্রেষ্ঠ।’ (ইবনে আবি শায়বা, হাদিস : ৭৭১৫)

মৃত ব্যক্তি যখন নিজ চোখে কবরে দেখতে পাবে নামাজের এত এত প্রতিদান, তখন সে আফসোস করবে, কেন আরো বেশি নামাজ পড়ে এলো না। তাই সে আকাঙ্ক্ষা করবেন দুনিয়াতে যদি আবার তাকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়, তাহলে সে বেশি করে নামাজ আদায় করবে।

ছয়. সম্পদ সদকা করার আশা করবেন। সদকা করা আল্লাহর কাছে পছন্দনীয় আমল এবং সদকা আল্লাহর ক্রোধ নিভিয়ে দেয়। আল্লাহ বলেন, ‘আর আমি তোমাদের যে রিজিক দিয়েছি তা থেকে ব্যয় করো, তোমাদের কারো মৃত্যু আসার আগে। কেননা তখন সে বলবে, হে আমার রব, যদি আপনি আমাকে আরো কিছুকাল পর্যন্ত অবকাশ দিতেন, তাহলে আমি দান-সদকা করতাম। আর সৎ লোকদের অন্তর্ভুক্ত হতাম। আর আল্লাহ কখনো কোনো প্রাণকেই অবকাশ দেবেন না, যখন তার নির্ধারিত সময় এসে যাবে। আর তোমরা যা করো সে সম্পর্কে আল্লাহ সম্যক অবহিত।’ (সুরা মুনাফিকুন, আয়াত : ১০-১১)

সাত. সৎ আমল করার আকাঙ্ক্ষা করবে। দুনিয়াতে তাঁকে যদি কিছুক্ষণের জন্য ফিরিয়ে দেওয়া হয় তাহলে সে আল্লাহ তাআলার আনুগত্যের মাঝেই কাটিয়ে দেওয়ার বাসনা করবে। ইরশাদ হয়েছে, ‘অবশেষে যখন তাদের কারো মৃত্যু আসে, সে বলে, হে আমার রব, আমাকে আবার ফেরত পাঠান, যাতে আমি সৎকাজ করতে পারি, যা আমি আগে করিনি। না, এটা হওয়ার নয়। এটা তো তার একটি বাক্যমাত্র, যা সে বলবেই। তাদের সামনে বারজাখ থাকবে উত্থান দিন পর্যন্ত।’ (সুরা মুমিনুন, আয়াত : ৯৯-১০০)

অন্য আয়াতে আল্লাহ বলেন, ‘অথবা শাস্তি দেখতে পেলে যেন কাউকেও বলতে না হয়, হায়! যদি একবার আমি ফিরে যেতে পারতাম তবে আমি সৎ কর্মশীলদের অন্তর্ভুক্ত হতাম!’ (সুরা জুমার, আয়াত : ৫৮)

আল্লাহ তাআলা আমাদের মৃত্যুর আগে পরকালের পাথেয় সংগ্রহ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

[email protected]

বিডি-প্রতিদিন/ সালাহ উদ্দীন