শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ২৩:৫১

রিহ্যাব মেলা

ফ্ল্যাট বুকিংয়ে ঋণসুবিধা খুঁজছেন ক্রেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফ্ল্যাট বুকিংয়ে ঋণসুবিধা খুঁজছেন ক্রেতারা
মেলায় ক্রেতাদের ভিড় —বাংলাদেশ প্রতিদিন

নিজের সাধ্যের মধ্যে ঢাকায় একটি ফ্ল্যাটের মালিক হতে সবাই এখন ভিড় করছেন রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র (বিআইসিসি) প্রাঙ্গণে। পাঁচ দিনব্যাপী আবাসন মেলার তৃতীয় দিনে অধিকাংশ ক্রেতাই মাঝারি আকারের ফ্ল্যাট খুঁজছেন। সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় গতকাল সকাল থেকেই মেলায় ছিল ভিড়। দর্শনার্থীরা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের স্টলে ঘুরে ঘুরে ফ্ল্যাট ও প্লটের খোঁজখবর নিয়েছেন। ফ্ল্যাট কিনতে বা বুকিং দিতে ঋণসুবিধা নিয়ে আগ্রহ দেখা গেছে ক্রেতাদের। মেলা ঘুরে দেখা গেছে, ফ্ল্যাটের সঙ্গে প্লট কিনতে যারা আগ্রহী তাদের প্রথম পছন্দ বসুন্ধরা গ্রুপের ইস্ট ওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের স্টলে। দেশের শীর্ষ প্রতিষ্ঠান হওয়ায় মেলার মূল প্রাঙ্গণে গেট দিয়ে ঢুকেই বসুন্ধরার স্টল। মেলা উপলক্ষে বিশেষ ছাড়ের কারণে প্রতিদিন শত শত দর্শনার্থী আসছেন বলে জানালেন প্রতিষ্ঠানটির ডিজিএম কামরুল আহসান। প্রতিষ্ঠানটি রাজধানীর পূর্বাচল ৩০০ ফুট রাস্তার ডান পাশে জি, এইচ, আই, জে, এল ও কিউ ব্লকে প্লট বিক্রি করছে। এখানে প্লটের এককালীন মূল্য পরিশোধে থাকছে ১০ শতাংশ ছাড়। কিউ ব্লকে প্রতি কাঠা জমির দাম ২৫ লাখ টাকা। ৩, ৪ ও ৫ কাঠার প্লটে ১ লাখ টাকা নগদ বুকিংয়ে ৫০ মাসের কিস্তিতে মূল্য পরিশোধের সুযোগ দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। মেলা ঘুরে দেখা গেছে, ছুটির দিনের আমেজ যেন পুরো মেলা প্রাঙ্গণে। অনেক দর্শনার্থী পুরো পরিবার নিয়ে এসেছেন। বিভিন্ন স্টলে ঘুরে ঘুরে দেখছেন পছন্দের প্লট বা ফ্ল্যাট কোথায় পাওয়া যায়। খোঁজ নিচ্ছেন ঢাকার কোন এলাকায় কত মূল্য। ফ্ল্যাটের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কেও অনেকে জানতে চাচ্ছেন। তবে এসব জানার সঙ্গে তারা ফ্ল্যাট কেনায় ঋণসুবিধার সম্পর্কেও খোঁজখবর নিচ্ছেন মেলায় অংশ নেওয়া বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের স্টলে। এসব স্টলে বিভিন্ন সুবিধা দিয়ে ঋণ অফার করা হচ্ছে। তবে ক্রেতাদের মূল আকর্ষণ সহজ শর্তে কোন প্রতিষ্ঠান ঋণ দিচ্ছে। অর্থলগ্নি এসব প্রতিষ্ঠানের স্টল কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ৫০ লাখ থেকে ১ কোটি টাকা ঋণ নিতে চাওয়া গ্রাহকের সংখ্যাই বেশি। বেশির ভাগ গ্রাহক জানতে চাচ্ছেন ঋণ পরিশোধের সময়সীমা, সুদের হার ও প্রসেসিং টাইম সম্পর্কে। এসব বিষয়ে যেসব প্রতিষ্ঠান সুবিধা দেয় অনেক গ্রাহক তাদের ঋণের জন্য নিবন্ধন করছেন। এদিকে ফ্ল্যাট বা প্লট বুকিং দেওয়ার আগে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প এলাকা সরেজমিন ঘুরে দেখার ইচ্ছা প্রকাশ করছেন অনেকে। আবাসন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারাও প্রতিদিন, কিছু প্রতিষ্ঠান নির্দিষ্ট দিনে প্রকল্প এলাকা দেখানোর ব্যবস্থা করছে। এর মধ্যে ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৬০০ বর্গফুট আয়তনের ফ্ল্যাটের চাহিদা বেশি বলে জানালেন তারা। তবে আবাসন প্রতিষ্ঠানের কাছে মাঝারি আকারের ফ্ল্যাটের সংখ্যাই বেশি। ফ্ল্যাট বা প্লট ক্রেতাদের কাছে আকর্ষণীয় করতে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধাও প্রচার করছে প্রতিষ্ঠানগুলো। খেলার মাঠ, বিদ্যালয়, ব্যায়ামের জায়গা, ক্লাব হাউসসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা তুলে ধরছে তাদের প্রকল্পগুলোর। ১১৬টি আবাসন কোম্পানি এবারের মেলায় অংশ নিয়েছে। আর্থিক সহযোগিতার জন্য আছে ১২টি সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশন ঢাকা ও চট্টগ্রাম এলাকায় ফ্ল্যাট কেনার জন্য ১০ শতাংশ সুদে সর্বোচ্চ ৮০ লাখ টাকা ঋণ দেয়। ঢাকা ও চট্টগ্রামের বাইরে জেলা পর্যায়ে ১০ শতাংশ সুদে সর্বোচ্চ ৬০ লাখ ও উপজেলা পর্যায়ে ৯ শতাংশ সুদে সর্বোচ্চ ৪০ লাখ টাকা ঋণ দেয় সরকারের এই আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া বাড়ি নির্মাণের জন্য ঋণ দেয় তারা। মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। দর্শনার্থীরা একবার ৫০ টাকা আর পাঁচবার প্রবেশের জন্য মাল্টিপল টিকিট ১০০ টাকায় কিনে মেলায় ঢুকতে পারবেন। প্রবেশ টিকিটে র?্যাফল ড্র হবে। মেলা শেষ হবে আগামীকাল।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর