শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:১৮

হরেকরকম গুজব, কঠোরভাবে দমন

থানকুনি পাতা, কখনো ঘন ঘন চা, কালিজিরা, মধু খাওয়া, তেলাপিয়া মাছ খাওয়া, মাওলানার স্বপ্ন দেখা, আদা-রসুন দিয়ে গরমপানি, জ্বর-সর্দি-গলাব্যথা হলে পুলিশ ধরে নিয়ে যাবে কিংবা ভুয়া মৃত্যুর বা আক্রান্তের বিভ্রান্তিকর খবর

আলী আজম

হরেকরকম গুজব, কঠোরভাবে দমন

করোনাভাইরাসের আতঙ্ক, উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠায় দেশ। সারা বিশ্ব দাপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনাভাইরাস। বিশ্বে প্রতিদিনই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। মারা যাচ্ছে। আবার ভালোও হচ্ছে। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। ফলে করোনাভাইরাস সম্পর্কে সবার জানার আগ্রহ তুঙ্গে। এ করোনা আতঙ্ক আর আগ্রহকে কাজে লাগিয়ে একের পর এক গুজব ছড়িয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে সাইবার অপরাধীরা। এ চক্রের সদস্যরা কখনো থানকুনি পাতা, কখনো ঘন ঘন চা, কালিজিরা, মধু খাওয়া, তেলাপিয়া মাছ খাওয়া, মাওলানার স্বপ্ন দেখা, আদা-রসুন দিয়ে গরমপানি, জ্বর-সর্দি-গলাব্যথা হলে পুলিশ ধরে নিয়ে যাবে কিংবা ভুয়া মৃত্যুর বা আক্রান্তের বিভ্রান্তিকর খবর প্রতিনিয়ত ছড়িয়ে দিচ্ছে ইউটিউব, ফেসবুক ও অসংখ্য ভুয়া অনলাইন নিউজপোর্টালে। সাধারণ মানুষও এগুলো বিশ্বাস করছে। শুধু গুজবই নয়, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটিকে লকডাউন ঘোষণা দিয়ে পুলিশের পুরনো বিভিন্ন ছবি এডিট করে মাস্ক লাগিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এ গুজব সৃষ্টিকারীরা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। সাইবার এসব অপরাধীকে ঠেকাতে গুজব প্রতিরোধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে পুলিশ। করোনাভাইরাস সম্পর্কে আপডেট দেওয়া ও মহামারী এ দুর্যোগে বিভিন্ন  অফার দেওয়ার ফাঁদ পেতে হ্যাক করে নেওয়া হচ্ছে শত শত আইডি। গুজব ছড়ানো এমন ৩০টি কনটেন্ট বন্ধ করার পাশাপাশি দেশজুড়ে শতাধিক আইডি শনাক্ত করা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে ১৫ জনকে। সাইবার পেট্রোলিং করছে পুলিশ-র‌্যাব। শিগগিরই সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে করোনা নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে নাঈমুর রহমান নাঈম নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। একই অভিযোগে আরও কয়েকজনকে নজরদারি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সিআইডি সাইবার মনিটরিং টিমের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খায়রুল আলম। তিনি বলেন, ২৯ মার্চ একটি বিভ্রান্তিকর পোস্ট শনাক্ত করা হয়। সেখানে বলা হয়, ‘এই মাত্র জানা গেল আমাদের শনির আখড়ায় ও সাইনবোর্ড এলাকায় ২৭ জন মারা গেছে করোনাভাইরাসে। আপনারা সবাই সতর্ক হোন, নিজে জানুন, অন্যকে জানাতে সাহায্য করুন। শেয়ার করে তথ্যটি সবার কাছে পৌঁছে দিন। আল্লাহ আমাদের রক্ষা করুন।’ এ পোস্টটি প্রচুর লাইক ও শেয়ারের মাধ্যমে ভাইরাল হয়। পরে নাঈমকে গ্রেফতার করা হয়। নাঈম প্রতিশোধ নিতে তার বন্ধুর আইডি হ্যাক করেন। পরে বন্ধুকে ফাঁসাতে করোনায় মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে দেন। নাঈমের মোবাইলসহ বিভিন্ন ডিভাইস জব্দ করা হয়েছে। তিনি একজন কন্ট্রাক্ট হ্যাকার। টাকার বিনিময়ে এর আগেও তিনি ফেসবুক হ্যাক করেছেন। ডিভাইস থেকে ইতিমধ্যে তার অপরাধের বিভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে। তার বিরুদ্ধে কদমতলী থানায় মামলা করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাজশাহীতে করোনাভাইরাস নিয়ে ফেসবুকসহ বিভিন্নভাবে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে ২৩ জনকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাদের ৪২ হাজার ৪০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সোমবার রাতে করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে পাবনার ঈশ্বরদী পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালামকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলতে এবং অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে একটি চক্র। এরই অংশ হিসেবে করোনাভাইরাসের ভুয়া প্রতিষেধক ও আক্রান্ত রোগীর মনগড়া পরিসংখ্যান দেওয়াসহ নানাভাবে গুজব সৃষ্টি করা হচ্ছে। এসব গুজব রটনাকারীকে দ্রুত আইনের আওতায় আনার পাশাপাশি করোনাভাইরাস-সংক্রান্ত সঠিক তথ্য সবাইকে জানানো উচিত। পুলিশ সদর দফতরের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি ছাড়ানো হচ্ছে। প্রচুর লাইক ও শেয়ার হয়ে এসব মিথ্যা তথ্য ভাইরাল হচ্ছে। গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এসব সাইবার অপরাধীকে ঠোকাতে কঠোর অবস্থানে পুলিশ। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করাসহ গুজবের সঙ্গে জড়িত একাধিক আইডি, পেজ ও সাইট চিহ্নিত করা হয়েছে। র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে, কর্নেল সারওয়ার-বিন-কাশেম বলেন, ‘করোনাভাইরাস নিয়ে কেউ যেন গুজব সৃষ্টি করে বিভ্রান্তি ছড়াতে না পারে সে জন্য আমরা সতর্ক রয়েছি। গুজব প্রতিরোধে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম মনিটরিং করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে পাঁচজনকে গ্রেফতারসহ ৫০-৬০ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে।’


আপনার মন্তব্য