শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:২৩

এক দিনে ২ লাখ মানুষকে টিকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

এক দিনে ২ লাখ মানুষকে টিকা

করোনাভাইরাসের টিকা নিতে কেন্দ্রগুলোতে বাড়ছে মানুষের ভিড়। সুশৃঙ্খলভাবে টিকা নিচ্ছে মানুষ। গতকাল দেশে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা কোভিশিল্ড গ্রহণ করেছেন ১ লাখ ৯৪ হাজার ৩৭১ জন। ভিড় কমাতে টিকা কেন্দ্রে নিবন্ধন বন্ধ করেছিল সরকার। তবে প্রবীণ নাগরিকদের জন্য এ ব্যবস্থা দ্রুতই চালু হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশে জাতীয়ভাবে করোনার টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়। এখন পর্যন্ত দেশে মোট টিকা নিয়েছেন ৭ লাখ ৩৬ হাজার ৬৮০ জন। গতকাল স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সারা দেশের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৫৪ হাজার ৬৯ জন, ময়মনসিংহ বিভাগে ৮ হাজার ৯০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৪৭ হাজার ৭১৮ জন, রাজশাহী বিভাগে ২২ হাজার ৭৪ জন, রংপুর বিভাগে ১৭ হাজার ৫৪২ জন, খুলনা বিভাগে ২১ হাজার ২৭৮ জন, বরিশাল বিভাগে ৭ হাজার ৫১৩ জন এবং সিলেট বিভাগে ১৬ হাজার ৮৭ জন টিকা নিয়েছেন। করোনা টিকা গ্রহীতাদের মধ্যে পুরুষ রয়েছেন ১ লাখ ২৭ হাজার ৪৩ জন এবং নারী ৬৭ হাজার ৩২৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা মহানগরে টিকা গ্রহীতাদের মধ্যে পুরুষ ১৭ হাজার ৬৫৩ জন এবং নারী ৮ হাজার ৯১১ জন। সারা দেশে এখন পর্যন্ত টিকা গ্রহণকারীর মধ্যে পুরুষ ৫ লাখ ১৩ হাজার ৬২১ জন এবং নারী ২ লাখ ২৩ হাজার ৫৯ জন। দেশব্যাপী করোনার গণটিকাদান কার্যক্রমের প্রথম দিন টিকা নিয়েছেন ৩১ হাজার ১৬০ জন, দ্বিতীয় দিন টিকা নেন ৪৬ হাজার ৫০৯ জন, তৃতীয় দিন টিকা নেন ১ লাখ ১ হাজার ৮২ জন, চতুর্থ দিন টিকা নিয়েছেন ১ লাখ ৫৮ হাজার ৪৫১ জন, পঞ্চম দিন টিকা নিয়েছেন ৫ লাখ ৪২ হাজার ৩০৯ জন। তবে শুক্রবার টিকাদান কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

দেশের প্রবীণ নাগরিকদের জন্য টিকাদান কেন্দ্রে নিবন্ধনের ব্যবস্থা শিগগিরই পুনরায় চালু করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান। গতকাল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে টিকাদান কার্যক্রম পরিদর্শনে গিয়ে তিনি বলেন, গ্রামের মানুষের আগ্রহ বাড়াতে প্রয়োজনে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। টিকার জন্য এখন পর্যন্ত ১৪ লাখ লোক নিবন্ধন করেছে। ৩৫ লাখ টিকা দেওয়ার পর আমরা পরিসংখ্যান যাচাই করব। যদি দেখা যায় গ্রামের মানুষের মধ্যে টিকা নেওয়ার প্রবণতা কম তাহলে উদ্বুদ্ধ করতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যাদের বয়স বেশি বা বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন মানুষ আছেন, ভোটার আইডি কার্ড নিয়ে গেলে তাদের নিবন্ধন করা হবে। এ রকম একটা সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে আমরা চিন্তা করছি। তিনি আরও বলেন, গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সারা দেশে সাড়ে ৫ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। শনিবার এ সংখ্যা ৬ লাখ ছাড়িয়ে যাবে। এটা সম্ভব হয়েছে টিকাদান কার্যক্রমে বাংলাদেশের ভালো অভিজ্ঞতার কারণে। গত ২ ফেব্রুয়ারি স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছিলেন, করোনাভাইরাসের টিকার জন্য কেউ অনলাইনে নিবন্ধন করতে না পারলে টিকাদান কেন্দ্রেও সেই ব্যবস্থা রাখা হবে। ৭ ফেব্রুয়ারি সারা দেশে একযোগে শুরু হয় টিকাদান। বিভিন্ন কেন্দ্রে গিয়ে নিবন্ধনের সুযোগ রাখা হয়। তবে অনলাইনে নিবন্ধন না করেই অনেকে টিকাদান কেন্দ্রে চলে আসেন। বিভিন্ন কেন্দ্রে ভিড় বেড়ে যায়, তৈরি হয় বিশৃঙ্খলা। এ অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, কেন্দ্রে গিয়ে নিবন্ধনের সুযোগ আপাতত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। টিকাদান কার্যক্রম ঠিকভাবে চালাতেই আপাতত ওই সুবিধা বন্ধের সিদ্ধান্ত তারা নিয়েছেন বলে জানিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

 


আপনার মন্তব্য