শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৩৩

গরিবের পলেস্টার কাপড়ে ৬% ভ্যাট অযৌক্তিক

মোহাম্মদ আলী খোকন

গরিবের পলেস্টার কাপড়ে ৬% ভ্যাট অযৌক্তিক

গরিবের পলেস্টার কাপড়ে ৬ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপ অযৌক্তিক দাবি করে ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে তা বাতিলের দাবি জানিয়েছেন বস্ত্রশিল্প মালিকদের সংগঠন বিটিএমএ সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন। তার মতে, কৃত্রিম আঁশের তৈরি সুতায় প্রস্তুত হওয়া কাপড় দরিদ্র, নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষ বেশি ব্যবহার করেন। তিনি বলেন, শিল্পায়নের স্বার্থে সব ধরনের মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানিতে একই হারে শুল্কায়ন করা হোক। দেশি শিল্পের সুরক্ষায় বিদেশি কাপড়ের শুল্কায়ন ওজনের ভিত্তিতে না করে, মিটারভিত্তিক পরিমাপের ভিত্তিতে করার দাবি করছি। কাপড় তৈরির কাঁচামাল কৃত্রিম আঁশ আমদানির ক্ষেত্রে প্রতি কেজির শুল্কায়ন ৬ টাকার পরিবর্তে ২ টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করছি। বাংলাদেশ প্রতিদিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশন-বিটিএমএ সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন। বাজেটে বস্ত্রশিল্প মালিকদের প্রত্যাশা তুলে ধরে তিনি বলেন, যে কোনো ফাইবার দ্বারা তৈরি সব প্রকার সুতার ওপর কটন সুতার মতোই ৩ টাকা ভ্যাট আরোপ ও কৃত্রিম আঁশের তৈরি ফেব্রিকের ওপর থেকে ৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করা হোক। কারণ, বর্তমানে সুতা তৈরির জন্য বিভিন্ন রকম ফাইবার ব্যবহার হয়। আবার ক্রেতারাও অনেক ক্ষেত্রে তাদের পোশাকে কোন ধরনের সুতা ব্যবহার হবে, তাও নির্ধারণ করে দেন। তাই সব প্রকার সুতার ভ্যাট একই হওয়া প্রয়োজন। তিনি বলেন, রপ্তানি বাণিজ্য উৎসাহিত করতে উৎসে আয়কর কর্তনের হার পুনরায় দশমিক ২৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হোক। বস্ত্র মিলগুলো রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাকশিল্পে সুতা ও কাপড় সরবরাহ করছে। এতে আমদানি ব্যয় কমে গেছে। যদিও আমাদের মিলগুলো আমদানি পরিপূরক শিল্প হিসেবে বিবেচিত। করোনার আগ থেকেই সামগ্রিকভাবে পোশাক ও বস্ত্রশিল্প প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে। এসব দিক বিবেচনায় নিয়ে বাজেটে রপ্তানি মূল্যের ওপর যে উৎস কর কর্তনের হার আগের মতোই দশমিক ২৫ শতাংশ পুনর্বহাল করা প্রয়োজন। মোহাম্মদ আলী খোকন দেশে শিল্পায়নের স্বার্থে সব ধরনের মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে একই হারে শুল্কায়নের প্রস্তাব করেন। দেশি শিল্পের সুরক্ষায় বিদেশি কাপড়ের শুল্কায়ন ওজনের ভিত্তিতে না করে মিটারভিত্তিক পরিমাপের ভিত্তিতে করার সুপারিশ করেন তিনি। এ ছাড়া কাপড় তৈরির কাঁচামাল কৃত্রিম আঁশ আমদানির ক্ষেত্রে প্রতি কেজির শুল্কায়ন ৬ টাকার পরিবর্তে ২ টাকা করার দাবি জানান তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর