বৃহস্পতিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

বিষক্রিয়ায় নয় শ্বাসরোধে

মির্জা মেহেদী তমাল

বিষক্রিয়ায় নয় শ্বাসরোধে

নুসরাত আমান অরণী (১২) ও তার ভাই আলভী আমান (৭)। হঠাৎ এরা দুজনই অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন। তাদের গলায় লালচে দাগ। পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়, খাদ্যে বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। বিষয়টি থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়। সারা দেশে তোলপাড় করা এ ঘটনার তদন্তের পর বেরিয়ে আসে অবিশ্বাস্য কাহিনি। গোয়েন্দারা জানতে পারে, বিষক্রিয়ায় নয়, শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে এই দুই ভাইবোনকে।

রাজধানীর রামপুরা থানাধীন বনশ্রীর বি ব্লকের ৪ নম্বর সড়কের ৯ নম্বর জিএম অ্যাপার্টমেন্ট লিমিটেডের তৈরি জিএম শাহনূর নামের সাততলা বাড়ির একটি ফ্ল্যাটের ঘটনা এটি। ঘটেছে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে। তদন্ত শেষে সব জল্পনা-কল্পনার অবসান হয়। অবিশ্বাস্য হলেও মা নিজেই খুনের দায় স্বীকার করে র‌্যাবের কাছে জবানবন্দি দেন। এই স্বীকারোক্তির পর মাকে একমাত্র আসামি করে গত বছর ২ মার্চ রাত ১০টায় রামপুরা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বাবা। সন্তানদের পড়াশোনা ও ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তা  থেকেই মা নিজে সন্তানদের হত্যা করেন বলে র‌্যাবের কাছে দাবি করেছেন। নিজ সন্তানদের শ্বাসরোধে হত্যা করার রোমহর্ষক সেই ঘটনা র‌্যাবের কাছে অবলীলায় বর্ণনাও করেছেন মা। এমনকি প্রকাশ করেছেন হত্যার পর স্বামীসহ আত্মীয়স্বজনের কাছে নিজেকে নির্দোষ এবং ভালো সাজার চেষ্টা করতে নাটক সাজানোর বিষয়টিও। আর নাটক সাজাতেই চাইনিজ রেস্টুরেন্টের খাবার খেয়ে বিষক্রিয়ায় দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার করা হয়। এমন ঘটনায় ‘খুনি’ মাকে দেখতে দেশের কোটি কোটি মানুষ টেলিভিশনের সামনে ভিড় করেছিল। অনেকেই রামপুরার বনশ্রীর সেই বাড়িতে ভিড় করেছেন পাষ- মাকে দেখার জন্য।

মায়ের স্বীকারোক্তিতে খুনি কে তা জানা গেলেও মানুষের কাছে অনেক প্রশ্নই ঘুরপাক খায়। বিশেষ করে, যে কারণে হত্যার কথা বলা হয়, তা ছিল অযৌক্তিক। তা মেনে নিতে পারেনি খোদ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও। তা হলে প্রকৃত কারণ কী? কারণটি যদি নিহতদের দাদি, পিতা, খালা বা পিতার বন্ধুর জানা থাকে, তাহলে তারা কেন মুখ খুলছেন না? এমনকি এমন একটি আলোচিত ঘটনায় মাকে কেন তারা খাদ্যে বিষক্রিয়ায় শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার চালিয়ে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন? প্রশ্ন রয়েছে সেখানেও। মূল রহস্য কোথায়? তা জানতে মানুষের মনে হাজারো প্রশ্ন ঘুরপাক খায়। গত বছর ২৯ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর রামপুরায় নুসরাত আমান অরণী (১২) ও তার সহোদর আলভী আমানের (৭) রহস্যজনক মৃত্যু হয়। নিহতদের মা ও পরিবারের দাবি ছিল, হোটেলের খাবার খেয়ে বিষক্রিয়ায় দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসকরা বলেছেন, দুই শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। তাদের শরীরে শ্বাসরোধে হত্যা করার সব আলামতই রয়েছে। চিকিৎসকদের বক্তব্য আর নিহতদের মায়ের বক্তব্যের মধ্যে বিস্তর পার্থক্য থাকায় র‌্যাব নিহতদের পিতা-মাতা ও এক খালাকে জামালপুর থেকে আটক করে। পরে তাদের ঢাকায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর সেই হত্যা কাহিনি। র‌্যাব কার্যালয়ে সাদা-কালো সালোয়ার-কামিজ পরিহিত মা ছিলেন একেবারেই নির্বিকার। তার চোখে ছিল না কোনো পানি। না ছিল মুখে কোনো আফসোসের চিহ্ন। একেবারেই স্বাভাবিক ছিল তার চলাচল। তার ভিতরে ভাবাবেগ লক্ষ্য করা যায়নি। একজন মহিলা, তারপর আবার মা, খুনি হয়ে এমন নির্বিকার হতে পারে কেউ ভাবতেই পারেনি। র‌্যাব সদর দফতরজুড়ে সমালোচনার ঝড় বইছে। গ্রেফতারকারী র‌্যাব সদস্যরাও বলছিলেন, এমন খুনি তারা আর কোনোদিনই গ্রেফতার করতে পারেননি। ভবিষ্যতে পারবেন কি না তা নিয়েও সন্দেহ আছে। ২৮ ফেব্রুয়ারি ছিল নিহত অরণী ও তার ভাই আলভীর পিতামাতার ১৪তম বিবাহবার্ষিকী। দিনটি ধুমধাম করে উদযাপন করা হয়। ওই দিন পরিবারের সবাই বনশ্রীর ক্যান্ট চাইনিজ রেস্টুরেন্টে রাতের খাবার খায়। হোটেলে তাদের কেনা অনেক খাবার অবশিষ্ট থাকে। সেসব খাবার পারসেল করে বাসায় নিয়ে যায়। খাবারগুলো ফ্রিজে রাখে। ২৯ ফেব্রুয়ারি ঘটনার দিন অরণী ও আলভী দুপুরে স্কুল থেকে বাসায় ফেরে। ফেরার পর তারা রাতে রেস্টুরেন্ট হতে আনা অবশিষ্ট খাবার গরম করে খায়। খাওয়া-দাওয়া সেরে অরণী বসে ছিল। এ সময় আলভীকে নিয়ে ঘুমাতে যায় মা। কয়েক মিনিট পরও অরণী না গেলে তাকে বিশ্রাম করার কথা বলে ডাক দেয়। কিন্তু গৃহশিক্ষকের কাছে পড়া থাকায় অরণী যেতে পারেনি। অরণীর দুজন মহিলা গৃহশিক্ষক। একজন শিউলি আক্তার অপরজন রাত্রিলা। এদের একজনের বেতন মাসিক ৭ হাজার অপরজনের মাসিক ৫ হাজার টাকা। ওই দিনই এক গৃহশিক্ষক বেলা তিনটা থেকে চারটা পর্যন্ত পড়িয়ে যান। এদিকে আলভী ঘুমিয়ে পড়ে। কিন্তু জেগে থাকে মা। শিক্ষিকা চলে গেলে মা অরণীকে ডাক দেন। অরণীকে শুয়ে আরাম করতে বলেন। ক্লান্ত শরীরে অরণী শুয়ে পড়ার পরই গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। তখন বিকাল সাড়ে পাঁচটার মতো বাজে। পড়ার সময় অরণীর গায়ে মায়ের ওড়না ছিল। সেই ওড়না নিয়েই অরণী ঘুমাতে থাকে। এ সময় সেই ওড়না দিয়ে অরণীকে শ্বাসরোধে হত্যা করার চেষ্টা চালান মা। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে অরণী বিছানা থেকে নিচে পড়ে যায়। এরপর নিচে পড়ে গেলেও জাপটে ধরেন তিনি। নিচে ফ্লোরের সঙ্গে চেপে ধরে ওড়না দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেন। অরণীর নিথর দেহ মেঝেতেই পড়ে থাকে। এরপর অরণীর গলা থেকে ওড়না ছাড়িয়ে তা দিয়ে আলভীকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন তিনি। হত্যার পর কয়েক মিনিট ধরে আফসোস করে একাই ঘরের ভিতরে কান্নাকাটি করেন। তারপর মোবাইল ফোনে স্বামীকে কল দেন। তখন স্বামী উত্তরা ছিলেন। ঘাতক মা স্বামীকে ফোন দেন। তিনি বলেন, অরণী ও আলভী হোটেল থেকে আনা খাবার খেয়ে কেমন যেন করছে। মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এ সময় আলভীর পিতা স্থানীয় বন্ধু জাহিদকে দ্রুত বাড়িতে যেতে বলেন। আবার বাসার কাছে থাকা আলভীর খালা মিলাকেও বাসায় গিয়ে ঘটনা কী তা জানার জন্য বলেন। জাহিদ দ্রুত প্রাইভেটকার নিয়ে আলভীদের বাড়িতে যান। তিনি অরণী আর খালা মিলা আলভীকে নামিয়ে আলভীর মাসহ সবাই প্রাইভেটকারযোগে বনশ্রী আল রাজী হাসপাতালে যান। আল রাজী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লাশ দুটি দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে রাত পৌনে ৮টায় তাদের মৃত ঘোষণা করেন দায়িত্বরত চিকিৎসকরা। র‌্যাব জানায়, চিকিৎসকদের বক্তব্য আর পিতামাতার বক্তব্যের মধ্যে মিল ছিল না। এ জন্য র‌্যাবের সন্দেহ হয়। বিশেষ করে সন্তানের লাশ গ্রহণ না করেই পিতামাতা অনেকটা পালিয়ে হাসপাতাল ত্যাগ করায় সন্দেহ আরও বেড়ে যায়। যে কারণে নিহতদের পিতামাতা ও খালা মিলাকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। এ ছাড়া ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে গৃহশিক্ষিকা শিউলি আক্তার (২৮), খালু নজরুল ইসলামের ভাগ্নে শাহিন (২২), খুনির মামাতো ভাই মো. ওবায়দুর ইসলাম (৩৪), বাসার দারোয়ান পিন্টু মন্ডল (৩২) ও ফেরদৌসকে (২৮) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেওয়া হয়। হত্যাকান্ডের কারণ সম্পর্কে জানা যায়, নিহতদের মা শিশুদের স্কুলের পরীক্ষার ফল এবং ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তাযুক্ত ছিলেন। তার ধারণা ছিল, তার সন্তানরা বড় হয়ে কিছুই করতে পারবে না। এ জন্য তিনি তাদের হত্যা করেছেন। হত্যাকান্ডের সাবলীল বর্ণনা দিয়েছেন মা। তার ভিতরে দুই সন্তানকে হত্যার জন্য কোনো ধরনের আফসোস নেই। দুই সন্তানকে নিজ হাতে হত্যার পর তার চোখে-মুখে সে রকম কোনো ভাবলক্ষণ নেই। মাসখানেক আগে খুনি একাই বেশ কয়েকবার আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছেন। ঘটনার সময় বাসায় নিহতদের দাদি হাসনা বেগম (৭৫) ছিলেন। এর বাইরে আর কেউ ছিলেন না।

 

এই রকম আরও টপিক