শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ মার্চ, ২০২১ ০৯:৫৭
প্রিন্ট করুন printer

১৫ মিনিটের যে কাজে আয়ু বাড়ে অবিশ্বাস্যভাবে!

অনলাইন ডেস্ক

১৫ মিনিটের যে কাজে আয়ু বাড়ে অবিশ্বাস্যভাবে!
প্রতীকী ছবি

আজকাল নানা মানসিক চাপের মধ্যে থেকে আমরা নিজেদের প্রতি মুখ তুলে তাকানোর সময় পাই না বলতে গেলে। তাই ব্যাহত হচ্ছে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য। অথচ নিজের যত্ন তো ১৫ মিনিটেও নেওয়া যায়। এমনটাই বলছে নতুন একটি গবেষণা। আমরা তো আজকাল একটু হাসিমুখে থাকতেও ভুলে গেছি। টেনশন আমাদের সব হাসিই কেড়ে নিয়েছে। কিন্তু এই হাসির উপকারিতা জানলে আজ থেকেই আপনারা মন খুলে হাসতে থাকবেন। কারণ এই হাসির সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে দীর্ঘায়ু। হার্ট থাকবে চাঙ্গা। এমনটাই দাবি বিশেষজ্ঞদের।

সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, হাসলে আমাদের আয়ু এই কারণে বাড়ে যে এতে হার্ট ভাল থাকে। আবার হাসিতে নাকি কমে ওজনও। এতে শরীরের ভেতরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নিজে থেকেই বাড়ে। খাবার ঠিকমতো হজম হয়। ফুসফুস ঠিক থাকায় আমাদের শ্বাস-প্রশ্বাসও স্বাভাবিক হয়। আবার হাসিতেই মিলিয়ে যায় অনেক রকম ব্যথা।

যাদের জীবনে হাস্যরসের রয়েছে প্রাচুর্য এবং যারা জীবন সম্পর্কে সবসময় ভালো কিছু ভাবতে ভালোবাসে, তারা বাকিদের থেকে ৫৫ শতাংশ বেশি বাঁচতে পারে, এমন তথ্য এসেছে সামনে। তবে এর জন্যে যে আপনাকে খুব কষ্ট করতে হবে তা নয়। দিনে মাত্র ১৫ মিনিট হাসলেই কাজ হবে। কারণ হাসলে শরীরে হ্যাপি হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়। মানসিক উত্তেজনায় কমে যায়। মন খুলে হাসলে তার জন্য আবার স্ট্রেস হরমোন কমে।

সোরোটিন হল একটি হ্যাপি হরমোন যা মানবদেহে নানা আচরণ পরিবর্তনের কাজটিকে পরিচালনা করে থাকে। এই সোরোটিন মস্তিষ্কে ভাল থাকার একটি অনুভূতি পৌঁছে দেয়। ফলে মন থেকে হাসতে পারেন অনায়াসেই। আর এই মস্তিষ্কই কিন্তু পুরো শরীরকে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। সুতরাং, বাড়িতে একটু ওয়ার্ক আউট করে তারপর সূর্যের তাপ লাগান গায়ে। বিজ্ঞানীরা বলছেন এতে নাকি আমাদের শরীরে সেরোটোনিন নিঃসরণ স্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায়। প্রতিদিন রোদে ৩০ মিনিট বসলেই আপনি মানসিক চাপ থেকে মুক্ত হবেন। মনকে ভালো রাখলেই বাড়বে আয়ু।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য