শিরোনাম
প্রকাশ : ২ মার্চ, ২০২১ ১৮:২৪
প্রিন্ট করুন printer

বাধা নেই, তবুও অনিশ্চয়তায় বোয়ালখালী পৌর নির্বাচন!

সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম:

বাধা নেই, তবুও অনিশ্চয়তায় বোয়ালখালী পৌর নির্বাচন!

প্রশাসনিক কোনো বাধা না থাকা সত্বেও এখনও অনিশ্চয়তার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে চট্টগ্রামের বোয়ালখালীর সেই পৌরসভা নির্বাচন। এক বছর আগেই এই পৌরসভা নির্বাচনের মেয়াদ শেষ হয়েছে। নির্বাচনে ভোট দেয়ার আগ্রহ থাকলেও নানা অজুহাতে সেই ভোটদান থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন স্থানীয় হাজার হাজার ভোটার। তাছাড়া চট্টগ্রামের বাঁশখালী নির্বাচন এখন হয়নি। এই পৌরসভার সঙ্গে বোয়ালখালীর পৌর নির্বাচনের দিন-তারিখও ঘোষণা হতে পারে বলে নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা জানান। তাছাড়া বোয়াখালী পৌর নির্বাচনের আইনী বাধা না থাকলে সহসা নির্বাচন হবে বলে জানান চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসানুজ্জামান।

অভিযোগ উঠেছে, ভোটার তালিকা প্রণয়ন, সীমানা নির্ধারণসহ বিভিন্ন বিষয়ে বিএনপির বর্তমান পৌর মেয়র, প্যানেল মেয়রসহ কয়েকজনের কৌশলী ভূমিকা নিয়ে অভিযোগ উঠেছে বোয়ালখালী পৌরসভা নির্বাচনের বিষয়ে। এই পৌরসভা মেয়াদের পরেও প্রায় দেড় বছর সময় পাড় হলেও আইনী জটিলতার প্রশ্নে ‘ঘুরপাক’ খাচ্ছে এই নির্বাচন। স্থানীয় সরকার, নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারাসহ প্রশাসনিক কোনো বাধা না থাকলেও অদৃশ্য ‘রহস্য জনক’ কারণে এই নির্বাচন হচ্ছে না এমন প্রশ্ন সকলেরও।

স্থানীয় ভোটার বোরহান উদ্দিনসহ একাধিক ভোটার বলেন, দীর্ঘ বছর পৌরসভার ভোট না হওয়ায় এলাকার ভোটাররা উদ্বিগ্ন। বিএনপির বর্তমান মেয়র এই পদটি আকড়ে ধরতেই ভোটার, সীমানা নির্ধারণসহ নানা পরিবেশ তৈরি করছেন। এখানে কিছু চিহ্নিত সুবিধাভোগী মানুষ ও জড়িত রয়েছেন বলে জানান তিনি।

বোয়ালখালী থানা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম বলেন, ভোটার বিষয়ে কিছু আইনী জটিলতা ছিল। সেটি এখন কেটে গেছে। তাছাড়া এসব ভোটার পৌরসভা এলাকায় পড়েনি। বোয়ালখালী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা কামাল উদ্দিন নামের একজনের অভিযোগের বিষয়ে সর্বশেষ মঙ্গলবারও নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এসব নিয়ে একটি প্রতিবেদনও নির্বাচন অফিসে দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব (পৌর-১) মোহাম্মদ ফারুক হোসেন বলেন, আইনগত কোন বাধা নেই বোয়ালখালী পৌরসভা নির্বাচনের। ইতিমধ্যে স্থানীয় সরকার থেকে নির্বাচন কমিশন বরাবরে চিঠিও দেয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশন ইচ্ছা করলেই যে কোন সময় বা কমিশনের সুযোগ-সুবিধা মোতাবেক নির্বাচনের দিন-তারিখ ঘোষনা করতে পারেন বলে জানান তিনি।

বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. শফিউল আলম বলেন, একটি চক্র বারবার পৌরসভা নির্বাচন আটকে দেয়ার পায়তারা চালিয়ে আসছিল দীর্ঘ দিন ধরেই। এখনও ভুয়া নানা অজুহাত দেয়ার চেষ্টা করছেন।

অভিযাগ অস্বীকার করে বোয়ালখালী পৌরসভার মেয়র ও বিএনপি নেতা হাজি আবুল কালাম আবু বলেন, নির্বাচন বাধা দেয়ার কোন প্রশ্নই উঠে না। বরং দ্রুত কিভাবে নির্বাচন হবে, সেই চেষ্টা করছি। এখানে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে এবং দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি আবারও বিপুল ভোটে জয়ী হবো। তাছাড়া আইনী কোন সমস্যা বা জটিলতা না থাকে, তাহলে নির্বাচন হলে অসুবিধা কোথায়? আমিও চাই নির্বাচন হউক। তবে ভোটার তালিকা, সীমানা নির্ধারণসহ নানা সমস্যা রয়েছে বলে জানান তিনি। 

চট্টগ্রাম নির্বাচন কমিশস সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রামের বোয়ালখালী পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৪ সালের ২১ মে। এসময় বিএনপির প্রার্থী হাজি আবুল কালাম মেয়র নির্বাচিত হন। একই সালের ১৯ জুন প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয় এ পৌরসভায়। সে হিসাবে গত বছরের ১৯ জুন এ পৌরসভার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। এই পৌরসভায় ১৮টি কেন্দ্রের মধ্যে ভোটার ছিল ৪৬ হাজার ২২০ জন।

 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর