শিরোনাম
প্রকাশ : ১৪ মে, ২০২০ ১৬:১৪
প্রিন্ট করুন printer

জামানত ছাড়াই তিন লাখ টাকা ঋণ পাবেন প্রবাসী

অনলাইন ডেস্ক

জামানত ছাড়াই তিন লাখ টাকা ঋণ পাবেন প্রবাসী
ফাইল ছবি

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। এই করোনা দুর্যোগের শিকার হয়েছেন বিদেশে থাকা লাখ লাখ বাংলাদেশি প্রবাসী। দিনের পর দিন লকডাউন তাদের বেঁচে থাকাই কঠিন করে তুলছে। কর্মহীন হয়ে পড়ায় অনেকে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

এমন পরিস্থিতিতে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব কুয়েত, বাহরাইনসহ বেশ কয়েকটি দেশ থেকে প্রবাসীদের নিজ নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য চাপ বাড়ছেই। 

প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দুই থেকে তিন লাখ প্রবাসীকে দেশে ফিরে আসতে হতে পারে মনে করছেন মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা। এসব প্রবাসী যেন দেশে ফিরে আসার পর কোনো ধরনের কষ্টে না থাকেন বা বেকার না থাকেন,  সেজন্য সহজ শর্তে তাদেরকে মধ্যে ঋণ দেওয়া হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

প্রবাসীকল্যাণ সচিব ড.আহমদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন,‌ যেসব প্রবাসীর রেমিট্যান্সের টাকায় দেশের অর্থনীতি চাঙ্গা, তাদের জন্য সহজ শর্তে ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রবাসীকল্যাণ ব্যাংক থেকে এসব ঋণ দেওয়া হবে। প্রবাসীরা যেন কোনো ধরনের সংকটের মধ্যে না পড়েন সেজন্য সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ রয়েছে।

ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, সহজ শর্তে এই টাকা থেকে তাদেরকে ঋণ দেওয়া হবে। যেন তারা টাকাগুলো দিয়ে দেশে কিছু একটা করতে পারেন। প্রাথমিকভাবে ২-৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে। সুদের হার ২ থেকে ৫ শতাংশের মধ্যে। আর কোনো জামানত ছাড়াই তিন লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারবেন তারা।

ঋণ প্রদানের পুরো বিষয়টি তদারকি করবে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক। ঋণ দেওয়া ও আদায়ের বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করবেন তারাই। এ কাজে স্বচ্ছতার জন্য ঋণ গ্রহীতাকে অবশ্যই বিদেশ থেকে ফেরত আসার প্রমাণ দিতে হবে বলে জানান ড. সালেহীন।


বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৪৬
প্রিন্ট করুন printer

অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ছাড়া কেউ টিকা পাবে না : খুরশীদ আলম

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ছাড়া কেউ টিকা পাবে না : খুরশীদ আলম
অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম

অনলাইন রেজিস্ট্রেশন (নিবন্ধন) ছাড়া কেউ করোনা (কোভিড-১৯) টিকা পাবে না বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিনেশন অনলাইন রেজিস্ট্রেশন বিষয়ক এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি।

সাংবাদিকদের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, ডিজিটাল ভ্যাকসিন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ‘সুরক্ষা’তে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন ছাড়া টিকা দেয়া হবে না। রেজিস্ট্রেশনের বাইরে টিকা দেয়াকে আমরা নিরুৎসাহিত করছি। আমাদের এ ডাটাগুলোকে সংরক্ষণ করতে হবে, অ্যানালাইসিস করতে হবে।  অনলাইনের এ তথ্যগুলোকে পরবর্তীতে অনেকগুলো কাজে আমাদের লাগাতে হবে।

কেন্দ্র পরিবর্তন করে টিকা দেওয়ার সুযোগ থাকছে না জানিয়ে স্বাস্থ্যের ডিজি বলেন, রেজিস্ট্রেশন অনুযায়ী আমরা কেন্দ্রে টিকা পাঠাবো। সেক্ষেত্রে কেন্দ্র পরিবর্তন করে টিকার সুযোগ দিলে অনেক টিকা নষ্ট হবে। নির্ধারিত তারিখ ও কেন্দ্র অনুযায়ী টিকা নেওয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ করেন অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ২৭ জানুয়ারি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন বলে ব্রিফিংয়ে জানান তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমদ পলক।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৪৫
প্রিন্ট করুন printer

ভারতের পদ্মশ্রী সম্মাননায় ভূষিত দুই বাংলাদেশি

অনলাইন ডেস্ক

ভারতের পদ্মশ্রী সম্মাননায় ভূষিত দুই বাংলাদেশি
লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির ও সনজীদা খাতুন

ভারতের পদ্মশ্রী সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন বাংলাদেশের দুই গুণী। তারা হলেন সনজীদা খাতুন ও লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির (বীরপ্রতীক)। 

আজ সোমবার ভারতীয় দূতাবাসের একটি সূত্র গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।  

সনজীদা খাতুন একাধারে রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী, লেখক, গবেষক, সংগঠক, সংগীতজ্ঞ ও শিক্ষক। তিনি বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ছায়ানটের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও বর্তমানে সভাপতি। 

আর লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতাযুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে বীরপ্রতীক খেতাব প্রদান করে। 

ভারতের সর্বোচ্চ অসামরিক পুরস্কার হিসেবে ১৯৫৪ থেকে প্রতিবছর প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে পদ্মভূষণ, পদ্মবিভূষণ ও পদ্মশ্রী পুরস্কার দেওয়া হয়। এসব পুরস্কারের মাধ্যমে ব্যক্তিবিশেষ ও সংগঠনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য ও ব্যতিক্রমী সাফল্যগুলোর স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

 
  
 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৫৮
প্রিন্ট করুন printer

করোনা পরবর্তী শারীরিক জটিলতায় প্রাণ গেল এএসপি তন্বীর

অনলাইন প্রতিবেদক

করোনা পরবর্তী শারীরিক জটিলতায় প্রাণ গেল এএসপি তন্বীর

কোভিড-১৯ পরবর্তী শারীরিক জটিলতার কারণে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) ইসরাত জাহান তন্বী মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। 

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৩২ বছর। তিনি ১১ এপিবিএন, উত্তরাতে কর্মরত ছিলেন। 

তার মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজীর আহমেদ। আজ সোমবার পুলিশ সদর দপ্তর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশ পুলিশের ৩৪তম বিসিএস ব্যাচের মেধাবী এই কর্মকর্তা সরকারি দায়িত্ব পালনকালে সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। তিনি করোনাকে জয় করে অর্পিত দায়িত্ব পালনের জন্য পুনরায় কাজে যোগ দেন। কিন্তু করোনার ভয়াল থাবায় তার ফুসফুস সংক্রামিত হয়ে যায়। করোনা চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হলেও পরবর্তী সময়ে একে একে তার শরীরে নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিতে থাকে। অবস্থার অবনতি হলে সর্বশেষ গত ১৬ জানুয়ারি তাকে আসগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গতকাল সকাল থেকে অবস্থার অবনতি হতে থাকলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানেই আজ বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে এএসপি ইসরাত জাহান তন্বী শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। 

ইসরাত জাহান তন্বী ২০১৬ সালে ৩৪তম বিসিএসের মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। ১১ এপিবিএন, উত্তরাতে যোগদানের পূর্বে তিনি মানিকগঞ্জ জেলায় সহকারী পুলিশ সুপার (প্রবেশনার) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৫৪
প্রিন্ট করুন printer

দেশে কোটিপতির বাম্পার ফলন: রুমিন ফারহানা

অনলাইন ডেস্ক

দেশে কোটিপতির বাম্পার ফলন: রুমিন ফারহানা
রুমিন ফারহানা। ফাইল ছবি

বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেছেন, ‌‘লুটের টাকার একটা বড় অংশ বিদেশে পাচার হয়ে তৈরি হয় বেগমপাড়া কিংবা সেকেন্ড হোম। গত এক যুগের জানা-অজানা লুটের ফল হয়েছে বাংলাদেশে কোটিপতির বাম্পার ফলন। ২০০৯ সালের ২১ হাজার ৪৯২ জন কোটিপতি ২০২০ সালে দাঁড়িয়েছে ৮৭ হাজার ৪৮৮ জনে। ব্যাংকের এই হিসাবের বাইরে আছে আরও বহু কোটিপতি। বিশ্বে ২৫০ কোটি টাকার বেশি সম্পদের মালিক হিসেবে অতি ধনী বৃদ্ধির হারে বাংলাদেশ প্রথম আর ধনী বৃদ্ধির হারে বাংলাদেশ তৃতীয়, কিন্তু বিশ্বে দরিদ্র মানুষের সংখ্যায় বাংলাদেশ পঞ্চম।’

আজ সোমবার জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রুমিন বলেন, ‘সরকারের এযাবৎকালের সব ব্যর্থতা ছাড়িয়ে গেছে করোনাকালীন ব্যর্থতা। শুরু থেকে করোনা পরীক্ষা, মাস্ক, পিপিই, হাসপাতালে শয্যা, অক্সিজেন সরবরাহ, আইসিইউ, প্রণোদনাসহ সব ক্ষেত্রে দুর্নীতি আর অব্যবস্থাপনা এই কঠিন সময়কে কঠিনতর করেছে। পৃথিবীতে একমাত্র দেশ বাংলাদেশ, যেখানে নকল করোনা সার্টিফিকেট বিক্রি হয়েছে। এখন যুক্ত হয়েছে টিকা নিয়ে ব্যবসা।’

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৩৪
আপডেট : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৩৯
প্রিন্ট করুন printer

দেশে ঋণ খেলাপি তিন লাখ ৩৫ হাজার: অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে ঋণ খেলাপি তিন লাখ ৩৫ হাজার: অর্থমন্ত্রী
অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল সংসদে জানিয়েছেন, দেশের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে (অক্টোবর ২০২০ পর্যন্ত) খেলাপি ঋণগ্রহীতা তিন লাখ ৩৪ হাজার ৯৮২ জন। একশ কোটি টাকার খেলাপি গ্রাহকদের কাছ থেকে ঋণ আদায়ে তদারকি বৃদ্ধির জন্য ব্যাংকগুলোকে মনিটরিং সেল গঠনে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ঋণ আদায় উৎসাহিত করার জন্য পরিশোধিত সুদের উপর ঋণগ্রহীতাদের রিবেট প্রদানের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। আবার প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত খেলাপি গ্রাহকদের সহজ শর্তে ঋণ পুনঃতফসিল ও এককালীন এক্সিটের সুযোগ দেয়া হয়েছে। এছাড়া খেলাপি মামলাগুলো দ্রুত নিস্পত্তি করতে অভিজ্ঞ আইনজীবী নিয়োগসহ বিকল্প বিরোধ নিস্পত্তির মাধ্যমে আদালতের বাইরে বিরোধ নিস্পত্তি করে ঋণ আদায় হচ্ছে।

সোমবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদের একাদশ তথা শীতকারীন অধিবেশনে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তরে সরকার দলীয় এমপি অসীম কুমার উকিলের (নেত্রকোণা-৩) প্রশ্নের জবাবে এসব তথ্য জানান তিনি।

অর্থপাচার অনেকাংশে কমে যাবে: 

এ কে এম রহমতুল্লাহর প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল বলেন, দেশ থেকে অবমূল্যায়ন বা অতিমূল্যায়নের মাধ্যমে অর্থপাচারের কিছু অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এটি খতিয়ে দেখছে। যেসব ক্ষেত্রে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। সেসব ক্ষেত্রে আইনানুগ ব্যবস্থা চলমান রয়েছে। এ সময় অর্থপাচার বন্ধে সরকারের নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি আরো বলেন, এসব পদক্ষেপের ফলে বৈদেশিক মুদ্রা বা অর্থপাচার অনেকাংশে কমে যাবে।

করোনার টিকার জন্য বরাদ্দ এক হাজার ৪৫৫ কোটি

মামুনুর রশীদ কিরণের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, করোনার টিকা কেনার জন্য এ পর্যন্ত এক হাজার ৪৫৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

রাজস্ব আদায়ে অর্জন ৩২.৮৭ শতাংশ 

জাতীয় পার্টির শামীম হায়দার পাটোয়ারির প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল জানান, ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্র তিন লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত রাজস্ব আদায় হয়েছে এক লাখ ৮ হাজার ৪৭১ কোটি ৭১ লাখ টাকা। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় অর্জন ৩২.৮৭ শতাংশ।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এই বিভাগের আরও খবর