১১ নভেম্বর, ২০২২ ১৯:৫৫

আগুন সন্ত্রাসের হোতা কারা দেশবাসী জানে: রিজভী

অনলাইন ডেস্ক

আগুন সন্ত্রাসের হোতা কারা দেশবাসী জানে: রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, গত রবিবার জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে অগ্নিসন্ত্রাস করে পেট্রোল বোমা দিয়ে অথবা অগ্নিসংযোগ করে সাধারণ মানুষকে হত্যা করেছে আন্দোলনের নামে। এ সাধারণ মানুষের গায়ে কেউ হাত দিলে তাদের রেহাই নেই, তাদের রক্ষা নেই। কিন্তু দেশবাসী জানে আগুন সন্ত্রাসের হোতা কারা।  

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।  

রিজভী বলেন, জনগণের দল বিএনপি নিয়মতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে বিশ্বাসী। বহু প্রমাণ রয়েছে- আগুন সন্ত্রাস করেছে আওয়ামী লীগের লোক, আওয়ামী লীগের এমপি ও গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা। বিএনপির শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে ভিন্নখাতে নিতে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে সরকার নিজেদের লোক ও গোয়েন্দা সংস্থাকে দিয়ে বাসে আগুন লাগিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরে বিএনপির ওপর দোষ চাপিয়েছে। এসব ঘটনা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। বর্তমানে আবার আগ বাড়িয়ে শেখ হাসিনা অগ্নিসন্ত্রাসের কথা বলছেন। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য রহস্যজনক। বিরোধীদলের আন্দোলন করার সময় আওয়ামী লীগ যে কাজটি করবে সেটাই তারা এখন বলছে। এ কাজ আওয়ামী লীগ বহুবার করেছে। এখন আবার করবে তা আগেই বলে দিচ্ছে।  

তিনি বলেন, দেশবাসীর মনে থাকার কথা ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের সময় আন্দোলন নস্যাৎ করতে ও বিএনপিকে ধ্বংস করার জন্য একদিকে প্রশাসন যন্ত্র অন্যদিকে হাইপার প্রপাগান্ডা চালানো হয় নিখুঁতভাবে। সরকার রাষ্ট্রযন্ত্রকে কব্জা করে যে প্রপাগান্ডা মেশিন বানিয়েছে তার দ্বারাই তারা অসত্য ও মনগড়া কথা বলে যাচ্ছে। ওরা যে নির্দয়-নিপীড়ক তার প্রমাণ- বিএনপির ৩৭ লাখ নেতাকর্মীর নামে এক লাখ সাত হাজার বানোয়াট মামলা দিয়ে তাদের ঘরছাড়া করা হয়। 

রিজভী বলেন, যারা একটি রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে এহেন নির্মমতা করতে পারে তাদের দ্বারাই বাসে আগুন, পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে বিএনপি নেতাকর্মীদের নামে মামলা দিয়ে আসামি করা যে সহজ সেটি বাংলাদেশসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও জানে। ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে নিজেদের সৃষ্ট পুড়ে যাওয়া মানুষের খবর প্রচার করে। আহতদের প্রতি সহানুভূতির চেয়েও বার্ন ইউনিটকে শুটিং স্পটে পরিণত করাই যেন তাদের মুখ্য উদ্দেশ্য। কারণ আন্দোলনকারীদের ওপর দায় চাপাতেই এ বোমা সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটিয়েছে আওয়ামী সরকার। আর এক্ষেত্রে দলদাস মিডিয়া দিয়ে বানোয়াট সব খবর প্রচার করা হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/এএ

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর