শিরোনাম
প্রকাশ : ৩১ জানুয়ারি, ২০১৬ ১৪:১৮
আপডেট : ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১২:৪৩

প্রয়াত জিয়াউর রহমানকেই প্রশ্ন করুন রিজভী

প্রভাষ আমিন

প্রয়াত জিয়াউর রহমানকেই প্রশ্ন করুন রিজভী

তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা হয়েছে। আদালত তার বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন। সে সমন খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসার সামনে সাঁটিয়ে দেওয়া হয়েছে। আইনজীবী ও আওয়ামী লীগ নেতা মমতাজউদ্দিন আহমেদ রীতিমতো আটঘাট বেঁধে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নিয়ে মামলাটি করেছেন। তাই যত হালকা রাজনৈতিক মামলা মনে হচ্ছে, ব্যাপারটা তত সরল নয়। বিএনপি নেতারা এখন বলছেন, খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখতেই ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এ মামলা দেওয়া হয়েছে। আমি তাদের আশঙ্কার সঙ্গে পুরোপুরি একমত। কিন্তু সেই ষড়যন্ত্রের ফাঁদ যে খালেদা জিয়া নিজেই পেতেছেন। পাকিস্তান যখন একাত্তরে গণহত্যার দায় অস্বীকার করছে, তখন খালেদা জিয়া মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে, শহীদদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন; তখনই পরিষ্কার হয় ষড়যন্ত্রটা। তাও আমি বিশ্বাস করিনি। ভেবেছিলাম তিনি মুখ ফসকে বলে ফেলেছেন। নিশ্চয়ই বিএনপির অন্য নেতারা, ‘খালেদা জিয়া এটা বলতে চাননি,’ ‘পত্রিকাগুলো তার বক্তব্যকে ভুলভাবে উদ্ধৃত করেছে,’ ‘টিভিতে তার বক্তৃতার খণ্ডাংশ প্রচার করেছে’— ইত্যাদি বলে খালেদা জিয়ার ভুলটা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করবেন। কিন্তু যখন দেখলাম চারদিকে হুক্কা হুয়া, খালেদা জিয়ার বক্তব্যের ধ্বনি প্রতিধ্বনিত হচ্ছে চারপাশে, ৪৪ বছর পর যেন বিএনপি নেতাদের ঘুম ভেঙেছে, তারা সবাই ইতিহাসের বইয়ের ধুলা ঝেড়ে মনোযোগী পাঠক হয়ে গেছেন। এমনকি বিএনপি নেতা গয়েশ্বরের কথাও আমি অত ধরিনি। এখন দেখছি ‘সব শিয়ালের এক রা’। মেজর হাফিজের মতো বীর মুক্তিযোদ্ধাও যখন বুঝতে পারছেন না, খালেদা জিয়া কী এমন বলেছেন যে দেশ রসাতলে যাচ্ছে; তখন আর কার কাছে কী আশা করব। মেজর হাফিজ বলেছেন, ‘যিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানিদের হাতে দুই সন্তানসহ ছয় মাস বন্দী থাকলেন, নির্যাতন ভোগ করলেন, তিনি আজ দেশদ্রোহী হয়ে গেলেন। আর যারা পালিয়ে বেড়ালেন, তারা হয়ে গেলেন মুক্তিযোদ্ধা।’ হায় এই কথা মেজর হাফিজ বলছেন! সবিনয়ে একটা ছোট্ট প্রশ্ন করতে মন চায়। মেজর জিয়াউর রহমান যুদ্ধক্ষেত্র থেকে একাধিকবার তার পরিবারকে নেওয়ার জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের পাঠিয়েছিলেন। বেগম জিয়া কেন যাননি, কেন ক্যান্টনমেন্টে থেকে নির্যাতন সইলেন? যারা পালিয়ে বেড়িয়েছেন, তারা যদি মুক্তিযোদ্ধা না হন, তাহলে তো মেজর হাফিজকেও মুক্তিযোদ্ধার তালিকা থেকে খারিজ করে দিতে হবে। কারণ তিনি নিজেও একাত্তরে পালিয়েই বেড়িয়েছেন। পাকিস্তানের প্রশিক্ষিত সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা গেরিলা কায়দায় যুদ্ধ করেছেন পালিয়ে পালিয়েই। শুধু মেজর হাফিজ নন, এমাজউদ্দীন আহমদের মতো শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিও বলেছেন শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্ক আছে। আর এর আগে বাবু গয়েশ্বর রায় গুনে গুনে ৩০ লাখ শহীদের নাম প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন। বিএনপি নেতারা হঠাত্ করেই এত ইতিহাসপ্রেমিক আর মুক্তিযোদ্ধাপ্রেমিক হয়ে গেছেন যে তারা বলছেন, সরকার ২ লাখ ৭৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারকে ভাতা দেয়। তালিকা করে বাকি ২৭ লাখ ২৫ হাজার পরিবারকেও ভাতা দিতে হবে। আবার আমার প্রশ্ন, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় জিয়াউর রহমান ‘জেড’ ফোর্সের কমান্ডার ছিলেন। যুদ্ধের পর তিনি জীবিতদের মধ্যে সর্বোচ্চ ‘বীরউত্তম’ খেতাব পেয়েছেন। যুদ্ধের পর জিয়াউর রহমান উপ-সেনাপ্রধান ছিলেন, আরও পরে প্রেসিডেন্ট ছিলেন। কই তিনি তো কখনো একাত্তরে শহীদের সংখ্যা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেননি, শহীদদের তালিকা প্রণয়নের উদ্যোগ নেননি। বরং জিয়াউর রহমান তার লেখায়, বলায় সবসময় ৩০ লাখ শহীদের কথাই বলেছেন। ’৯১ সালের পর খালেদা জিয়া তিনবার দেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। স্বাধীনতা দিবস আর বিজয় দিবসের সব বাণীতে তো তিনি ৩০ লাখ শহীদের প্রতিই শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে তার অসংখ্য বক্তৃতায়ও তো ৩০ লাখ শহীদের কথা আছে। তখন তো তার মনে কোনো সংশয় ছিল না।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় গঠন করেছেন খালেদা জিয়া। ধন্যবাদ তাকে। কিন্তু তিনি কখনো শহীদদের তালিকা করার উদ্যোগ নিয়েছেন বলে শুনিনি। শহীদদের সংখ্যা কমাতে পারলে পাকিস্তানি হানাদারদের নৃশংসতা একটু কম করে দেখানো যায়। এ ছাড়া তো এই বিতর্কের আর কোনো উপযোগিতা নেই। হায়, বীরউত্তম জিয়াউর রহমানের দল আজ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে পাকিস্তানি ষড়যন্ত্রের সবচেয়ে বড় পার্টনার!

তবে এসবই পুরনো প্রসঙ্গ। আজ লিখতে বসেছি আসলে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের দাপুটে ছাত্রনেতা, বর্তমানে বিএনপির আবাসিক নেতা রুহুল কবির রিজভী আহমেদের একটি বক্তব্য পড়ে। তিনি বলেছেন ‘শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তিযুদ্ধ দেখেননি, কীভাবে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে তা তিনি শুনেছেন। যুদ্ধে যাদের ভূমিকা নেই, তাদের জাতির পিতা বা স্বাধীনতার ঘোষক চাইলেই বানানো যায় না।’ তার এই বক্তব্য পড়ে আমি হাসব, কাঁদব, প্রতিবাদ করব না জবাব দেব; বুঝতে পারছি না। আমি শুধু রিজভী আহমেদকে বলছি, তিনি যদি তার দলের প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমানের সামনে এই কথাটি বলতে পারতেন এবং তার কাছে কয়েকটি প্রশ্ন করতে পারতেন তাহলে সব সমস্যার সমাধান হয়ে যেত। একাত্তরের ২৭ মার্চ চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে কেন জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধ না দেখা ‘আওয়ার গ্রেট লিডার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’—এর পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেছিলেন? একাত্তরের ১০ এপ্রিল মেহেরপুরের আম্রকাননে গঠিত প্রবাসী সরকারের রাষ্ট্রপতি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক। জেনারেল এম এ জি ওসমানী ছিলেন প্রধান সেনাপতি। বঙ্গবন্ধুর নামে প্রবাসী সরকার এবং মুক্তিযুদ্ধ পরিচালিত হয়েছে। জিয়াউর রহমান কেন মুক্তিযুদ্ধ না দেখা একজন ব্যক্তির নামে মুক্তিযুদ্ধ করলেন? যুদ্ধের পর কেন তিনি জাতির পিতার কাছ থেকে বীরউত্তম পদক গ্রহণ করলেন? কেন মুক্তিযুদ্ধে কোনো ভূমিকা না থাকা একজন ব্যক্তির অধীনে উপ-সেনাপ্রধানের দায়িত্ব পালন করলেন? একবারও কেন তিনি প্রতিবাদ করলেন না। জিয়াউর রহমান কেন সাপ্তাহিক বিচিত্রায় ‘একটি জাতির জন্ম’ প্রবন্ধে মুক্তিযুদ্ধ না দেখা, মুক্তিযুদ্ধে কোনো ভূমিকা না রাখা শেখ মুজিবুর রহমানকে কেন জাতির পিতা হিসেবে অভিহিত করেছিলেন? কেন? কেন? কেন?  

লেখক : সাংবাদিক, কলামিস্ট।


আপনার মন্তব্য