শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ জুলাই, ২০২০ ০৭:১৩
আপডেট : ১৬ জুলাই, ২০২০ ১০:১৪

শেখ হাসিনার কারাবরণ; দেশকে বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্র

এফ এম শাহীন

শেখ হাসিনার কারাবরণ; দেশকে বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্র
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি

১৬ জুলাই, ২০০৭ সাল । বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কলঙ্কিত দিন । ড. ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের নামে এইদিনে গ্রেফতার করে শেখ হাসিনকে। দেশকে বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠা কিছু লোভি সেনাকর্মকর্তা , রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের চূড়ান্ত টার্গেটে পরিণত হয় বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের একতরফা সংসদ নির্বাচন ও ষড়যন্ত্রের নীল নকশাকে সামনে রেখে উদ্ভূত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি দেশে জারি করা হয় জরুরি অবস্থা। পরে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আবরণে গঠিত হয় সেনা নিয়ন্ত্রিত ‘অন্তর্বর্তীকালীন সরকার’। 

ওয়ান-ইলেভেনের অগণতান্ত্রিক ‘অন্তর্র্বতীকালীন সরকার’ মিথ্যা মামলায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করে। এ সময় কারাগারের অভ্যন্তরে শেখ হাসিনা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন বিদেশে চিকিৎসার জন্য তাকে মুক্তি দেওয়ার দাবি ওঠে সর্ব মহল থেকে। ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের ক্রমাগত চাপ, আপোসহীন সংগ্রাম ও অনড় দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। দীর্ঘ প্রায় ১১ মাস কারাভোগের পর ২০০৮ সালের ১১ জুন সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগার থেকে মুক্তি পান বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। 

ত্রিশ লাখ শহীদের রক্ত ও লাখ লাখ মা-বোনের নির্মম নির্যাতন ও আত্মত্যাগের বিনিময়ে পাওয়া সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে বাঙালির উল্টো পথে যাত্রা শুরু হয় ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট কালো রাতে পৃথিবীর ইতিহাসের এক নির্মম হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে দেশকে বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্র সফল করে। সেই রাতে নির্মমভাবে প্রাণ হারিয়েছিলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল ও ১০ বছরের শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামালসহ অনেকে। সেদিনের সেই ভয়াল বীভৎসতা স্মৃতিতে আনলে পৃথিবীর সবচেয়ে নিকৃষ্ট খুনিও বোধ হয় আঁতকে উঠবে।

জাতীয় চারনেতা, অসংখ্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতাদের হত্যার মধ্য দিয়ে বাঙালির মীরজাফর খুনি মোস্তাক ও মেজর জিয়া গংরা মহান মুক্তিযুদ্ধের অর্জন বাংলাদেশকে নব্য পাকিস্তানে পরিণত করে । সেই নিকষ কালো সময়ে বাংলাদেশ চলতে থাকে উল্টোপথে, উল্টো রথে। হত্যা করা হয় বাঙালির মুক্তির স্বপ্ন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। স্বাধীনতা বিরোধীরা চলে আসে ক্ষমতার কেন্দ্রে। জাতির স্বাধীনতা সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধ তথা স্বাধীন বাংলাদেশকে করা হয় ক্ষত-বিক্ষত।

কিন্তু জাতির পিতার আদর্শে বলীয়ান আওয়ামী লীগের দেশপ্রেমিক নেতাকর্মী ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া যেকোনও মূল্যে। হাজার নেতাকর্মীর জীবনদান ও নির্মম নির্যাতন পরও তারা স্বপ্ন দেখে শেখ হাসিনাকে ঘিরে। তারা বুঝে নেয় বাঙালির অধিকার ও দেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ফিরিয়ে আনতে হলে একমাত্র আশার বাতিঘর মুজিব কন্যা শেখ হাসিনা। স্বজন হারানোর আকাশ সমান বেদনা বুকে ধারণ করে বাঙালির অধিকার ও পিতার স্বপ্নের স্বদেশ নির্মাণে দেশে আসেন শেখ হাসিনা ।

বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং মানুষের ভাগ্যোন্নেয়নের ইতিহাস বিনির্মাণের সূচনাক্ষণ ১৯৮১ সালে ১৭ মে । শেখ হাসিনার ফিরে আসার মধ্য দিয়ে প্রত্যাবর্তন হয় বাংলাদেশের। ১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগের দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তার হাতে তুলে দেওয়া হয় আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব, নির্বাচিত করা হয় সভাপতি। সামরিক শাসকদের রক্তচক্ষু ও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ওই বছরের ১৭ মে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন তিনি, শুরু করেন গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রাম। আর সে কারণেই ক্ষমতালিপ্সু শাসকগোষ্ঠীর রোষানলে পড়েন তিনি। বারবার কারান্তরীণ করা হয় তাঁকে, হত্যার জন্য কমপক্ষে ১৯ বারের অধিক সশস্ত্র হামলা চালানো হয়। 

দেশের মাটিতে পা দিয়ে লাখ লাখ জনতার সংবর্ধনার জবাবে শেখ হাসিনা সেদিন বলেছিলেন, ‘সব হারিয়ে আমি আপনাদের মাঝে এসেছি; বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথে আমার আদর্শ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে জাতির জনকের হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণে আমি জীবন উৎসর্গ করতে চাই।’ তার আগমন উপলক্ষে স্বাধীনতার অমর স্লোগান ‘জয় বাংলা’ ধ্বনিতে প্রকম্পিত ছিল ঢাকার আকাশ-বাতাস। জাতির পিতার আদর্শের কর্মী ও জনতার কণ্ঠে বজ্রনিনাদে ঘোষিত হয়েছিল ‘হাসিনা তোমায় কথা দিলাম- পিতৃ হত্যার বদলা নেবো’। 

 তারপর শত বাধা-বিপত্তি-প্রতিকূলতা ও হত্যার হুমকি উপেক্ষা করেও শেখ হাসিনা ভাত-ভোট ও সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার আদায়ের জন্য অবিচল থেকে সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন। তারই ফল হিসেবে ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ২১ বছর পর ফের আওয়ামী লীগকে এনে দিয়েছেন জয়, গঠন করেছেন সরকার। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশের জনগণ অর্জন করেছে গণতন্ত্র ও বাকস্বাধীনতা। বাংলাদেশ পেয়েছে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা। শেখ হাসিনার অপরিসীম আত্মত্যাগের ফলেই বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছে। জাতির পিতার খুনিদের বিচার হয়েছে মুজিবের রক্তে ভেজা মাটিতে।

মৌলবাদ, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় শেখ হাসিনা সবসময়ই আপসহীন। দুর্নীতির বিরুদ্ধে এক লৌহমানবীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে লড়াই করে যাচ্ছেন ঘরে-বাইরে। ২০০৯ সালে সরকার পরিচালনায় দায়িত্ব নিয়ে তার সরকার ১৯৭১ সালে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল স্থাপনের জন্য আইন প্রণয়ন করে। এই আইনের আওতায় স্থাপিত ট্রাইবুনাল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করেছে এবং রায় কার্যকর করা হচ্ছে।

শুধু তাই নয়, তিন মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সফলভাবে দায়িত্ব পালনের পর এখন পার করছেন চতুর্থ মেয়াদ। আশির দশকে যেমন তিনি ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করেছেন দলকে, তেমনি একটি অনুন্নত দেশকে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করতেও রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। যে কারণে জাতীয়-আন্তর্জাতিক অনেক পুরস্কার আর স্বীকৃতি রয়েছে তার ঝুলিতে।

কিন্তু বাংলাদেশের এই অর্জন ও মুজিব কন্যা শেখ হাসিনার সফলতার যাত্রা মেনে নিতে পারছে না দেশবিরোধী অপশক্তি। স্বাধীনতাবিরোধী ও বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা নীল নকশা করে তাঁকে থামাতে চায় । ঘরে-বাইরে শুরু হয়েছে শেখ হাসিনার সকল অর্জনকে ম্লান করে দেয়ার ষড়যন্ত্র । আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার প্রচেষ্টায় জামায়াত-বিএনপির সাথে যুক্ত হয়েছে মুখোশধারী নব্য আওয়ামী লীগের অনুপ্রবেশকারীরা। যে মুখোশ আজ উন্মোচন হচ্ছে মহামারী করোনাকালে। আর এদের আশ্রয় হয়ে উঠেছে রাষ্ট্র ও শেখ হাসিনার সাথে বিশ্বাসঘাতক কিছু দুর্নীতিবাজ আমলা, এমপি, মন্ত্রী। তারা আজ অর্থ, ক্ষমাতা ও নারীর মোহে উন্মাদ হয়ে তৈরি করছে পাপিয়া,শাহেদ ,মিঠুদের। তারা দুর্দিনের নেতাকর্মীকে দূরে ঠেলে দিয়ে, মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করে ঐতিহাসিক রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে পরগাছা আর স্বাধীনতা বিরোধীদের আশ্রয়স্থল করতে চায় ।  

তাই সতর্ক হওয়ার এখনই সময় । স্বাধীনতা বিরোধী জামাত- বিএনপির অপশাসন ও দুঃসময়ের বিরুদ্ধে লড়াই করা জাতির পিতার আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বলীয়ান ত্যাগি নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ওয়ান-ইলেভেনের বীর সেনানীদের অভিমান ভুলে আওয়াজ তুলতে হবে এই অপশক্তির বিরুদ্ধে। যেভাবে দাঁড়িয়েছিলেন সেনাবাহিনীর ট্যাঙ্ক আর মেশিন গানের সামনে শেখ হাসিনার মুক্তির জন্য। আপনাদের সাহস আর আপোসহীন সংগ্রামে সেদিন পিছু হটতে বাধ্য হয়েছিল মঈন- ফকরুদ্দীনরা। আজও দেশকে বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্রে একটি মহল সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ওয়ান ইলেভেনে দেখেছি অনেক তুখোড় নেতাদের আপোষকামিতা, দেখেছি ভিন্ন সুরে কথা বলতে।  যারা সেদিন জীবনের সোনালি সময় ছাত্রজীবনে নিজের ক্যারিয়ারের কথা না ভেবে যারা সেনাবাহিনীর ট্যাঙ্কের সামনে, গুলির মুখে মিছিল বের করে জয় বাংলা স্লোগান ধরে উচ্চস্বরে বলেছিল, শেখ হাসিনার মুক্তি চাই, জেলের তালা ভাঙবো-শেখ হাসিনাকে আনবো। সেই সকল বীর সেনানী ছাত্রনেতাদের বেশিরভাগই অবমূল্যায়নে, অপমানে রাজনীতি থেকে আজ যেন দূরে সরে যাচ্ছে। সুবিধাভোগীদের দাপটে সেই সকল আপোষহীন রাজপথের যোদ্ধারা কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। আজ তাদের কাছে আশার বাতি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে একমাত্র শেখ হাসিনা।

সময় এসেছে, সমৃদ্ধ দেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে আপনার হাত ধরে একটি পুনর্জাগরণের, যা দলের ভিতরে-বাইরে সকল ধরনের দুর্নীতি, অসততা ও অন্যায্যতা ভাসিয়ে নিয়ে যাবে। তাই আগামী দিনের সকল চ্যালেঞ্জকে মোকাবেলায় যারা সেদিন জীবনবাজি রেখে গেয়েছিলো শিকল ভাঙার গান। যারা দলের দুঃসময়ে জেল, জুলুম ,নির্যাতন সহ্য করেছে, দলের জন্য বিভিন্ন সময়ে ত্যাগ করেছে তারা এবার সঠিক মূল্যায়নের অপেক্ষায়, আপনার ইশারার অপেক্ষায়।

লেখক: সম্পাদক, ডেইলি জাগরণ ডটকম

সাধারণ সম্পাদক, গৌরব ’৭১

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর