Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৮:৪৯

লুটেরা ভয়ে আছে, জনগণ স্বস্তিতে

এফ এম শাহীন

লুটেরা ভয়ে আছে, জনগণ স্বস্তিতে
এফ এম শাহীন

বিগত কয়েকদিনের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে সচেয়ে আলোচিত ইস্যু ক্যাসিনো সমাচার।সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে অবৈধ ক্যাসিনোর সন্ধানে প্রথমে অভিযান চালায় র‌্যাব। এর মধ্যে ঢাকার ফকিরাপুলের ইয়ংমেনস ক্লাব ও ওয়ান্ডারার্স ক্লাবে ক্যাসিনো পাওয়া যায়। ইয়ংমেনস ক্লাবের ক্যাসিনোর ভেতর থেকে তরুণীসহ ১৪২ জনকে আটক করা হয়। নগদ ২০ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। এছাড়া বিপুল পরিমাণ ইয়াবা, মদ, বিয়ার জব্দ করা হয়। গ্রেফতার করা হয় ক্যাসিনোর সভাপতি যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে।
অপরদিকে যুবলীগের আরেক নেতা নেতা জি কে শামীমের অফিসে অভিযান চালিয়ে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করে র‌্যাব। এছাড়া নগদ এক কোটি ৮০ লাখ টাকা, ১৬৫ কোটি টাকার এফডিআর (স্থায়ী আমানত) চেক ও ১শ কোটি টাকার চেক উদ্ধার করা হয়। আর শামীমকে তার সাত দেহরক্ষীসহ আটক করা হয়।
এরপর ধানমণ্ডির কলাবাগান ক্রীড়াচক্রে অভিযান চালায় র‌্যাব। এখান থেকে জুয়া খেলার কয়েন, ভিন্ন ধরনের ইয়াবা, একটি বিদেশি পিস্তল, তিনটি গুলি, একটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতার করা হয় কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি ও কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শফিকুল আলম ফিরোজসহ ৫ জনকে।

দেখে মনে হতে পারে দেশটা এখন জুয়াড়িদের। আমাদের সমাজের এক ভয়াবহ চিত্র দেখছি আমরা! লুটেরাদের স্বর্গরাজ্য যেন আমার স্বদেশ। এই অপরাধের সাথে যুক্ত সমাজের ক্ষমতাধর দাপুটে কিছু নেতা ও সরকারের কিছু কর্তা ব্যক্তিরা জড়িত তা জাতির সামনে পরিষ্কার। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মাদক ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে এই অভিযানে সাধারণ মানুষ ভীষণ স্বস্তিতে আছে, ভয়ে আছে এই সিন্ডিকেটের সাথে যারা জড়িত এবং বিভিন্ন উপায়ে তাদের অপরাধকে প্রায় আইনস্মমত করতে সহযোগিতা করেছিল তারা।   

যাদেরকে আটক করা হয়েছে তাদের মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত বর্তমানের যুবলীগ নেতা খালেদ ভুঁইয়া ও জি কে শামীম এক সময় ফ্রিডম পার্টি ও যুবদলের নেতা ছিল। অথচ তাদের পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে এই অপরাধ সাম্রাজ্যের বাদশা করতে সহযোগিতা করেছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারন করা আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের প্রভাবশালী নেতারা! পদপদবি দিয়ে তাদের গডফাদারে পরিণত করেছেন। নিশ্চয় এমন খবরে আমরা ভীষণ অবাক হয়েছি তবে আমাদের থেকেও অবাক-বিস্মিত হয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। 

বাঙালির ইতিহাসের কালো অধ্যায় ৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করার পর ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া যে মানুষটি বার বার জীবনবাজি রেখে মৃত্যুর সামনে দাঁড়িয়ে বর্তমানের আওয়ামী লীগকে আগলে রেখেছেন, সাধারণ মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে মুক্তিযুদ্ধের শক্তিকে ক্ষমতায় এনেছেন বারবার । সেই মহান নেত্রী কতটুকু কষ্ট পেয়েছেন ভেবে দেখেছেন ? আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যখন বিশ্বদরবারে বাংলাদেশ তলাবিহীন ঝুড়ি তকমা কাটিয়ে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে, একজন সফল রাষ্ট্রনেতা হিসেবে বিশ্বব্যপি পরিচিতি ছড়িয়ে পড়ছে ঠিক তখন-ই তার সকল কাজকে, সকল অর্জনকে ম্লান করতে মরিয়া ঘরের কিছু আদর্শহীন নেতাকর্মী। দুর্নীতি ও মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কঠোর হুশিয়ারি থাকার পরও যারা ধৃষ্টতা দেখায় তাদের জন্য এই অভিযান নতুন বার্তা দেয় দেশবাসিকে। দুর্নীতি দমনের জন্য আমাদের বিবেকও জাগ্রত রাখতে হবে। জনগণ সচেতন না হলে সমাজের বিপদ বাড়ে বহুগুন।   

মনে পড়ে- বঙ্গবন্ধু লুটপাটকারিদের হুশিয়ার করে বলেছিলেন ‘বিদেশ থেকে ভিক্ষা করে আমাকে আনতে হয়, আর এই চোরের দল আমার দুঃখী মানুষের সর্বনাশ করে এভাবে লুটতরাজ করে খায়। আমি শুধু এমার্জেন্সি দিই নাই, এবারে প্রতিজ্ঞা করেছি, যদি ২৫ বছর এই পাকিস্তানি জালেমদের বিরুদ্ধে, জিন্নাহ থেকে আরম্ভ করে গোলাম মোহম্মদ, চৌধুরী মোহাম্মদ আলী, আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া খানের বিরুদ্ধে বুকের পাটা টান করে সংগ্রাম করে থাকতে পারি, আর আমার ৩০ লক্ষ লোকের জীবন দিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করতে পারি, তাহলে পারব না? নিশ্চয়ই ইনশাআল্লাহ পারব। এই বাংলার মাটি থেকে এই দুর্নীতিবাজ, এই ঘুষখোর, এই মুনাফাখোরী এই চোরাচালানকারীদের নির্মূল করতে হবে। আমিও প্রতিজ্ঞা নিয়েছি, তোমরাও প্রতিজ্ঞা নাও, বাংলার জনগণও প্রতিজ্ঞা গ্রহণ করো। আর না, অধৈর্য, সীমা হারিয়ে ফেলেছি। এই জন্য জীবনের যৌবন নষ্ট করি নাই। এই জন্য শহীদরা রক্ত দিয়ে যায় নাই। কয়েকটি চোরাকারবারি, মুনাফাখোর, ঘুষখোর দেশের সম্পদ বাইরে বাইর করে দিয়ে আসে, ...মানুষকে না খাইয়া মারে। উৎখাত করতে হবে বাংলার বুকের থেকে এদের। দেখি কত দূর তারা টিকতে পারে। চোরের শক্তি বেশি না ঈমানদারের শক্তি বেশি, সেটাই আজ প্রমাণ হয়ে যাবে।’ 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও দুর্নীতির বিরুদ্ধে তাঁর সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা পুনর্ব্যক্ত করেছেন। বলেছেন, দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এবং এর অর্জনসমূহ সমুন্নত রাখতে সরকার দুর্নীতি বিরোধী লড়াই অব্যাহত রাখবেন। তিনি বার বার হুশিয়ারি দিয়ে বলেছেন ‘সন্ত্রাসবাদ, দুর্নীতি ও মাদক নির্মূলের ক্ষেত্রে আমাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকবে।’  

সমাজকে এগিয়ে নিতে হলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে ঐক্যবদ্ধভাবে এই লড়াই অব্যাহত রাখতে হবে। পেছনে ফিরে আসার আর সুযোগ এই। আবারও বঙ্গবন্ধুর কাছে ফিরে যায়… স্বাধীনতার পঞ্চম বার্ষিকীতে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ১৯৭৫ সালের ২৬ মার্চ তাঁর জীবনের শেষ জনসভায় ভাষণ দেন বঙ্গবন্ধু। ওই ভাষণজুড়েও ছিল দুর্নীতির বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর দৃঢ় উচ্চারণ করে বলেন, ‘...আজ কে দুর্নীতিবাজ? যে ফাঁকি দেয় সে দুর্নীতিবাজ। যে ঘুষ খায় সে দুর্নীতিবাজ। যে স্মাগলিং করে সে দুর্নীতিবাজ। যে ব্ল্যাকমার্কেটিং করে সে দুর্নীতিবাজ। যে হোর্ড করে সে দুর্নীতিবাজ। যারা কর্তব্য পালন করে না তারা দুর্নীতিবাজ। যারা বিবেকের বিরুদ্ধে কাজ করে তারাও দুর্নীতিবাজ। যারা বিদেশের কাছে দেশকে বিক্রি করে তারাও দুর্নীতিবাজ। এই দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে আমাদের সংগ্রাম শুরু করতে হবে। আমি কেন ডাক দিয়েছি? এই ঘুণে ধরা ইংরেজ আমলের, পাকিস্তানি আমলের যে শাসনব্যবস্থা তা চলতে পারে না। একে নতুন করে ঢেলে সেজে গড়তে হবে।’ 

আজ যখন স্বাধীনতার ৫০ বছর ও বাঙালির জাগরণের জাদুকর বঙ্গবন্ধুর শতবর্ষ উদযাপনে প্রস্তুত সমগ্র বাঙালি। দুর্নীতিমুক্ত বৈষম্যহীন রাষ্ট্র গঠনে দিনরাত এক করে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তখন নতুন ষড়যন্ত্র উন্মাদনায় মেতে ওঠে কিছু মুখোশধারী ক্ষমতা লোভিরা। সকল অর্জনকে ম্লান করে দিতে চায় তারা। সম্প্রতি চালানো অভিযানে তাদের ভিত কম্পমান, তারা আজ দিশেহারা। তাদের পৃষ্ঠপোষকরাও প্রথমে হুঙ্কার দিলেও পরে তাদের অস্বীকার করে চলেছে বারবার।  

আমরা বিশ্বাস করি, কোন আদর্শহীন, চরিত্রহীন, উন্মাদ অর্থ -ক্ষমতা লোভি মানুষের কাছে ত্রিশ লাখ শহিদের বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ জিম্মি থাকতে পারে না। আর যত বড় বাঁধাই আসুক না কেন এই লড়াইয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জিততেই হবে। যদিও এই লড়াই ভীষণ কঠিন ও জটিল। আসুন বঙ্গবন্ধুর কন্যার সাথে থাকি নিরাপদ বাংলাদেশের জন্য। সমৃদ্ধ ও মর্যাদাশীল জাতি গঠনে এই লড়াইয়ের বিকল্প নেই।

মনে রাখবেন-একমাত্র মানুষের মিলিত প্রতিরোধই পারে এই অন্ধকারের বিরুদ্ধে লড়াইটা জারি রাখতে। মানবতার জন্য-মুক্তিযুদ্ধের জন্য- প্রগতির জন্য একত্রিত হোন। ভুলে যাবেন না- ভালো মানুষদের অনৈক্যের ফলাফলটা পাল্টে দিতে পারে সব ইতিহাস- সব অর্জন। আমরা ভাষা আন্দোলন করেছি, মুক্তিযুদ্ধ করেছি , স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন করেছি –যুদ্ধাপরাধীদের বিচারও করছি এবার জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতিবাজদের নিশ্চিহ্ন করবো.....জয় বাংলা। 

লেখক, সাধারণ সম্পাদক, গৌরব '৭১ , সংগঠক, গণজাগরণ মঞ্চ।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন 


আপনার মন্তব্য