শিরোনাম
প্রকাশ : ১৪ জুলাই, ২০২১ ১৮:৩৭
আপডেট : ১৪ জুলাই, ২০২১ ১৮:৫৩
প্রিন্ট করুন printer

জাতীয় বাজেট ২০২১-২২

বাজেটে তামাকজাত দ্রব্যের মূল্য ও কর প্রস্তাব নিয়ে কিছু কথা

অধ্যাপক ড. রুমানা হক

বাজেটে তামাকজাত দ্রব্যের মূল্য ও কর প্রস্তাব নিয়ে কিছু কথা
অধ্যাপক ড. রুমানা হক।
Google News

গত ৩০ জুন জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থ-বছরের বাজেট পাস হয়েছে। প্রতি বছরের মতো বাজেটে তামাকজাত দ্রব্যের মূ্ল্য ও কর নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। বাজেটে তামাকজাত দ্রব্যের মূ্ল্য ও কর নির্ধারণের লক্ষ্য হিসেবে ‘রাজস্ব আয় বৃদ্ধি ও তামাকের ব্যবহার কমিয়ে আনা’ উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু দেশের তামাক নিয়ন্ত্রণ বিশেষজ্ঞরা ও তামাকের অর্থনীতি নীয়ে কাজ করেন এমন অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এই মূ্ল্য ও করে এই দুটি লক্ষ্যের একটিও অর্জিত হবে না। বরং এতে বিপরীত ফল হবে এবং তামাক কোম্পানির মুনাফা বাড়বে। তামাকজাত দ্রব্যের মূ্ল্য ও কর নির্ধারণের বিচারে এবারের বাজেট সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে সবচেয়ে হাতাশার বলে মনে করছেন তারা।

বাজেটে নিম্ন ও মধ্যমস্তরের সিগারেটের দাম ও করহারে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। অর্থাৎ বিগত বছরের মূল্য ও কর বহাল রাখা হয়েছে। বাংলাদেশে সিগারেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে প্রায় ৭২ ভাগ মানুষ নিম্নস্তরের সিগারেট সেবন করে। নিম্ন ও মধ্যমস্তর মিলে ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ৮৪ ভাগ। অন্যদিকে উচ্চ এবং প্রিমিয়াম স্তরে ১০ শলাকা সিগারেটের দাম যথাক্রমে ৫ টাকা (৫.২%) এবং ৭ টাকা (৫.৫%) বৃদ্ধি করে ১০২ টাকা এবং ১৩৫ টাকা করা হয়েছে এবং উভয় স্তরেই ৬৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বহাল রাখা হয়েছে। এর ফলে শলাকা প্রতি সিগারেটের দাম বেড়েছে উচ্চ স্তরে মাত্র ৫০ পয়সা এবং প্রিমিয়াম স্তরে মাত্র ৭০ পয়সা। অথচ একইসময়ে মানুষের মাথাপিছু আয় বাড়ার পাশাপাশি মূল্যস্ফীতি এবং নিত্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য দ্রব্যের মূল্যও বেড়েছে। সেই বিবেচনায় নিম্ন ও মধ্যমস্তরে মূল্য না বাড়ানো এবং উচ্চ এবং প্রিমিয়াম স্তরে যৎসামান্য মূল্য বৃদ্ধির ফলে এসব তামাকজাত দ্রব্য আগের বছরের তুলনায় আরো সস্তা ও সহজলভ্য হয়েছে।

উপর্যুক্ত বাস্তবতায় সিগারেটের প্রকৃত মূল্য হ্রাস পেয়েছে। ফলে দেশে সিগারেট ব্যবহারের পরিমাণ বাড়বে এবং সিগারেট সস্তা ও সহজলভ্য হওয়ায় কিশোর-তরুণরা ধূমপান শুরু করতে উৎসাহিত হবে। একইসাথে বিড়ি এবং বহুল ব্যবহৃত ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্য জর্দা-গুলের দাম ও শুল্ক অপরিবর্তিত রাখায় নিম্ন আয়ের মানুষ বিশেষত নারীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়বে। ফলে তামাকজনিত রোগে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হারও বাড়বে। তামাক ব্যবহারজনিত রোগ ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ার ফলে দেশ বিপুল অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে পড়বে।

একটি বহুজাতিক তামাক কোম্পানির নিজস্ব হিসাব মতে ২০১৮ সালে তারা ২৮% মুনাফা অর্জন করে। যা অন্য কোনো ব্যবসাতেই সম্ভব না। ওই একই তামাক কোম্পানির নিজস্ব নথিতে দেখা যায়, ২০০৯ থেকে ২০১৮ এই ১০ বছরে তাদের উৎপাদন বেড়েছে দ্বিগুণ। কিন্তু একই সময়ে তাদের মুনাফা বেড়েছে পাঁচ গুণ। ত্রুটিপূর্ণ কর ব্যবস্থার কারণে এটি হচ্ছে। অথচ তামাক বিরোধীদের দাবি অনুযায়ী সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করলে সরকার অতিরিক্ত ৩ হাজার ৪০০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় অর্জন করতো যা করোনা মহামারি সংক্রান্ত ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় ব্যবহার করা সম্ভব হতো।

দেশের তামাক বিরোধী সংগঠনগুলো তামাকজাত দ্রব্যের ওপর সুনির্দিষ্ট করারোপের দাবিসহ তামাকজাত দ্রব্যের মূল্য ও কর প্রস্তাব প্রতি বছরের মত এ বছরেও সরকারের কাছে পেশ করেছিলো।

আসুন ২০২০-২১ অর্থবছরে তামাকের মূল্য ও কর, এবারের বাজেটে পাস হওয়া মূল্য ও কর এবংতামাক বিরোধী সংগঠনসমূহের পক্ষথেকে সরকারের কাছে পেসকৃত মূল্য ও কর প্রস্তাবের একটি তুলনামূলক চিত্র দেখে নিই।

অর্থনীতিবিদরা হিসাব করে দেখিয়েছেন, ২০২০-২১ অর্থবছরে সিগারেট খাত থেকে সরকারের সম্ভাব্য রাজস্ব আয় ২৭,১৮০ কোটি টাকা। ২০২১-২২ অর্থ বছরের জন্য তামাক বিরোধী সংগঠনের দেয়া প্রস্তাব অনুসারে সুনির্দিষ্ট কর আরোপ করলে এর পরিমাণ বেড়ে দাঁড়াতো ৩০,৫২০ কোটি টাকায় যা চলতি বছরের চেয়ে ৩,৩৪০ কোটি টাকা বেশি। বিপরীতে সরকার যে বাজেট পাস করেছে তাতে আয় হবে ২৭,৯৬০ কোটি টাকা। অর্থাৎ সুনির্দিষ্ট করের প্রস্তাব গ্রহণ না করায় সিগারেট থেকে সরকার ২,৫৬০ কোটি টাকা রাজস্ব হারাবে। তামাক বিরোধী সংগঠন ও তামাক নিয়ন্ত্রণ বিশেষজ্ঞগণ সবসময় তামাকজাত দ্রব্যের মূল্য বাড়ানোর দাবি জানিয়ে আসছে। অথচ নিম্ন ও মধ্যম স্তরের সিগারেটের মূল্য অপরিবর্তিত রাখায় এবং উচ্চ ও প্রিমিয়াম স্তরের মূল্য অতি সামান্য বাড়ানোয় মূল্যস্ফীতির সাথে তুলনা করলে এবারের বাজেটে তামাকজাত দ্রব্যের জন্য নির্ধারিত মূল্য চলতি অর্থবছরের তুলনায় ০.৭ শতাংশ কমে গিয়েছে । তামাক বিরোধী সংগঠনের প্রস্তাব মেনে নিলে এই মূল্য ২০.৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেতো।

বাংলাদেশে বর্তমানে তামাক ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৫০ শতাংশেরও বেশি মানুষ ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহার করেন। বাস্তবতা হলো মোট তামাক রাজস্বের ১ শতাংশেরও কম আসে ধোঁয়াবিহীন তামাক থেকে। সরকার ধারাবাহিকভাবে ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্য থেকে বাড়তি রাজস্ব আয়ের ব্যাপক সুযোগ হারাচ্ছে। এভাবে তামাক কোম্পানিকে সুবিধা প্রদান করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত তামাকমুক্ত বাংলাদেশ অর্জন সম্ভব নয়।

অন্যদিকে তামাক বিরোধী সংগঠনের প্রস্তাবিত পরিমাণে মূল্য ও কর নির্ধারণ এবং সুনির্দিষ্ট কর আরোপ পদ্ধতি অনুসরণ করা হলে ১১ লক্ষ প্রাপ্ত বয়স্ক ধূমপায়ী ধূমপান ছেড়ে দিতো এবং ৮ লক্ষ তরুণ নতুন করে ধূমপান শুরু করতে নিরুৎসাহিত হতো বলে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মতামত দিয়েছেন। পাশাপাশি ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহারকারীর সংখ্যাও উল্লেখযোগ্য হারে কমে আসতো। ২০২০-২১ অর্থবছরের হিসাব অনুসারে সিগারেট বিক্রির আনুমানিক পরিমাণ ৬৪০০ কোটি শলাকা। তামাক বিরোধী সংগঠনের প্রস্তাব বাস্তবায়ন করলে এই সংখ্যা কমে ৫৪০০ কোটি শলাকা হতো। পাশাপাশি দীর্ঘমেয়াদে ৯ লক্ষ ৭৪ হাজার মানুষকে মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব হতো।

এ বাজেটে তামাকজাত দ্রব্যের নির্ধারিত মূল্য ও করে লাভবান হবে তামাক কোম্পানি, সরকার হারাবে বাড়তি রাজস্ব আয়ের সুযোগ। লক্ষ লক্ষ মানুষের অকাল মৃত্যু, পঙ্গুত্ব এবং তামাকের নানাবিধ আর্থ-সামাজিক ও পরিবেশগত ক্ষতি অগ্রাহ্য করে তামাক ব্যবসা উৎসাহিত করার এই বাজেট সার্বিকভাবে চরম হতাশাজনক। একইসাথে প্রধানমন্ত্রীর ‘তামাকমুক্ত বাংলাদেশ’ ঘোষণার সাথে সাংঘর্ষিক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে একটি শক্তিশালী তামাক শুল্ক-নীতি গ্রহণের নির্দেশনা দিয়েছিলেন। কিন্তু পাঁচ বছর পেরিয়ে গেলেও উক্ত নির্দেশনার কোনো প্রতিফলন নেই।

তামাক ব্যবহারজনিত অসুস্থতা ও মুত্যু কমিয়ে আনা এবং রাজস্ব আয় বৃদ্ধির জন্য তামাকজাত দ্রব্যের মূল্য যৌক্তিক পরিমানে বৃদ্ধি এবং করারোপের পদ্ধতিতে পরিবর্তন প্রত্যাশিত হলেও আমরা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করলাম বাজেটে তার ন্যূনতম প্রতিফলন নেই। এবারের বাজেটে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং রাজস্ব আয় বৃদ্ধির বিষয়টি চরমভাবে উপেক্ষা করা হয়েছে এবং তামাক কোম্পানির মুনাফা বৃদ্ধির সুযোগ তৈরি করে দেওয়া হয়েছে।

করোনা মহামারীর আঘাতে দেশের স্বাস্থ্যখাতসহ সামগ্রিক অর্থনীতি অত্যন্ত নাজুক অবস্থার মধ্যে পড়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে অধূমপায়ীর তুলনায় ধূমপায়ীর কোভিড-১৯ সংক্রমণে মারাত্মকভাবে অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। তবে সুযোগ থাকা সত্ত্বেও তামাকপণ্যের ব্যবহার নিরুৎসাহিত করতে প্রস্তাবিত বাজেটে কোনো কার্যকর কর ও মূল্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি, যা সার্বিকভাবে জনস্বাস্থ্য ও তামাক বিরোধীদের জন্য হতাশাজনক।

বৃহত্তর জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা ও রাজস্ব আয় বৃদ্ধি বিবেচনায় ভবিষ্যতে সুনির্দিষ্ট করারোপ পদ্ধতির প্রবর্তন ও সকল তামাকজাত দ্রব্যের ওপর যৌক্তিক পরিমানে মূল্য ও কর নির্ধারণ করা হবে বলে আমরা প্রত্যাশা করি। পাশাপাশি সিগারেটের মূল্য স্তর ধারাবহিকভাবে কমিয়ে একটিতে নিয়ে আসা, বিভিন্ন ধরনের তামাকজাত দ্রব্যের মধ্যে মূল্য ও করের ব্যবধান কমিয়ে আনা, অত্যাধুনিক কর আদায় পদ্ধতি ও মনিটরিং ব্যবস্থার প্রবর্তনসহ নানা ইতিবাচক পরিবর্তনে উদ্যোগী হবে এবং  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নে সরকার অতিদ্রুত একটি কমপ্রিহেনসিভ তামাক কর পলিসি গ্রহণ করে তমাকজাত দ্রব্যের ওপর করারোপে একটি প্রত্যাশিত নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতি প্রতিষ্ঠা করবে যার মাধ্যমে বৃহত্তর জনস্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রাণঘাতি পণ্যটিকে নিয়ন্ত্রণের নীতি প্রতিষ্ঠিত হবে বলে আমরা আশা পোষণ করি।

লেখক : অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

বিডি প্রতিদিন/এমআই