শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৫ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৪ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:১২

হঠাৎ হকির নির্বাচন স্থগিত

ক্রীড়া প্রতিবেদক

হঠাৎ হকির নির্বাচন স্থগিত

আশঙ্কা ছিল। শেষ পর্যন্ত তাই ঘটল। ৮ এপ্রিল বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের নির্বাচন হচ্ছে না। কবে হবে তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। আসলে নির্বাচন ঘিরে যে উত্তাপ ছড়াচ্ছিল তাতে স্থগিত হওয়ার আভাসই পাওয়া যাচ্ছিল। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করেছে। এ ছাড়া উপায়ও ছিল না। কেননা আদালতের নির্দেশনায় তাদের এই কাজটি করতে হয়েছে। গতকালই ছিল প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। নির্বাচন স্থগিতের কারণে তা আর হতে পারেনি।

কথা হচ্ছে শেষ মুহূর্তে কী এমন কি ঘটল। যে কারণে বহু প্রতিক্ষীত হকির নির্বাচন বন্ধ হয়ে গেল। একজনের কাউন্সিলশিপ নিয়েই হঠাৎ এই ঘটনার সূত্রপাত। প্রথম বিভাগের দল শিশু কিশোর সংঘের কাউন্সিলরশিপ পেয়েছেন তারেক আদেল।

এ নিয়ে বিতর্ক ওঠার কথাও না। মো. ইউসুফ আলী ক্রীড়াঙ্গনের পরিচিত মুখই। বিশেষ করে হকিতে তার অবদানের কথা ভোলবার নয়। ঐতিহ্যবাহী আজাদ স্পোর্টিংয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই তিনি জড়িত।

নতুন খেলোয়াড় সৃষ্টির লক্ষ্য শিশু কিশোরের দেখভার করেছেন দীর্ঘদিন ধরেই একথা কারো অজানা নয়। যদি ছয় বছরই ধরা হয়। দেখা যাবে এই ক্লাবের হয়ে এন্টি ও রেজিস্ট্রেশন ফি জমা দিয়েছেন ইউসুফই। সে সবের প্রমাণ হিসেবে সব কাগজপত্রই তার হাতে আছে। এই ক্লাবের হয়ে কাউন্সিলর হয়েছেন তারেক। কিন্তু তার কাউন্সিলারশিপের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট করেছেন মোঃ সিকান্দার হায়াত রিটে উল্লেখ করা হয়েছে আইনগতভাবে তিনিই কাউন্সিলরশিপ পান। সেই ক্ষেত্রে তারেকের কাউন্সিলরশিপ বাতিল করা হোক। আদালত বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে নির্বাচন স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে। গতকাল এ কে এম মুমিনুল হক সাইদের উপস্থিতিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সাইদ সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও সহ-সভাপতি পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। যদিও তিনি সাধারণ সম্পাদক পদেই নির্বাচন করবেন তা অনেকটা নিশ্চিত। সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন স্থগিত নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়। এ জন্য তারা একটি মহলকেই দায়ী করে। এদিকে সাজেদ এ এ আদেল অবিলম্বে নির্বাচন করার দাবি জানিয়েছেন।


আপনার মন্তব্য