শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪৪

ইতিহাস গড়লেন মাবিয়া

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ইতিহাস গড়লেন মাবিয়া

এবার এসএ গেমসে দুজনকে ঘিরেই প্রত্যাশাটা ছিল বেশি। একজন আরচার রোমান সানা আরেকজন মহিলা ভারোত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্ত। মাবিয়া ২০১৬ সালে গৌহাটি গেমসে ভারোত্তোলনে প্রথম সোনা জিতে দেশকে চমকে দেন। কেননা যেখানে পুরুষ ভারোত্তোলকদের সোনা জেতাটাই স্বপ্নে পরিণত হয়েছিল। সেখানে মেয়েরা পারবে ভাবাই যায়নি। শেষ পর্যন্ত মাবিয়াই দেখিয়েছেন ভয়কে জয় করা সম্ভব। যেহেতু গতবার পেয়েছিলেন। তাই মাবিয়াকে ঘিরেই প্রত্যাশাটা ছিল বেশি। ফেডারেশনের কর্মকর্তা ও কোচও বলে যান তার সাফল্যের সম্ভাবনার কথা। মাবিয়া অবশ্য ততটা নির্ভার ছিলেন না। বলেছেন নানা প্রতিকূলতার কথা। তারপর আবার ৬৩ কেজি ওজনের বদলে ৭৬ কেজি ক্যাটাগরি বেছে নেন।

চার সোনা জেতার পর গেমসে যখন বাংলাদেশ থমকিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। তখন দৃষ্টি ছিল মাবিয়ার দিকে। এবারও বিজয়ের মঞ্চে উড়ালেন লাল-সবুজের পতাকা। আর এ থেকেই গেমস ইতিহাসে নতুন এক ইতিহাস গড়ে ফেললেন মাবিয়া। ১৯৮৪ সালে এসএ গেমস শুরু হওয়ার পর অ্যাথলেট শাহ আলম ১৯৮৫ ও ১৯৮৭ সালে টানা দুবার ব্যক্তিগত ইভেন্টে সোনা জেতেন। এবার তা স্পর্শ করলেন মাবিয়া। অবশ্য নারী শুটার শাহানারা পারভীন  ব্যক্তিগত ও দলগতভাবে টানা দুই গেমসে সোনা জিতেছিলেন। গতকাল মাবিয়া স্ন্যাচে ৮০ কেজি এবং ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১০৫সহ ১৮৫ কেজি ওজন তুলে সেরা হন মাবিয়া। পেছনে ফেলেন শ্রীলঙ্কার বিসি প্রিয়াজি ও নেপালের তারা দেবিকে। গোহাটি গেমসে সোনা জেতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাবিয়াকে ফ্ল্যাট উপহার দেন। মাবিয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে। চেষ্টা করব সাফল্য ধরে রাখতে। এবারও সোনা জিতে কথা রাখলেন মাবিয়া। সোনা জয়ের পর মাবিয়া বলেন, ‘শুরুতে ঠিকমতো ভার তুলতে পারছিলাম না। মনে হচ্ছিল পদকই পাব না। শেষের দিকে দর্শকদের অনুপ্রেরণায় ঘুরে দাঁড়ালাম।’ টানা দুই গেমসে সোনা জিতে মাবিয়া অপরিচিত থেকে হয়ে গেলেন তারকা ক্রীড়াবিদ।


আপনার মন্তব্য