শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ আগস্ট, ২০২১ ২২:৫৩

বাংলাদেশের অনুশীলনে নতুন দুই প্রবাসী

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বাংলাদেশের অনুশীলনে নতুন দুই প্রবাসী
দেশের দুই তারকা ফুটবলার জামাল ভূঁইয়া ও তপু বর্মণ অনুশীলনে ব্যস্ত
Google News

টুর্নামেন্ট মানেই লক্ষ্য শিরোপা। কিন্তু কোচ জেমি ডের টার্গেট ভিন্ন। ত্রিদেশীয় ফুটবল খেলতে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল কিরগিজস্থানে। ৫ সেপ্টেম্বরই ফিলিস্তিনির বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ জামাল ভূঁইয়াদের। কিরগিজ জাতীয় ও অনূর্ধ্ব-২৩ দলও খেলছে টুর্নামেন্টে। ২০০৩ সালে সাফে শিরোপা জেতার পর জাতীয় দলের আর সাফল্য নেই। কিরগিজস্তানে চ্যাম্পিয়ন হলে আসন্ন সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ উজ্জ্বীবিত হয়ে মাঠে নামতে পারত। ইংলিশ কোচ জেমির কথা চ্যাম্পিয়ন হতে কে-না চায়। তবে বিশকেকে আমি গুরুত্ব দেব খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সে। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে আমি ঝালাই করে সাফে যাত্রা করতে চাই। আমি যতটুকু বুঝেছি সাফে ব্যর্থতার কারণে বাংলাদেশের ফুটবলে এত হতাশা ও আক্ষেপ।

জেমি বলেন, টানা পাঁচ আসরে বাংলাদেশ টুর্নামেন্টে সেমিফাইনাল খেলতে পারেনি। শক্তিশালী দল হওয়া সত্ত্বেও এই ফল অবশ্যই হতাশার। আমার প্রশিক্ষণেও ব্যর্থ হয়েছে। এবার চ্যাম্পিয়ন হতে সেই রকম প্রস্তুতিটা নিতে চাই। সময় আছে আমার বিশ্বাস এরই মধ্যে গুছিয়ে নিতে পারব। নতুনদের ডাক দিয়েছি। নতুনভাবে দুজন প্রবাসীও দলে। চ্যালেঞ্জ নিয়েই এগুতে হবে। খেলবে বিশকেকে। অথচ জেমির চোখ এখন থেকেই সাফে।

কিরগিজস্থানে পৌঁছানোর পর রবিবারই প্রথম অনুশীলন করে তপুরা। গতকালকের প্রশিক্ষণে নতুনত্ব ছিল নতুনভাবে অন্তর্ভুক্ত হওয়া দুই প্রবাসী ফুটবলার নায়েম মো. তাহমিদ ইসলাম ও রাহবার ওয়াহেদ সেহরান খানের ক্যাম্পে যোগদান। কোচ জেমি দুজনকেই মাঠে নামিয়ে পরীক্ষা নিতে চান। যদি বেস্ট ইলেভেনে সুযোগ মিলে বাংলাদেশ দলে এক সঙ্গে চার প্রবাসীর দেখা মিলবে।

অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার কাছে সফরটি খুবই গুরুত্বের। অক্টোবরে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ। তিনি মনে করেন অতীতে যাই ঘটুক না কেন এবার সাফ জিততেই হবে। তা না হলে ফুটবলাররা মুখ দেখাতে পারবে না। কিরগিজস্তানে শুধু টুর্নামেন্ট নয়। এটি সাফ ফুটবলের বড় প্রস্তুতি। এখান থেকেই ভুলক্রটি শোধরাতে হবে। তপু বর্মণ বলেন, এবার রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ হবে। শীর্ষ দুই দল ফাইনাল খেলবে। সে ক্ষেত্রে আমাদের কাছে সব ম্যাচেরই গুরুত্ব রয়েছে। হার মানে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যাওয়া। গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো বলেন, নিজেদের ওপর আত্মবিশ্বাস রয়েছে। অতীত নিয়ে ভাবতে চাই না। এখন সামনে এগিয়ে যাওয়ার পালা। আমার বিশ্বাস কিরগিজস্তানের টুর্নামেন্ট থেকেই প্রস্তুতি নিতে পারব।

দেশে ফিরে ফের অনুশীলনে নামব। পুরোপুরি তৈরি হয়ে সাফ খেলোব।