শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ জানুয়ারি, ২০২১ ২২:২৩
আপডেট : ১৯ জানুয়ারি, ২০২১ ২২:৩০
প্রিন্ট করুন printer

দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ মেসি

অনলাইন ডেস্ক

দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ মেসি
লিওনেল মেসি। ফাইল ছবি

স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে লাল কার্ড দেখেছিলেন লিওনেল মেসি, যা ছিল সবার কাছে বিস্ময়। এবার মেসি–ভক্তদের জন্য এলো হতাশার খবর। দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ হলেন তিনি। রয়্যাল স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশন কম্পিটিশন কমিটি এই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।  

গত রবিবার রাতে স্প্যানিশ সুপার কাপের সেই ফাইনালের আগে বার্সেলোনার জার্সিতে ৭৫৩ ম্যাচ খেলেছেন মেসি। মাঠ থেকে সরাসরি কখনো তাকে উঠে যেতে হয়নি। ম্যাচ যখন হাত থেকে বেরিয়ে যায় তখন মেজাজ হারিয়ে বিলবাওয়ের এসিয়ের ভিয়ালিব্রেকে ঢুসা মেরে দেন মেসি। রেফারির চোখ প্রথমে তা এড়িয়ে যায়। পরে ভিএআর’র সাহায্য নিয়ে রেফারি তাকে লাল কার্ড দেখান।

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ


 
 
 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৫৯
প্রিন্ট করুন printer

‌অশ্বিনকে কেন ওয়ানডে ম্যাচে ফিরিয়ে আনা হবে না, প্রশ্ন গম্ভীরের!

অনলাইন ডেস্ক

‌অশ্বিনকে কেন ওয়ানডে ম্যাচে ফিরিয়ে আনা হবে না, প্রশ্ন গম্ভীরের!
ফাইল ছবি

৪০০ উইকেট ক্লাবের সদস্য হওয়ার পর রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে নিয়ে রীতিমতো ঝড় উঠেছে। টেস্ট ক্রিকেটে এমন পারফরম্যান্স করার পর কেন সেই ক্রিকেটারকে ওয়ানডে ম্যাচে ফিরিয়ে আনা হবে না?‌ বিরাট কোহলিদের কাছে এই প্রশ্নই এবার তুললেন সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর। 

তার কথায়, কেন অশ্বিনের নাম ওয়ানডে ক্রিকেটের জন্য ভাবা হবে না? এটাই আমাকে অবাক করে। সাড়ে তিন বছর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে শেষ ওয়ানডে খেলেছে অশ্বিন। তারপর তার কথা ভাবা হয়নি। শুধু টেস্ট ম্যাচ খেলেছে। সেখানে ভাল পারফরম্যান্সও করেছে। এটাইতো সেরা সময় তাকে ওয়ানডে টিমে ফিরিয়ে নেওয়ার।‌ 

অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পর এক সাক্ষাৎকারে অশ্বিন বলেছিলেন, টেস্ট ক্রিকেটের পাশাপাশি এবার ছোট ফরম্যাটে খেলা আমার লক্ষ্য। প্রথম লক্ষ্য, ঘরের মাঠে টি-২০ বিশ্বকাপে জাতীয় দলের হয়ে মাঠে নামা।‌ 

গম্ভীর আরও বলছেন, আইপিএল খেলে জাতীয় দলের হয়ে ওয়ানডে টিমে অনেকে ঢুকে পড়ছে। অশ্বিনতো আইপিএল নিয়মিত খেলছে। টি-২০ ক্রিকেটে যে ক্রিকেটার নিয়মিত খেলে চলেছে, তাকে কেন জাতীয় দলের হয়ে খেলানোর কথা ভাবা হবে না? টেস্টের পারফরম্যান্স করেও তো প্রমাণ করে দিয়েছে, এখনও ওর মধ্যে ভাল কিছু করার ইচ্ছা আছে। আর টেস্টে যে ক্রিকেটার ভাল পারফর্ম করে, সে যে কোনও ফরম্যাটে খেলে দিতে পারে। এটাই বরাবর শুনে এসেছি। আমাদের নির্বাচকরা কেন এভাবে ভাববেন না?


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৪২
প্রিন্ট করুন printer

আহমেদাবাদ টেস্টের পিচ নিয়ে বিস্ফোরক বিশেষজ্ঞেরা

অনলাইন ডেস্ক

আহমেদাবাদ টেস্টের পিচ নিয়ে বিস্ফোরক বিশেষজ্ঞেরা
ফাইল ছবি

দুই দিনে শেষ হয়ে গেছে ইংল্যান্ড ও ভারতের মধ্যকার তৃতীয় টেস্ট। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পাঁচদিনের ক্রিকেটের এটি দ্রুততম নিষ্পত্তি। ফলে পিচ নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। একপক্ষ পিচের দোষ না দেখলেও আর একপক্ষ বিক্ষোভে ফেটে পড়ছে। আমদাবাদ টেস্টে হেরেছে ইংল্যান্ড, তাই বলাই বাহুল্য পিচ নিয়ে কটাক্ষ করছেন সে দেশেরই বিশেষজ্ঞেরা।

ধারাভাষ্যকার ডেভিড লয়েড বলেন, টেস্ট ক্রিকেটকে লটারির পর্যায়ে নামিয়ে আনা হয়েছে। ডেভিড লয়েডের দাবি, এরকম লটারিতে কে জিতল কে হারল তাতে চিন্তিত নন তিনি। তার কথায়, এটা কোনও লড়াই হয়নি। ব্যাটসম্যানদের টেকনিক দুর্বল ছিল, তবু এই পিচ যদি আইসিসির কাছে গ্রহণযোগ্য হয় তবে আগামীতে টেস্ট ক্রিকেটের দুর্দিন আসছে। ক্রিকেট বোর্ডগুলো পাঁচদিনের ক্রিকেটের দৈর্ঘ্য থেকে পয়সা আয় করে, ইংল্যান্ড তো বটেই। এরকম ছোট টেস্ট ম্যাচ শুধুমাত্র আর্থিক বিপর্যয়। আইসিসিকে এ নিয়ে প্রশ্ন করা উচিত, কিন্তু জবাব পাওয়া যাবে না তা নিয়েও নিশ্চিত তিনি। 

লয়েডের মতো সরাসরি আক্রমণের রাস্তায় যাননি মাইকেল ভন। ব্যঙ্গাত্মক টুইট করে তিনি লিখেছেন, যদি এরকম পিচই হয়, তবে আমার কাছে একটা সমাধান রয়েছে, দুই দলকেই তিনটি করে ইনিংস খেলতে দেওয়া হোক। 

চার ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ১৪০ ওভার খেলা হয়েছে আহমেদাবাদ টেস্টে। পড়েছে ৩০ উইকেট যার ২৮টি উইকেট নিয়েছেন স্পিনাররা। প্রথম দিন থেকেই বল ঘুরছিল একহাত করে। দ্বিতীয় দিনে অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়। সুনীল গাভাস্কার অবশ্য দেড়দিনে খেলা শেষ হওয়ার পেছনে ব্যাটসম্যানদের দুর্বলতার কথা বলেছেন। একই কথা বলতে শোনা গেছে ভারতের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলিকেও।        


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৬:১৫
প্রিন্ট করুন printer

এমন পিচ হলে কুম্বলে ১০০০ উইকেট পেতেন, কটাক্ষ যুবরাজের

অনলাইন ডেস্ক

এমন পিচ হলে কুম্বলে ১০০০ উইকেট পেতেন, কটাক্ষ যুবরাজের
যুবরাজ সিং।

মোতেরা টেস্টে দুরন্ত জয় ভারতের। মাত্র দুদিনেই শেষ হয়ে যায় খেলা। এরপর থেকে শুভেচ্ছার বন্যায় ভাসছে ভারত। বাদ যাননি যুবরাজ সিং। ভারতীয় ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানান তিনিও। তবে সেই অভিনন্দন বার্তায় লুকিয়ে রয়েছে মোতেরা পিচ নিয়ে কটাক্ষের সুর।

যুবরাজ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে লেখেন, মাত্র দুদিনে ম্যাচ শেষ! জানি না এটা টেস্ট ম্যাচের জন্য ভালো না খারাপ বিজ্ঞাপন। তবে এরকম পিচ হলে অনিল কুম্বলে ১০০০ এবং হরভজন সিং ৮০০ উইকেট নিতেন। যাই হোক অভিনন্দন অক্ষর প্যাটেল, রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবং ইশান্ত শর্মাকে।

উল্লেখ্য, তৃতীয় টেস্টে ইংল্যান্ডকে ১০ উইকেটে পরাজিত করে ভারত। এদিন মাত্র ৮১ রানে শেষ হয়ে যায় ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংস। বল হাতে আবারও ভেল্কি দেখান ঘরের ছেলে অক্ষর প্যাটেল। দ্বিতীয় ইনিংসেও মাত্র ৩২ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ৫ উইকেট।

শুধু এখানেই শেষ নয়, দ্বিতীয় ইনিংসে অক্ষর প্যাটেলকে দিয়ে বোলিং ওপেন করান অধিনায়ক বিরাট কোহলি। আর অধিনায়কের বিশ্বাসের মর্যাদা দেন তিনি। প্রথম দুই বলেই তুলে নেন ২ উইকেট। হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা থাকলেও সেটা সম্ভব হয়ে ওঠেনি।

অন্যান্য ভারতীয় বোলারদের মধ্যে রবিচন্দ্রন অশ্বিন তুলে নেন ৪ উইকেট। একইসঙ্গে অনন্য মাইলফলকও স্পর্শ করেন তিনি। টেস্টে ৪০০ উইকেট নেওয়ার দ্রুততার নিরিখে তিনি বিশ্বের দ্বিতীয় বোলার। প্রথম জনের নাম মুথাইয়া মুরালিধরন। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৪৯ রানের টার্গেট চেজ করতে খুব বেশি সময় নেননি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা।

সূত্র : এই সময়

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৪:৫৯
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৫:০০
প্রিন্ট করুন printer

বাড়ছে করোনা, পুনে থেকে সরতে পারে ভারত-ইংল্যান্ডের ওয়ানডে সিরিজ

অনলাইন ডেস্ক

বাড়ছে করোনা, পুনে থেকে সরতে পারে ভারত-ইংল্যান্ডের ওয়ানডে সিরিজ
ফাইল ছবি

পুনে থেকে সরে যেতে পারে ভারত বনাম ইংল্যান্ডের একদিনের সিরিজ। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের ভেতরে এমনই চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। পুনে তথা মহারাষ্ট্রে যেভাবে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে সেটা ভেবেই বিকল্প কোনো কেন্দ্র তৈরি করে রাখতে চাইছে বোর্ড।

আগামী ২৩ থেকে ২৮ মার্চ পুনেয় জৈব সুরক্ষা বলয়ে তিনটি একদিনের ম্যাচ হওয়ার কথা। কিন্তু কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা মাঝে কমলেও ফের বাড়ছে মহারাষ্ট্রে। বৃহস্পতিবার সেখানে ৮ হাজারের উপর বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। এর মধ্যেই মুম্বাইয়েই সংখ্যাটা হাজারের বেশি।

আমদাবাদে চতুর্থ টেস্ট খেলার পর ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে ভারত। তারপর পুনেয় উড়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু যে পরিস্থিতি চলছে তা বাড়তে থাকলে পুনে থেকে সমস্ত ম্যাচ সরিয়ে নেওয়া হতে পারে।

তবে কোন কেন্দ্র বিকল্প হবে তা বলা হয়নি। এই মুহূর্তে ছয়টি কেন্দ্রে জৈব সুরক্ষা বলয়ে বিজয় হজারের খেলা চলছে। তারই কোনো একটিতে হয়তো করা হতে পারে।

সূত্র : আনন্দবাজার

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৩:১৭
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৩:২৬
প্রিন্ট করুন printer

সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন ইউসুফ পাঠান

অনলাইন ডেস্ক

সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন ইউসুফ পাঠান
ইউসুফ পাঠান। ফাইল ছবি

সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন ভারতীয় অলরাউন্ডার ইউসুফ পাঠান। শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে টুইট করে নিজেই অবসরের কথা জানিয়েছেন। একইদিনে আবার সব ধরনের ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়ালেন আরেক ভারতীয় তারকা বিনয় কুমার।

দেশের জার্সি গায়ে জোড়া বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য ছিলেন ইউসুফ পাঠান। এছাড়া দুইবার কলকাতা নাইট রাইডার্সের চ্যাম্পিয়ন দলের অংশও ছিলেন তিনি। ছোট ফরম্যাটে বহুবার ঝড়ো ইনিংস খেলে ভারতকে জিতিয়েছেন।

টুইটারে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ক্যাপশনে ইউসুফ লেখেন, আমি আমার পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, সমর্থক, দল, কোচসহ প্রত্যেককে ধন্যবাদ জানাচ্ছি, তাদের লাগাতার ভালবাসা আর সমর্থনের জন্য।

তিনি বিজ্ঞপ্তিতে লেখেন, প্রথম যেদিন ভারতীয় দলের জার্সি গায়ে পরেছিলাম, দিনটার কথা স্পষ্ট মনে আছে। আমি শুধু জাতীয় দলের জার্সিই গায়ে চাপাইনি, বরং আমার পরিবার, কোচ, বন্ধু, গোটা দেশ ও সেইসঙ্গে নিজের প্রত্যাশাকে কাঁধে তুলে নিয়েছিলাম।..তবে আজকের দিনটা একটু আলাদা। আজ কোনো বিশ্বকাপ বা আইপিএলের ফাইনাল নেই। তা সত্ত্বেও এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিন। আজ সেই সময় এসেছে, যখন জীবনের এই ইনিংসটায় দাঁড়ি পড়ে যাচ্ছে। আমি সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসরের কথা ঘোষণা করছি।

ইউসুফ পাঠান ভারতের হয়ে ৫৭টি ওয়ানডে ও ২২টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দুটি শতরান ও তিনটি অর্ধশত রানসহ ৮১০ রান করা ছাড়াও ৩৩টি উইকেট নিয়েছেন তিনি।

আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে ২৩৬ রান করেন তিনি এবং উইকেট নেন ১৩টি। দেশের জার্সিতে ২০০৭ টি-২০ বিশ্বকাপ ছাড়াও ২০১১ আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ জিতেছেন তিনি।

রাজস্থান রয়্যালস, কলকাতা নাইট রাইডার্স ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে আইপিএল খেলেছেন ইউসুফ। রাজস্থানের হয়ে একবার ও কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে ২ বার ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ জিতেছেন সিনিয়র পাঠান।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর