Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ৮ মার্চ, ২০১৮ ১৫:৪৫ অনলাইন ভার্সন
৩ দিনব্যাপী ফ্রিডম স্যানিটারি ন্যাপকিন উইল ফেস্ট শুরু
প্রেস বিজ্ঞপ্তি
৩ দিনব্যাপী ফ্রিডম স্যানিটারি ন্যাপকিন উইল ফেস্ট শুরু
bd-pratidin

আন্তর্জাতিক নারী দিবসকে কেন্দ্র করে ফ্রিডম স্যানিটারি ন্যাপকিন এর পরিবেশনায় শুরু হলো তিনদিনব্যাপী উইল ফেস্ট। ওমেন ইন লিডারশীপ (উইল) এর আয়োজনে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় হচ্ছে এই উৎসব যাতে থাকছে নারী বিষয়ক নানা আয়োজন। পাশাপাশি ওমেন লিডারশীপ সামিট, ইন্সপায়ারিং ওমেন এওয়ার্ড, ফ্রিডম অব চয়েস এক্সিবিশন, নারীর ক্ষমতায়ন সম্পর্কিত নানাবিধ আলোচনা এবং তরুণ নারী উদ্যোক্তাদের জন্য স্টার্টাপ টক বা আলোচনা। 

প্রথমবারের মত আয়োজিত এ ফেস্টিভালের মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে ঔনিং এন্ড ভিজিবিলিটি অথবা কর্তৃত্ব এবং দৃশ্যমানতা। এখানে ঔনিং বলতে বুঝানো হচ্ছে নারীর কর্তৃত্ব ও আত্মবিশ্বাস যার মাধ্যমে সে নিজেকে সাফল্যের শিখরে নিয়ে যেতে পারে। ভিজিবিলিটি দ্বারা বুঝানো হচ্ছে যে দৃষ্টিতে নারীকে সমাজ, সহকর্মী, বন্ধুমহল ও পরিবারের সবাই দেখে থাকে। 
আজ এক উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হলো তিনদিনের এই উৎসব। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর এমিরেটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান। 

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক জনাব লিয়াকত আলী লাকী এবং ওমেন ইন লিডারশীপ এর প্রেসিডেন্ট নাজিয়া আন্দালিব প্রিমা। এছাড়াও আরও বক্তব্য রাখেন এসিআই কনজিউমার ব্র্যান্ডস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ আলমগীর এবং একাত্তর টিভির প্রধান সম্পাদক মোজাম্মেল হক বাবু। আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরিফুল ইসলাম। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইস্টার্ন ব্যাংক লি. এর রিটেইল ব্যাংকিং এর এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ জুলকার নাইন।

সব শ্রেণি পেশার মানুষের জন্য উন্মুক্ত এই উৎসবের এর বিভিন্ন আয়োজনগুলো জাতীয় চিত্রশালার প্লাজা, গ্যলারি নং ২, ৩ এবং অডিটোরিয়ামে একসঙ্গে চলছে। উৎসবে প্রবেশের জন্য কোনো প্রবেশ মূল্য নেই।

উৎসবের একটি অংশ হচ্ছে ওমেন লিডারশীপ সামিট, যা তৃতীয়বারের মত অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এতে থাকছে তিনটি মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন ও তিনটি প্যানেল আলোচনা। সামিটে দেশী-বিদেশী বক্তারা নারীর ক্ষমতায়ন ও এ সম্পর্কিত প্রতিবন্ধকতা দূরীকরণ এর উপায় নিয়ে আলোচনা করবেন। 

এছাড়াও তিনদিনব্যাপী প্রায় ২০টি আলোচনার আয়োজন করা হবে যেখানে কথা বলা হবে নারীদের বিভিন্ন ব্যক্তিগত, সামাজিক, পারিবারিক ও কর্মক্ষেত্র সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে। এসব আলোচনার উদ্দেশ্য থাকবে নারীদের কে তাদের কর্তৃত্ব ও উন্নতি এর উপর আরো জোরালোভাবে বিশ্বস্ত করা, যাতে তারা সমাজে আরো দৃশ্যমান হতে পারে।

পাশাপাশি, কর্মক্ষেত্রে নারীদের আরো যোগ্য করে তোলার লক্ষ্যে আয়োজন থাকবে প্রফেশনাল ট্রেইনিং বা প্রশিক্ষণ। তিনদিনের আয়োজনে বিন্যস্ত এই প্রশিক্ষণগুলো পরিচালনা করবে লাইটহাউজ বাংলাদেশ, গ্রো এন এক্সেল এবং বোল্ড।

আয়োজনে আরো থাকবে তরুণ নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ স্টার্টাপ টক। এ আলোচনায় এযাবৎকালে সফল নারী উদ্যোক্তা এবং নারী বিষয়ক সেবা প্রদানকারী উদ্যোক্তারা অংশগ্রহন করবেন। পাশাপাশি সফল উদ্যোক্তাদের গল্প নিয়ে আয়োজন থাকবে প্রদর্শনীর।

তরুণ শিক্ষার্থী এবং বিজ্ঞাপন সংস্থাদের নারী বিষয়ক ক্যাম্পেইন তৈরিতে সম্পৃক্ত করার জন্য পরিচালনা করা হয় একটি অনলাইন ভিত্তিক প্রতিযোগিতা, যেখানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষার্থী এবং বিজ্ঞাপন সংস্থার কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। তারা যথাক্রমে, নারীর ক্ষমতায়ন এবং নারীর প্রতি বৈষম্য - এ বিষয়গুলো নিয়ে ক্যাম্পেইন তৈরি করে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করে, যেগুলো থেকে সবচেয়ে উদ্ভাবনীয় ক্যাম্পেইনগুলোকে ফেস্টিভালে প্রদর্শন করা হবে। সেরা দুইটি ক্যাম্পেইনকে ইন্সপায়ারিং ওমেন এওয়ার্ডের মাধ্যমে পুরস্কৃত করা হবে।
এ উৎসবে আরও থাকছে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক আয়োজন। এর মূল আকর্ষণে রয়েছে নারীকেন্দ্রিক প্রদর্শনী যেখানে নারীদের জীবনে বাধা এবং সেই বাধা অতিক্রম করে সাফল্য অর্জনের গল্পগুলো আলোকচিত্র, দৃশ্যচিত্র এবং নারীদের ব্যাবহৃত পোশাক প্রদর্শনীর মাধ্যমে তুলে ধরা হবে। এছাড়াও থাকছে লাইভ আর্ট কর্মশালা, গান, নাচ ও অন্যান্য সাংস্কৃতিক আয়োজন।  

ফিলিপাইন এর স্কুল অফ স্লো মিডিয়া এর পরিচালনায় নারী চলচ্চিত্রকারদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য একটি বিশেষ কর্মশালা আয়োজিত হচ্ছে। এই কর্মশালাটি মূলত সৃজনশীল ও প্রগতিশীল নেতাদের দক্ষ গল্পকারে পরিণত হতে সাহায্য করবে। দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় পরিচালিত কর্মকান্ডের মাধ্যমে অর্জিত স্কুল অব স্লো মিডিয়ার বিভিন্ন অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে কর্মশালার অংশগ্রহণকারীদের গল্প বলার দক্ষতাকে বাড়িয়ে তোলা হবে এবং সৃজনশীলতাকে সঞ্জীবিত করা হবে। 

তিনদিনের এই আয়োজনের পর্দা নামবে চতুর্থ ইন্সপায়ারিং ওমেন এওয়ার্ড এর মাধ্যমে, যা ১০ই মার্চ সন্ধ্যায় আমন্ত্রিত অতিথিদের অংশগ্রহনে অনুষ্ঠিত হবে। ইন্সপায়ারিং ওমেন অ্যাওয়ার্ড এর অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য হচ্ছে বাংলাদেশের সফল ও উদীয়মান নারীদের ভূমিকাকে ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে সম্মানিত করা।


বিডি-প্রতিদিন/০৮ মার্চ, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow