শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০৯:৫১

রাউফুন নাহারের 'মনের যত্ন' বইয়ের প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাউফুন নাহারের 'মনের যত্ন' বইয়ের প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত

শরীরের পাশাপাশি মানুষের মনটাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ফলে শরীরের যেমন যত্ন দরকার, সেটা দরকার মনের বেলাতেও। আর এ কারণেই

'মনের যত্ন' নামে একটি বইয়ের প্রকাশনা উৎসবে যোগ দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি বিষয়টির গুরুত্ব তুলে ধরেন। চলতি বছর অমর একুশে
বইমেলায় বইটি এনেছে অনিন্দ্য প্রকাশ। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এডুকেশনাল অ্যান্ড কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিভাগের শিক্ষক রাউফুন নাহারের লেখা বইটির প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত
হয় বাংলা একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে। বুধবার বিকালে এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি। 

বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মেহজাবীন হকের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক ও লেখক অধ্যাপক মোহিত কামাল,  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এডুকেশনাল অ্যান্ড কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক মেহতাব খানম, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন এবং সম্প্রীতি বাংলাদেশের সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. মামুন-আল মাহতাব স্বপ্নীল। লেখক ও সাংবাদিক শামীম আল আমিনের সঞ্চালনায় প্রারম্ভিক বক্তব্য রাখেন বইটির লেখক রাউফুন নাহার ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন অনিন্দ্য প্রকাশের প্রধান নির্বাহী আফজাল হোসেন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্য ডা. দিপু মনি আরও বলেন, বইটিতে মানসিক স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য যা যা করা দরকার, সবই আছে। সবার এই বইটি পড়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 

তিনি বলেন, 'সহজ ও সুন্দর ভাষায় বইটি লেখা হয়েছে। বইটি পড়লে সবাই সুফল পাবে বলে আশা করছি'।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান বলেন, বইটিতে এক ধরণের স্বতন্ত্র উপস্থাপনা রয়েছে। পেশাদারিত্বের মতো বিষয়কে সামনে রেখে বইটি লেখা। লেখকের যে একাডেমিক ব্যাকগ্রাউন্ড ও গবেষণার ক্ষেত্র, তাতে এই ধরণের একটি বই লেখার ক্ষেত্রে যোগ্য তিনি। মনের কিভাবে যত্ন নিতে হবে এ বিষয়ে বিস্তারিত এতে তুলে ধরা হয়েছে।  

বইটির রচয়িতা রাউফুন নাহার বলেন, অনেকেই মানসিক কাউন্সিলরের কাছে সরাসরি সেবা নিতে আসেন না। আমরা চেয়েছি এই সেবাটা মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে। সেই চাওয়া থেকেই বইটি লেখা। 

তিনি আরও বলেন, বইটির মধ্যে চমৎকার একটি দিক রয়েছে। সেটি হচ্ছে মন ভালো রাখার জন্য ৫২ জন মনোবিজ্ঞানীর দেয়া কৌশল। এসব মনোবিজ্ঞানী মন ভালো করতে নিজেরা যা করেন, সেগুলো আমাদের সাথে শেয়ার করেছেন। সাধারণ মানুষের বিষয়গুলো কাজে দেবে বলে আমার বিশ্বাস। 

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম


আপনার মন্তব্য