Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ মার্চ, ২০১৯ ১২:১৭

খুলনায় স্কুল ভবনে আগুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুলনায় স্কুল ভবনে আগুন

খুলনা মহানগরীর সোনাডাঙ্গা আবাসিক এলাকায় স্কুল ভবনের চারতলায় বায়রা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানীর অফিস কক্ষে আগুন লেগে যায়। এতে অফিস কক্ষের মালামাল, ফ্রিজ, বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশ ও কাগজপত্র পুড়ে যায়। রবিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

ওই সময় ভবনের তিনতলায় রোজডেল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের শ্রেনি কার্যক্রম চলছিল। আগুন লাগার ঘটনায় শিশু শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। প্রচন্ড ধোয়ার মধ্যে শিক্ষক ও অভিভাবকরা তাদেরকে ভবনের নিচে নামিয়ে আনেন। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা প্রায় দেড় ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। 

এদিকে, আবাসিক এলাকায় একই ভবনে স্কুল, এনজিও, লাইফ ইন্সুরেন্স ও কোচিং সেন্টার চালানোর ঘটনায় অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। 

জানা যায়, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হঠাৎ করেই ভবনের চারতলায় আগুন লাগে। এতে মুহূর্তের মধ্যে চারপাশে ধোয়ার সৃষ্টি হয়। এ সময় ভবনের তিনতলায় রোজডেল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের প্লে গ্রুপ ও নার্সারীর শ্রেনি কার্যক্রম চলছিল। আগুনের ধোয়া ও চারপাশের ছোটাছুটিতে শিশুদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভাইস প্রিন্সিপাল এ কে এম জাকারিয়া বলেন, ওই সময় প্রায় দেড়শ’ শিশু শিক্ষার্থী ওই স্থানে ক্লাস করছিল। তবে শিক্ষক ও অভিভাববকরা তাদের নিরাপদে সরিয়ে আনতে সক্ষম হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল ভবনে স্থান সংকুলান না হওয়ায় ওই ভবনের তিনতলাটি ভাড়া নেয়া হয়েছে। আগে থেকেই ভবনটিতে এনজিও ও লাইফ ইন্সুরেন্সের কার্যক্রম ছিল। 

খুলনার বয়রা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন কর্মকর্তা মো. সাঈদুজ্জামান জানান, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। ভবনটিতে আগুন প্রতিরোধের নিজস্ব কোন ব্যবস্থা নেই। একই সাথে ঝুকিপূর্নভাবে সেখানে স্কুল, কোচিং সেন্টার, এনজিও ও লাইফ ইন্সুরেন্সের কার্যক্রম চলছে। 

তিনি আরও বলেন, আবাসিক এলাকার প্রবেশপথে লোহার বার দিয়ে যানবাহন নিয়ন্ত্রনের ব্যবস্থা রাখায় ফায়ার সার্ভিসের গাড়িও সেখানে আটকে যায়। এখানকার বৈদ্যুতিক তারগুলো ভবনের কাছাকাছি ঝুকিপূর্ন অবস্থায় রয়েছে। ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা ভবনটি থেকে এনজিও ও লাইফ ইন্সুরেন্সের কার্যক্রম সরিয়ে নেয়ার দাবি জানিয়েছেন। 


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ তাফসীর


আপনার মন্তব্য