শিরোনাম
প্রকাশ : ৭ মে, ২০২১ ১৪:৫৮
প্রিন্ট করুন printer

গাজীপুরে আহসান উল্লাহ মাস্টারের ১৭তম শাহাদাতবার্ষিকী পালন

গাজীপুর প্রতিনিধি

গাজীপুরে আহসান উল্লাহ মাস্টারের ১৭তম শাহাদাতবার্ষিকী পালন
Google News

স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রখ্যাত শ্রমিকনেতা আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপির ১৭তম শাহাদাতবার্ষিকী নানা কর্মসূচির মাধ্যমে পালন করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৩৯নং ওয়ার্ডের হায়দরাবাদ গ্রামে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া করা হয়। 

আহসান উল্লাহ মাস্টারের বড় ছেলে এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে হায়দরাবাদে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও দোয়া করেন। গাজীপুর মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মো. কামরুল আহসান সরকার রাসেল, যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা মাইদুল ইসলামসহ অন্যরা প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে কর্মসূচিতে অংশ নেন।

শুক্রবার সকালে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান ও সাধারণ সম্পাদক এবং গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ আহসান উল্লাহ মাস্টারের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে নেতৃবৃন্দ শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন। তারা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের বৃদ্ধা মায়ের সাথে সাক্ষাৎ করে, তাকে সান্ত্বনা দেন। 

দিনটি শ্রদ্ধার সাথে পালনের জন্য শুক্রবার সকাল থেকে গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগ, মহানগর আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। নেতৃবৃন্দ শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার হত্যা মামলার রায় দ্রুত কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন। 

শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার গাজীপুর-২ (গাজীপুর সদর-টঙ্গী) আসন হতে ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে দুবার সংসদ সদস্য, ১৯৯০ সালে গাজীপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এবং ১৯৮৩ ও ১৯৮৭ সালে দু’দফা পূবাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি ছিলেন আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য। তিনি জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ছিলেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজের (বিলস) চেয়ারম্যান। তিনি শিক্ষক সমিতিসহ বিভিন্ন সমাজসেবামূলক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন।

২০০৪ সালের ৭ মে টঙ্গীর নোয়াগাঁও এম এ মজিদ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তাকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

এই বিভাগের আরও খবর