২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৪:৩৮

অবৈধ দখল-দূষণে মরছে নদী, হুমকিতে পরিবেশ-প্রকৃতি

কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

অবৈধ দখল-দূষণে মরছে নদী, হুমকিতে পরিবেশ-প্রকৃতি

কীর্তনখোলা নদীর পূর্বতীর দখল কর গড়ে উঠেছে নানা স্থাপনা।

নদী-খালের দেশ বরিশালের পরিবেশ-প্রকৃতি ও জীব বৈচিত্র বাঁচিয়ে রেখেছে নদ-নদীগুলো। প্রবাহমান নদী থেকে মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করছে লাখ লাখ মানুষ। কিন্তু প্রতিনিয়ত অবৈধ দখল ও দূষণের কারণে নদী সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। নষ্ট হচ্ছে পানি। কমে যাচ্ছে পানির ভেতরে অক্সিজেনের মাত্রা।

উপরে থই থই পানি দেখালেও তলদেশে ডুবো চর পড়ে প্রায় প্রতিটি নদীর নাব্যতা কমছে আশঙ্কাজনকভাবে। এতে বড় বড় নৌযান চালাতে হয় ঝুঁকি নিয়ে। পরিবেশ-প্রকৃতি এবং জীব বৈচিত্র রক্ষায় নদী বাঁচাতে এখনই পদক্ষেপ দাবি করেছেন নৌযান মাস্টার এবং পরিবেশবিদরা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের হিসাবে বরিশাল বিভাগে অর্ধ শতাধিক নদ-নদী রয়েছে। গত ২ থেকে ৩ দশকের মধ্যে বরিশালের সন্ধ্যা, সুগন্ধ, আড়িয়ালখাঁ, ধানসিড়িসহ অনেক নদ-নদী এবং শাখা নদী প্রায় মরে গেছে। অন্যান্য নদীর বিভিন্ন স্থানে ডুবোচর পড়েছে। শুস্ক মৌসুমে সন্ধ্যা নদী দিয়ে নৌযান চলাচল করতে পারছে না। ডুবো চরের কারণে অন্যান্য নদ-নদী দিয়েও বড় বড় নৌযান ঝুঁকি নিয়ে চালাতে হয় বলে জানিয়েছেন বরিশাল-ঢাকা নৌ রুটের প্রথম শ্রেণির নৌযান মাস্টার মো. শামীম আহমেদ। নৌ চলাচল অব্যাহত রাখতে নদীর নাব্যতা বাড়ানোর উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) বরিশালের সমন্বয়কারী মো. রফিকুল আলম বলেন, শুধু নাব্যতা সংকটই নয়, প্রতিনিয়ত অবৈধ দখল এবং দূষণকারীরা গলাটিপে হত্যা করছে পরিবেশ-প্রকৃতির বন্ধু নদীগুলোকে। পলিথিন ও প্লাস্টিক বর্জ্য ফেলায় সেগুলো গিয়ে ঠেকছে নদীর তলদেশে। অবৈধ দখলের কারষে ক্রমেই সংকুচিত হচ্ছে নদী।

ওষুধ কোম্পানির কেমিক্যাল বর্জ্য ইটিপি’র মাধ্যমে পরিশোধন না করায় ড্রেন হয়ে সেগুলো সরাসরি পড়ছে নদীতে। এ কারণে নদীর পানিতে কমেছে অক্সিজেনের মাত্রা। যা পরিবেশ-প্রকৃতির উপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। সিএস ম্যাপ ধরে নদীর অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ, দূষণ রোধ এবং নাব্যতা বাড়ানোর জন্য অবিলম্বে সরকারি কঠোর পদক্ষেপ দাবি করেছেন পরিবেশবাদীরা।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর