Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ মে, ২০১৯ ০১:৪৩

অভিযানের সময় পালিয়ে গেল দোকান মালিক

জব্দ গরুর মাংস এতিমখানায়

নিজস্ব প্রতিবেদক

অভিযানের সময় পালিয়ে গেল দোকান মালিক

রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে গরুর মাংসের দোকানে গতকাল অভিযান চালিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত রাখায় বেশ কিছু মাংসের দোকানকে জরিমানা করা হয়। অভিযান চলাকালে জরিমানার ভয়ে পালিয়ে যাওয়ায় এক দোকানের প্রায় এক মণ মাংস আশপাশের দুটি এতিমখানায় বিতরণ করে দেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের কর্মকর্তারা। এ অভিযানে ১০টি প্রতিষ্ঠানকে মোট ৪১ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। পাশাপাশি হাতিরপুল ও মোহাম্মদপুরে পৃথকভাবে বাজার পরিদর্শন করেন ডিএসসিসির মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। এদিকে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে  ভেজালবিরোধী অভিযানে নকল ড্রিংক পাওয়ার, আচার, হজমি ট্যাবলেট, আইসক্রিম ও জুস তৈরির অভিযোগে দুটি প্রতিষ্ঠান সিলগালা করে দিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ছাড়া তিনজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদ- ও দেওয়া হয়েছে। একটি সেমাই তৈরির কারখানাকে ১ লাখ জরিমানা করা হয়। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম। গতকাল দুপুর ১২টা বাজার ৫ মিনিট আগে মেরাদিয়া বাজারের কবিরের মাংস বিতানে মাংস কিনতে যান এক ব্যক্তি। দোকানে সিটি করপোরেশন নির্ধারিত মূল্য তালিকা ৫২৫ টাকা কেজিপ্রতি টানানো থাকলেও তার কাছে ৫৫০ টাকা করে চায় বিক্রেতা। কারণ হিসেবে এ বিক্রেতা জানালেন, সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রিতে তাদের পোশায় না। এর কিছুক্ষণ পরই সেখানে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে সংস্থাটি। তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে কবিরের মাংস বিতানের ওই বিক্রেতা তার দোকানের মাংস রেখেই পালিয়ে যায়। অভিযানকালে মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার আশপাশের আরও তিনটি মাংসের দোকান পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি মূল্য তালিকা যাচাই করে দেখেন। আর অতিরিক্ত দাম রাখার অভিযোগে জরিমানা দেওয়ার ভয়ে কবিরের মাংসের দোকানের বিক্রেতা পালিয়ে যাওয়ায় তার দোকানের প্রায় ৪০ কেজি গরুর মাংস জব্দের নির্দেশ দেন তিনি। পরে সেগুলো নন্দীপাড়া এলাকার মাদরাসাতুল ফালাহ ও এতিমখানা এবং শাহী মসজিদ কমপ্লেক্স হাফিজিয়া মাদ্রাসার এতিমদের মাঝে বিতরণ করা হয়। এ অভিযানে দেশি সুপার শপ অ্যান্ড ফার্মাকে ১৫০০০ টাকা, জয়নাল স্টোরকে ৫০০, মাশাল্লাহ গোস্ত বিতানকে ৩০০০ টাকা, এলাহি মিট হাউসকে ৩০০০ টাকা, রূপসী বাংলা গোস্ত বিতানকে ৩০০০ টাকা, সন্দ্বীপের গোশতের দোকানকে ৩০০০ টাকা, মায়ের দোয়া গোস্ত বিতানকে ৩০০০ টাকা, বকুলের গোস্ত দোকানকে ৩০০০ টাকা, মোতালেবের গোশতের দোকানকে ৩০০০ টাকা এবং আলমের গোস্তের দোকানকে ৫০০০ টাকা করে মোট ৪১ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

কামরাঙ্গীরচরে নকল পণ্যের কারখানায় র‌্যাবের অভিযান : কামরাঙ্গীরচর আশরাফাবাদ এলাকায় গতকাল নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে হাবিবা ফুড প্রোডাক্টসে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় দেখা যায়, উপরে টিনের চাল। চালে ধুলা-ময়লা। চারপাশে স্যাঁতসেঁতে পরিবেশ। শ্রমিকের হাতেও নেই গ্লাভস। খালি হাতেই তৈরি হচ্ছে সেমাই। প্রতিষ্ঠানটি লাচ্ছা সেমাই, দুধ সেমাইসহ বেশ কয়েক রকমের সেমাই তৈরি করে থাকে। আর এ সেমাই প্যাকেজিং হয়ে যাচ্ছে একমি, ডেকোসহ দেশের নামিদামি প্রতিষ্ঠানগুলোতে। পরে এসব বাজারে বিক্রি করছে তারা।

এ কারখানার শ্রমিকরা র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, তারা একমি ডেকো, শাহী মদিনা, বোম্বের মতো ব্র্যান্ডের জন্য সেমাই তৈরি করে। অভিযান শেষে কারখানাকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এ বিষয়ে সারওয়ার আলম বলেন, এ প্রতিষ্ঠানে গত বছর অভিযান চালানো হয়েছিল। তাদের অবস্থা আগের চেয়ে একটু ভালো। তবে কিছু বিষয় এখনো ঠিক না করায় তাদের ১ লাখ টাকা জরিমানা করে সতর্ক করা হয়েছে।

একই অভিযানে কামরাঙ্গীরচরের বড়গ্রাম এলাকার রহমান গলিতে সোনিয়া কনজ্যুমার গুডসের কারখানায় নিম্নমানের কেমিক্যাল দিয়ে রোজ শরবত, চাটনি, বরইয়ের আচার, চকলেট ইত্যাদি তৈরির অভিযোগ পায় র‌্যাব। র‌্যাবের অভিযানের সংবাদ শুনেই কারখানা থেকে পালিয়ে যান মালিক। পরে কাউকে না পেয়ে প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করা হয়। এরপর ইসলামনগরের কাদের ফুড প্রোডাক্টসে অভিযান চালানো হয়। প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন ফলের আইসক্রিম তৈরি করলেও এসব আইসক্রিমে ফলের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। পরে প্রতিষ্ঠান মালিককে খুঁজে না পাওয়ায় ওই কারখানা থেকে সাড়ে তিন হাজার কার্টন আইসক্রিম জব্দ করে র‌্যাব।

ফলের দোকানে বিএসটিআইর অভিযান : রমজানে অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে ফরমালিনযুক্ত ফল বাজারে বিক্রি করতে না পারে সেজন্য গতকাল অভিযান শুরু করে বিএসটিআই। সকালে রাজধানীর নিউমার্কেটে ফলের আড়তে এই অভিযান চালানো হয়। এতে বেশ কয়েকটি ফলের নমুনা সংগ্রহ করা হলেও কোনো ফলে পাওয়া যায়নি ফরমালিন। এ সময় ফলের নমুনা বিএসটিআইয়ের ভ্রাম্যমাণ ল্যাবে ফরমালিন পরীক্ষা করা হয়। রমজান মাসজুড়ে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। এ ছাড়া ভবিষ্যতে ফলের আড়তগুলোতেও এ অভিযান চালানো হবে বলে জানানো হয়। 

হাতিরপুল কাঁচাবাজার পরিদর্শনে ডিএসসিসি মেয়র : ডিএসসিসির মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেছেন, গাবতলী পশু হাটের চাঁদাবাজি বন্ধ করা গেলে গরুর মাংসের দাম কিছুটা হলেও কমবে। এ ছাড়া ঢাকা দক্ষিণের আওতার ২১টি কাঁচাবাজারে ডিজিটাল মূল্যতালিকা বোর্ড স্থাপন করা হবে, যাতে বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে ঘুরে মূল্য তালিকা হালনাগাদ করার পরিবর্তে নগর ভবনে বসেই যেন করা যায়। গতকাল দুপুরে হাতিরপুল কাঁচাবাজার পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব বলেন তিনি। সাঈদ খোকন বলেন, আমাদের জনবলের সীমাবদ্ধতা থাকায় সীমিত জনবল দিয়ে মনিটরিং কার্যক্রম পরিচালনা করছি। আর খাদ্যে ভেজাল দিলে শুধু জরিমানা নয়, এর সঙ্গে কারাদ  প্রদানের জন্যও মনিটরিং কমিটিকে বলা হয়েছে। এ ছাড়া গাবতলীতে চাঁদাবাজির বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে। পরে তিনি মাংসের দোকানি, ক্রেতাসাধারণের সঙ্গেও দ্রব্যসামগ্রীর মূল্য নিয়ে কথা বলেন।

মোহাম্মদপুর টাউনহল মার্কেটে ডিএনসিসি মেয়রের আকস্মিক পরিদর্শন : ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল আছে কিনা তা পরিদর্শন করতে গতকাল বেলা ১টার দিকে মোহাম্মদপুর টাউনহল মার্কেট আকস্মিক পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে টাউনহল মার্কেটের পেছনে ফুটপাথ ও রাস্তা দখল করে ব্যবসা করায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং তাৎক্ষণিকভাবে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। এ ছাড়া টাউনহল মার্কেটের পেছনের রাস্তা থেকে দোকান সরিয়ে নেওয়ার জন্য ২৪ ঘণ্টা সময় দেন।

পরিদর্শন শেষে আতিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, এটা খুব দুঃখজনক যে, ফুটপাথ ও রাস্তা দখল করে সাধারণ মানুষকে কষ্ট দিয়ে ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করছেন। এটা চলতে দেওয়া যাবে না। তাছাড়া রমজান এবাদতের মাস। ধর্মীয় ও নৈতিকতার দিক থেকে সৎভাবে ব্যবসা করা উচিত। অসৎ ব্যবসায়ীদের বিবেক জাগ্রত হোক।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর