শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

পুনর্গঠিত হচ্ছে সিলেট বিএনপি

আন্দোলনকে টার্গেট করে হচ্ছে নতুন কমিটি, স্থান পাচ্ছেন অঙ্গসংগঠনের সাবেক নেতারা

শাহ্ দিদার আলম নবেল, সিলেট

আন্দোলন কর্মসূচিতে রাজপথে শক্তি বৃদ্ধির টার্গেট নিয়ে পুনর্গঠিত হচ্ছে সিলেট বিএনপি। সে লক্ষ্যে নতুন করে মহানগর বিএনপির আওতাধীন সব ওয়ার্ড কমিটি ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে সব ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। নতুন কমিটিতে বিএনপির ত্যাগীদের পাশাপাশি অঙ্গসংগঠনের সাবেক নেতারাও স্থান পাচ্ছেন। তৃণমূল নেতৃত্ব শক্তিশালী করার মাধ্যমে আগামীতে দলকে রাজপথের আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা। সিলেট মহানগর বিএনপির ২৭ ওয়ার্ড কমিটির সব কটি অনেক আগে থেকেই মেয়াদোত্তীর্ণ। চার-পাঁচ বছর আগে কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে পড়লেও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি নতুন কমিটি গঠনের। ফলে নতুন নেতৃত্ব প্রত্যাশী ত্যাগী নেতা-কর্মীরাও রাজনৈতিক কর্মকান্ডে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন। ওয়ার্ড কমিটির মতো মহানগর বিএনপির কমিটিও দীর্ঘদিন ধরে ছিল মেয়াদোত্তীর্ণ। এতে দলীয় কার্যক্রমে স্থবিরতা নেমে আসে। অবশেষে ২৯ সেপ্টেম্বর মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে মহানগর বিএনপির নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। ওই কমিটি ঘোষণার পর নেতা-কর্মীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে আসতে শুরু করে। আবদুল কাইয়ূম জালালী পংকীকে আহ্বায়ক ও মিফতাহ সিদ্দিকীকে সদস্যসচিব করে গঠিত আহ্বায়ক কমিটি দায়িত্ব পাওয়ার পর শুরুতেই হাত দেন তৃণমূলে। শনিবার রাতে আহ্বায়ক কমিটির দ্বিতীয় সভায় একসঙ্গে ২৭ ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

 উদ্যোগ নেওয়া হয় নতুন কমিটি গঠনের। দলীয় সূত্র জানান, ২০১৪-১৫ সালের দিকে মহানগর বিএনপির আওতাধীন এসব ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ওই ওয়ার্ড কমিটির নেতারাই ২০১৫ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি সম্মেলনে ভোটাভুটির মাধ্যমে মহানগর বিএনপির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করেন। এরপর মহানগর বিএনপি ও ওয়ার্ড কমিটিগুলোর মেয়াদ চলে গেলেও নতুন কমিটি গঠনের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

সূত্রমতে, নতুন করে ওয়ার্ড কমিটি গঠনের জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে কর্মিসভা করবে মহানগর বিএনপি। এরপর গঠন করে দেওয়া হবে আহ্বায়ক কমিটি। আহ্বায়ক কমিটিকে সম্মেলনের মাধ্যমে বেঁধে দেওয়া হবে সময়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই সম্মেলনের মাধ্যমে আহ্বায়ক কমিটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করবে। এরপর সব ওয়ার্ড কমিটির নেতার অংশগ্রহণে আয়োজন করা হবে মহানগর বিএনপির সম্মেলন। ওয়ার্ড কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে বিএনপির ত্যাগী নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে। বিশেষ করে রাজপথের সক্রিয় যেসব নেতা নানা কারণে কোণঠাসা হয়ে রয়েছেন তাদের পদায়ন করা হবে।

এ প্রসঙ্গে সিলেট মহানগর বিএনপির সদস্যসচিব মিফতাহ সিদ্দিকী জানান, বর্তমান সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি। কেন্দ্র থেকে এটা স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন নিশ্চিত করতে হলে রাজপথে শক্ত আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই। আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে বাধ্য করতে হবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে। এজন্য রাজপথে শক্তি বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই। সেজন্য ওয়ার্ড কমিটিগুলোয় ত্যাগী, পরীক্ষিত নেতাদের প্রাধান্য দেওয়া হবে। নানা কারণে প্ল্যাটফরম না পেয়ে যারা এখন ঘরবন্দী তাদের কমিটিতে এনে সক্রিয় করা হবে। এতে দল ও নেতা-কর্মী চাঙা হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর