শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২৪ ০০:০০ টা

ছয় লাশ নিয়ে মাতম

ঝালকাঠিতে ১৪ মৃত্যুর ঘটনা

ঝালকাঠি প্রতিনিধি

ঝালকাঠিতে ট্রাকের ধাক্কায় মারা যাওয়া ১৪ জনের মধ্যে রয়েছেন একই পরিবারের ছয়জন। তাদের লাশ নিয়ে স্বজনদের শোকের মাতম চলছে।

গত বুধবার রাতে রাজাপুরের একই পরিবারের এ ছয়জনের মধ্যে চারজনের লাশ উত্তর সাউথপুর গ্রামে নিয়ে এলে নিহতের আত্মীয়স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। সকাল থেকেই দূর-দূরান্ত থেকে আত্মীয়স্বজন ও গ্রামবাসী নিহতদের লাশ শেষবারের মতো দেখতে আসেন। দুপুরের পরে তাদের পারিবারিক গোরস্তানে কবর দেওয়া হয়। একই গাড়িতে থাকা অন্য দুজনের মধ্যে নিপার লাশ তার গ্রামের বাড়ি সাংগর গ্রামে দাফন করা হয়েছে। তার স্বামী ইমরান হোসেনের লাশ রাঙ্গামাটি নিয়ে যাওয়া হয়েছে। প্রাইভেট কার ড্রাইভার ইব্রাহীমের লাশ উত্তর উত্তমপুর গ্রামের বাড়িতে সমাহিত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বুধবার দুপুর ২টার দিকে খুলনা-ঝালকাঠি মহাসড়কে গাবখান ব্রিজের টোল প্লাজায় টোলের টাকা পরিশোধ করছিল একটি প্রাইভেটকার। ঠিক সে সময় ঝালকাঠি শহরমুখী একটি সিমেন্টবাহী ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সামনে থাকা তিনটি ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক ও প্রাইভেটকারকে ধাক্কা দেয়। এতে প্রাইভেটকারসহ অন্য তিনটি ইজিবাইক ভেঙে দুমড়ে-মুচড়ে যায়। মুহূর্তেই ঝড়ে যায় নারী শিশুসহ ১৪ জনের প্রাণ। সে প্রাইভেটকারের চালকসহ ছয়জন আরোহীই নিহত হন। তাদের মধ্যে ছিলেন একই পরিবারের চারজন।  তাদের বাড়ি ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার উত্তর সাউথপুর গ্রামে। রাতেই তাদের লাশ বাড়িতে নিয়ে আসার পরে এলাকায় নেমে আসে শোকের ছায়া।

ট্রাকের ধাক্কায় প্রাইভেট কারে থাকা এক পরিবারের ছয়জনসহ সাতজনই মারা যান। নিহতরা হলেন- রাজাপুর উপজেলার উত্তর সাউথপুর গ্রামের হাসিবুর রহমান (৩৩), তার স্ত্রী নাহিদা আক্তার সোনিয়া (২৮), তাদেও মেয়ে তাকিয়া আক্তার (৩), তাহমিদ রহমান (০১), সোনিয়ার সদ্য বিবাহিতা বোন উপজেলার সাংগড় এলাকার নিপা আক্তার (২২) ও তার স্বামী বিমান বাহিনীর সদস্য ইমরান হোসেন (২৩) ও প্রাইভেট কার ড্রাইভার ইব্রাহীম।   

 

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর