Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৫ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৪ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:০৪

উপজেলা নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা

দুজন নিহত, আহত ১৬

প্রতিদিন ডেস্ক

দুজন নিহত, আহত ১৬

দেশের বিভিন্ন স্থানে উপজেলা নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা হয়েছে। এতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও ফরিদপুরে মারা গেছেন দুজন। এছাড়া আহত হয়েছেন ১৬ জন। বুধবার রাত ও গতকাল এ সব ঘটনা ঘটে। প্রতিনিধিদের খবর-

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : সরাইলে রোকন মিয়া (২৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নের বড়ইছড়া গ্রামে গতকাল এ ঘটনা ঘটে। রোকন ওই গ্রামের সাদত আলীর ছেলে। পুলিশ জানায়, সদ্য সমাপ্ত উপজেলা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী রফিক উদ্দিনের সমর্থক আহসান উল্লাহ গ্রুপের সঙ্গে বুধবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী শফিকুর রহমানের সমর্থক ফারুক মিয়া গ্রুপের লোকজনের কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনায় রাতেই মীমাংসার জন্য শালিস বৈঠক হলেও সুরাহা হয়নি। এর জেরে গতকাল প্রতিপক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে রোকন মিয়ার উপর হামলা চালায়।

বোয়ালমারী : ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার চতুল ইউনিয়নে বুধবার রাতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের কোপে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। সংঘর্ষের সময় কয়েকটি বাড়িঘরে ভাঙচুর ও লুটপাট হয়েছে। এলাকাবাসী জানান, গত ১৮ মার্চ অনুষ্ঠিত বোয়ালমারী উপজেলা নির্বাচনে নাজিম উদ্দিন ছিলেন নৌকার প্রার্থী এমএম মোশাররফ হোসেনের পক্ষে কাজ করেছেন। অপরদিকে জামাল মাতুব্বর গ্রুপ বিদ্রোহী প্রার্থী লিটন মৃধার সমর্থক ছিলেন। বুধবার সন্ধ্যায় নাজিমউদ্দিন গ্রুপের আক্কেলের সঙ্গে প্রতিপক্ষ গ্রুপের দেলোয়ার মাতব্বরের কথা কাটাকাটি হয়। রাতেই ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষ বাধে। এ সময় ধারালো অস্ত্রের কোপে মারা যান জামালের চাচাতো ভাই দেলোয়ার। আহত হন উভয় গ্রুপের তিন নারীসহ ১০ জন। তাদের বোয়ালমারী ও ফরিদপুর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সাতক্ষীরা : কলারোয়ায় সহিংসতায় ভারপ্রাপ্ত ইউপি চেয়ারম্যানসহ  চারজন  আহত হয়েছেন। তাদের সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার রাতে কলারোয়ার জালালাবাদ ইউনিয়নের বাটরা বাজারে এ হামলার এ ঘটনা ঘটে। কলারোয়া থানার ওসি জানান, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে।

খুলনা : রূপসা উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গতকাল প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শাহিনা আকতার লিপি ও তার ছেলে আরাফাত গুরুতর জখম হয়েছেন। লিপি সদ্য সমাপ্ত উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। আহত মা-ছেলেকে খুলনা মেডিকেল ভর্তি করা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য