শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০৯

৩০০ বছরের স্থাপত্য বিলীনের পথে

দিনাজপুর প্রতিনিধি

৩০০ বছরের স্থাপত্য বিলীনের পথে
দিনাজপুরের খানসামায় ঐতিহাসিক ‘আওকরা মসজিদ’

পৌনে ৩০০ বছরের পুরনো স্থাপত্য ঐতিহাসিক ‘আওকরা মসজিদ’ বিলীনের পথে। দিনাজপুরের খানসামার মীর্জার মাঠে অবস্থিত এই ঐতিহাসিক ‘আওকরা মসজিদ’ ঝাড়-জঙ্গল সাফ করে স্থানীয় এলাকাবাসী নিজ উদ্যোগে নামাজ আদায়ের উপযোগী করেছেন। তবে নিয়মিত মুসল্লিরা নামাজ আদায় করলেও ঝুঁকিপূর্ণ আওকরা মসজিদের দেয়ালে বড় বড় ফাটল দেখা যায়। তবে এটি প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতরের আওতায় নিলেও এখনো এর সংস্কার বা পুনর্নির্মানের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। তৎকালীন মীর্জা সাহেব মসজিদটি প্রতিষ্ঠার সময় কী নাম রেখেছেন তাও কেউ বলতে পারেন না। তবে কোনো মানুষ মসজিদটির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় এটির মধ্যবর্তী অংশে দাঁড়িয়ে কথা বললে একসময় জোরে প্রতিধ্বনির সৃষ্টি হতো। তাই শুনে তারা ভাবত মসজিদটি তাদের কথার উত্তর দিচ্ছে। এ থেকে মসজিদটির নাম হয় আওকরা মসজিদ অর্থাৎ কথা বলা মসজিদ। এখনো মানুষ পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় প্রতিধ্বনি শোনার আশায় শব্দ করে কথা বলে। কিন্তু মসজিদের দেয়াল ফেটে গিয়ে নষ্ট হওয়ায় এবং এর গায়ে আগাছা পরিপূর্ণ হওয়ায় আগের মতো আওয়াজ হয় না। জানা যায়, খানসামার গোয়ালডিহি ইউপির হাসিমপুর-আঙ্গারপাড়ার মীর্জার মাঠের ওই মসজিদটি প্রায় পৌনে ৩০০ বছর আগে বাংলা ১১৭২ সালে মীর্জা লাল বেগ মুসলিম সম্প্রদায়ের নামাজ আদায়ের জন্য নির্মাণ করেন। চিকন ইটে নির্মিত দেয়ালে নকশা করা মসজিদটি খানসামা উপজেলার মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া বেলান নদীর পূর্ব ধারে মীর্জার মাঠ নামক স্থানে অবস্থিত। খানসামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ মাহবুব-উল ইসলাম জানান, আওকরা মসজিদের ছবিসহ সবকিছু তথ্য প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতরে পাঠানো হয়। পরে এটাকে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের আওতায় নেওয়া হয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর