শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:২৩

রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় সেবাবঞ্চিত লাখো মানুষ

লাকসামের নরপাটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র

ফারুক আল শারাহ, লাকসাম

রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় সেবাবঞ্চিত লাখো মানুষ

নেদারল্যান্ডস সরকারের সাহায্যে নির্মিত কুমিল্লার লাকসামের নরপাটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় চিকিৎসা সেবার সুফল বঞ্চিত প্রায় লাখো মানুষ। দ্রুত উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত ও আধুনিকায়নের মাধ্যমে সুচিকিৎসা নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৪ সালে নেদারল্যান্ডস সরকারের সাহায্যে বাংলাদেশের ৪৩টি উপস্বাস্থ্য  কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়। ওই অনুদানে লাকসাম পূর্ব ইউনিয়নের তৎকালীন সমাজসেবক মরহুম আবদুল মজিদ খানের দানকৃত ৭৫ শতাংশ সম্পত্তিতে ‘নরপাটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র’ স্থাপন করা হয়। পৃথক তিনটি ভবন নির্মাণের মাধ্যমে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হলেও বর্তমানে জোড়াতালি দিয়ে রোগীদের সেবা  দেওয়া হচ্ছে। চিকিৎসা কেন্দ্রটি পরিচালনার জন্য একজন মেডিকেল অফিসার, একজন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার, একজন ফার্মাসিস্ট ও একজন এমএলএস পদ সৃষ্টি করা হলেও রাজস্ব খাতে স্থানান্তরিত না হওয়ায় জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া থমকে আছে। এ ছাড়াও, সারা দেশে নেদারল্যান্ডস সরকারের সাহায্যে নির্মিত ৪৩টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের মধ্যে ৪২টি ইতিমধ্যে রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত হলেও শুধু নরপাটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি অন্তর্ভুক্ত হয়নি। সরেজমিন দেখা যায়, সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে নরপাটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটির অবস্থান। বিশাল সম্পত্তিতে নেদারল্যান্ডস সরকারের অনুদানে তিনটি ভবন নির্মাণ করা হয়। দীর্ঘদিন অযত্ন-অবহেলায় থাকায় ভবনগুলো জরাজীর্ণ হয়ে পড়ে। ভবনগুলোর দরজা-জানালা নষ্ট হয়ে যায়। উপসহকারী মেডিকেল অফিসার আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে প্রতিদিন গড়ে ১০০ থেকে ১৫০ জন রোগী চিকিৎসাসেবা নিতে আসেন।

লাকসাম পূর্ব ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলী আহমেদ বলেন, স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি দ্রুত রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্তিতে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে আমি আশাবাদী।

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. আবদুল আলী জানান, নরপাটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি রাজস্বখাতে অন্তর্ভুক্তির জন্য মন্ত্রণালয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে। রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্তি হলে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসাসেবা চালু হবে।

 


আপনার মন্তব্য