শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ মার্চ, ২০২১ ২৩:০৪

থানায় ডেকে শিক্ষককে কান ধরে উঠবস করালেন ওসি!

ফরিদপুর প্রতিনিধি

থানায় ডেকে শিক্ষককে কান ধরে উঠবস করালেন ওসি!

ফরিদপুরের মধুখালী থানার ওসি আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে স্কুলশিক্ষককে কান ধরে উঠবস করানোসহ লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে ভুক্তভোগী শিক্ষক পুলিশের আইজি বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনার পর এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। যদিও শিক্ষকের অভিযোগ মিথ্যা দাবি করেছেন ওসি।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী শিক্ষক সুশান্ত কুমার জানান, গত ১১ মার্চ মধুখালী উপজেলার বাসিন্দা সেতু ঘোষ পালিয়ে বিয়ে করেন শিক্ষক সুশান্ত কুমারের ছেলে বিশ^বিদ্যালয় ছাত্র সজীব বিশ্বাসকে। এ বিয়ে মেনে নিতে পারেননি সেতুর পরিবার। বিয়ের পর থেকে সজীবের পরিবারের লোকজনকে নানাভাবে হয়রানি করা হয়। সজিব বিশ্বাস জানান, আমার বাবাকে ১২ মার্চ থানায় ডেকে ওসি কানধরে উঠবস করান এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন। একজন শিক্ষকের সঙ্গে এমন আচরণ মেনে নেওয়া যায় না। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে পুলিশের মহাপরিদর্শক বরাবর আবেদন করা হয়েছে। সুশান্ত কুমার বিশ্বাস বলেন, মধুখালী থানার ওসি আমাকে ডেকে নেন। থানায় পৌঁছার সঙ্গে সঙ্গে জামার কলার ধরে আমাকে ওসির কক্ষে নেওয়া হয়। তখন ওসির রুমে বসা ছিল আমার ছেলের বউয়ের কাকা ও তার সহযোগীরা। ওসি সবার সামনে আমাকে অপমানজনক কথাবার্তা বলার পর কানধরে উঠবস করান। পরে তার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে কয়েকবার আঘাত করেন। আমার কাছ থেকে সাদা কাগজে কয়েকটি সই নিয়ে নেন। স্কুল শিক্ষককে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, দুই পক্ষ থানায় আসে। স্কুলশিক্ষক দুই দিন সময় চান মেয়েকে ফেরত দিতে। এর বেশি কিছু হয়নি।

এদিকে ১৪ মার্চ নিজেদের নিরাপত্তা চেয়ে রাজধানীর সবুজবাগ থানায় জিডি করেছেন সেতু ঘোষ ও সজীব বিশ্বাস।

এই বিভাগের আরও খবর