শিরোনাম
শুক্রবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২২ ০০:০০ টা

আবাসিক এলাকায় তামাক প্রক্রিয়া, হুমকিতে জনস্বাস্থ্য

ফরিদপুর ও বোয়ালমারী প্রতিনিধি

আবাসিক এলাকায় তামাক প্রক্রিয়া, হুমকিতে জনস্বাস্থ্য

‘বাবারে কী আর কমু, তামাকের গন্ধে ঘরে থাকতি পারি না। ধোঁয়া আর উটকো গন্ধে ঘরে থাকা দায়। দিনে বাড়িতে থাকলেও রাতে অন্য জায়গায় থাকতি হয়। আমার মা ৮০ বছরের কুলসুম বেগম, অসুস্থ হয়ে ঘরে পড়েছিলেন। তাকেও অন্যত্র রাখা হয়েছে। মেয়েটা পোয়াতি, তাকেও বাড়িতে রাখতে পারি নাই। তামাক পোড়ানোর কারণে অনেকে এখন ঘরছাড়া।’ রাগ ও ক্ষোভের সঙ্গে কথাগুলো বলছিলেন ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার ফকিরপাড়ার সুরুজ আকন। এমন অভিযোগ গ্রামের বহু মানুষের। ওই গ্রামে লোকালয়ে তামাক পুড়িয়ে প্রক্রিয়জাত করায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন স্থানীয়রা। ইউপি চেয়ারম্যানসহ পরিবেশ অধিদফতরে অভিযোগও দেওয়া হয়েছে। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ফকিরপাড়া গ্রামে এ বছর বিশাল এলাকায় তামাকের আবাদ হয়েছে। বিভিন্ন তামাক কোম্পানির কাছ থেকে টাকা নিয়ে তামাক চাষ করেছেন শাহিনুর ফকির নামে এক ব্যক্তি। তার বাড়িতে তামাক পোড়ানোর জন্য বানিয়েছেন কয়েকটি ঘর। যেখানে দিনরাত কাঁচা তামাক পাতা পোড়ানোর কাজ চলছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, আবাসিক এলাকায় তামাক পাতা পোড়ানোর কারণে ধোঁয়ায় পুরো এলাকা আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। তামাক পাতা পোড়ানোর উটকো গন্ধে এলাকায় মানুষ থাকাই দায় হয়ে পড়েছে। প্রচ- ধোঁয়ার কারণে নষ্ট হচ্ছে শাক-সবজিসহ জমির ফসল। সবচেয়ে ক্ষতির মুখে পড়েছেন বয়োবৃদ্ধ নারী-পুরুষ ও শিশুরা। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা একাধিকবার শাহিনুরকে নিষেধ করলেও তিনি শুনছেন না। অভিযুক্ত শাহানুর ফকির বলেন, অনেক এলাকায় তামাক পাতা চাষ ও পোড়ানো হয়। সেখানে কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এখানে কেন সমস্যা হবে। বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. খালেদুর রহমান বলেন, তামাক বিষাক্ত জিনিস। যা মাদক হিসেবে চিহ্নিত। তামাক চাষ থেকে শুরু করে প্রক্রিয়াকরণ এলাকার আশপাশের লোকজন শ্বাসকষ্টসহ নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত হতে পারেন। এর থেকে দীর্ঘমেয়াদি এজমা, ক্যান্সারসহ অনেক রোগ হতে পারে। নষ্ট হতে পারে ফুসফুস। বোয়ালমারীর ইউএনও রেজাউল করিম বলেন, আবাসিক এলাকায় এভাবে তামাক পোড়ালে পরিবেশের সমস্যা। বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ খবর