শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২১:২১

নন্দীগ্রামে বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া

নন্দীগ্রামে বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও
প্রতীকী ছবি

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রী। সোমবার রাতে উপজেলার সদর ইউনিয়নের দলগাছা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

সে ওই গ্রামের হারেজ উদ্দিনের মেয়ে ও ভাটরা খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই স্কুলছাত্রীর (১৪) বিয়ে পাশ্ববর্তী কল্যাণ নগর গ্রামের আরমান আলীর (২২) সঙ্গে ঠিক করেন তার পরিবারের লোকজন। সোমবার রাতে কনের বাড়িতে বিয়ের আয়োজন চলছিল। সংবাদ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোছা. শারমিন আখতার পুলিশ নিয়ে বিয়ে বাড়িতে হাজির হন। নিমেষেই বদলে যায় বিয়ে বাড়ির চিত্র। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোছা. শারমিন আখতার বলেন, বাল্যবিয়ে হচ্ছে এমন গোপন খবরে অভিযান চালানো হয়। কনের বাবা-মাসহ পরিবারের সকলকে বিয়ের কুফল সম্পর্কে অবহিত করা হয় এবং ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে দিবে না বলে মুচলেকা দিয়েছে। আবারও বাল্যবিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম


আপনার মন্তব্য