শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ মে, ২০২০ ২১:০৭

শাহজাদপুরে থেমে নেই সুদের ব্যবসা, দিশেহারা ঋণগ্রহীতারা

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:

শাহজাদপুরে থেমে নেই সুদের ব্যবসা, দিশেহারা ঋণগ্রহীতারা

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে মহামারী করোনার মধ্যেও থেমে নেই সুদের ব্যবসা। কর্মহীন ঋণগ্রহীতারা সুদের লভ্যাংশ দিতে না পারায় প্রতিনিয়ত সুদারুর কাছে মানসিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। প্রতিকার চেয়ে ঋণগ্রহীতারা স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের কাছে আবেদন করেও ফল পাচ্ছে না। 

অভিযোগে জানা যায়, শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী ইউপির গুধিবাড়ী গ্রামের মৃত আব্দুস ছোবাহানের ছেলে জয়নাল উদ্দিন। দীর্ঘদিন সুদের ব্যবসা করায় এলাকায় সুদারু জয়নাল নামে পরিচিত। এলাকার মানুষের কাছে উচ্চহারে সুদে টাকা লাগায়। বিপদগ্রস্ত মানুষ উপায় না পেয়ে উচ্চ হারে সুদ নেয়। কিন্তু সুদের টাকা দিতে একটু দেরি হলেই নেমে আসে ঋণ গ্রহীতার উপর নির্যাতন। এমনকি মিথ্যা মামলা দিয়ে পুলিশ দিয়েও হয়রানি করেন। করোনার কারণে প্রায় তিনমাস যাবত মানুষের কর্ম না থাকলেও সুদারু জয়নালকে সুদ দিতেই হচ্ছে। না দিলে অত্যাচার নির্যাতন-অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুনতে হয়। এ অবস্থায় সুদারু জয়নালের হাত থেকে বাচতে স্থানীয়রা থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েই কোন সুফল পাচ্ছে না। 

স্থানীয় ভাটপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সুমন সাহা জানান, বাবার অসুখের সময় ২ লাখ টাকা জয়নাল সুদারুর কাছে নিয়েছিলাম। প্রতি সপ্তাহে ২০ হাজার করে টাকা লাভ দিতে হয়। দিয়েওছি। কিন্তু করোনার কারনে দিতে না পারায় বাড়ী এসে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মামলার হুমকি দিচ্ছে। সুদের ব্যবসা করে অনেক টাকার মালিক হওয়ায় আইনে যেন তার পক্ষে। কেউ তার বিরুদ্ধ মুখ খুলতে সাহস পায় না। 

গুধিবাড়ী গ্রামের এহিয়া খান জানান, জয়নাল সুদারু প্রায় এক কোটি টাকা সুদের উপর লাগিয়েছে। প্রত্যেক ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে স্বাক্ষরিত সাদা চেক ও স্বাক্ষরিত সাদা স্ট্যাম্প নেয়। একবার সুদের টাকা দিতে দেরি হলে হয় বাড়ীতে গিয়ে ছেলে-মেয়ে স্ত্রীদের সামনে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। নয়তো সাদা স্ট্যাম্প ও চেক দিয়ে মামলার ভয় দেখায়। এলাকার শত শত মানুষ তার কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। 

কৈজুরী ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানান, সুদারু জয়নালের নির্যাতন অত্যাচার সইতে না পেরে থানায় লিখিত অভিযোদ দিয়েছে শতাধিক গ্রামবাসী। আমি নিজেও ওই অভিযোগে সুপারিশ স্বাক্ষর করেছি। দ্রুত অবৈধ সুদের ব্যবস্থা বন্ধের জন্য তিনি সরকারের প্রতি দাবি জানান। 

এ বিষয়ে জয়নালের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। 


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য