শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ মে, ২০২১ ০৪:২০
আপডেট : ৮ মে, ২০২১ ১০:৫৬
প্রিন্ট করুন printer

মোবাইলের জন্য ছয় বছরের শিশুকে গলা কেটে হত্যা!

নাটোর প্রতিনিধি

মোবাইলের জন্য ছয় বছরের শিশুকে গলা কেটে হত্যা!
শিশু মহিবুলাহ।
Google News

নাটোরের গুরুদাসপুরে মহিবুলাহ নামে ছয় বছরের এক শিশুকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগে নয়ন আলী নামে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে তাকে আটক করা হয়।

আটক কিশোর গুরুদাসপুর উপজেলার সাবগাড়ী গ্রামের মন্টুর ছেলে মো. নয়ন। আর শিশু মহিবুলাহ সিংড়া উপজেলার গোটিয়া মহিষমারী গ্রামের পল্লী চিকিৎসক ইসাহক আলীর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শিশু মহিবুলাহ তার মা’র সাথে প্রায় এক মাস আগে গুরুদাসপুর উপজেলার সাবগাড়ি গ্রামে নানার বাড়ি বেড়াতে যায়। বৃহস্পতিবার বিকেলে মোবাইল ফোনে কার্টুন দেখতে দেখতে বাড়ির বাইরে যায় সে। কিন্তু সন্ধ্যা গড়িয়ে গেলেও সে আর ফিরে  আসে না। পরে সম্ভাব্য স্থানে খোঁজ করেও কোনো সন্ধান পাওয়া যায় না তার। একপর্যায়ে রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে এক ভুট্টার জমিতে তার বস্তাবন্দি গলা কাটা লাশ দেখতে পায় স্থানীয়রা।

পরে পুলিশকে খবর দিলে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ঘটনার খবর পেয়ে স্থানীয় সাংসদ আব্দুল কুদ্দুস, সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) জামিল মাহমুদসহ ডিবি পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। 

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক জানান, রাতে ভুট্টার জমিতে শিশুর গলা কাটা লাশ পাওয়ার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। শুক্রবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

ওসি আরও বলেন, শুক্রবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে প্রতিবেশী নয়নকে আটক করা হয়। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী রক্তমাখা ছুরি ও মোবাইলটি উদ্ধার করা হয়। মোবাইলের জন্যই নয়ন জবাই করে শিশু মহিবুলাহকে হত্যা করে। এ ঘটনায় গুরুদাসপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর