শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ আগস্ট, ২০২১ ২২:১২
আপডেট : ৫ আগস্ট, ২০২১ ২২:১৮
প্রিন্ট করুন printer

ধুনটে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ২০ মিটার স্পার যমুনায় বিলীন

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া

ধুনটে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ২০ মিটার স্পার যমুনায় বিলীন
ধুনটে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ২০ মিটার স্পার যমুনায় বিলীন।
Google News

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় বানিয়াজান বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ২০ মিটার স্পার যমুনা নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। খবর পেয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা বানিয়াজান স্পারে পৌঁছে মেরামত করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে যমুনা নদীর পানির প্রবল স্রোতে ধুনট ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়নের ওই স্পারটির উত্তর পাশের ২০ মিটার অংশের সিসি ব্লক ধসে যায়।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে ভোর পর্যন্ত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পূর্ব পাশের বৈশাখী ও বাঁধানগর গ্রামের যমুনা নদী থেকে ২০ থেকে ২৫টি ড্রেজার মেশিনের সাহায্যে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে আসছে কতিপয় প্রভাবশালীরা। তাই প্রতিনিয়ত নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। একারণে প্রতিদিনই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের কোনো না কোনো স্থান ভেঙে যাচ্ছে। তবে মাঝেমধ্যে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর প্রশাসন অভিযান চালালেও পরবর্তী সময়ে আবারও প্রভাবশালীরা বালু উত্তোলন শুরু করে।

বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান জানান, যমুনার পানির প্রবল স্রোতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ২০ মিটার অংশ ধসে গেছে। সংবাদ পেয়ে সেখানে ঠিকাদার পাঠানো হয়েছে এবং তাৎক্ষণিকভাবে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

সংবাদ পেয়ে দুপুর ২টার দিকে বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) আসনের এমপি হাবিবর রহমান, ধুনটের ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্ত, ধুনট থানার ওসি কৃপা সিন্ধু বালা, এমপি পুত্র আসিফ ইকবাল সনিসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ ধসে যাওয়া ওই স্পারটি পরিদর্শন করেন।

জানা গেছে, ধুনট উপজেলার ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়নের আটাচর গ্রাম থেকে কাজিপুর উপজেলার ঢেকুরিয়া পর্যন্ত প্রায় ৭ কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও দুটি স্পার নির্মাণ করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

বগুড়ার ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সঞ্জয় কুমার মহন্ত জানান, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের স্পার ধসে যাওয়ার সংবাদ পেয়ে পরিদর্শন করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। তারা দ্রুত স্পারটি মেরামতের উদ্যোগ নিয়েছেন। এছাড়া যমুনায় বালু উত্তোলন বন্ধে একাধিকবার অভিযান পরিচালনা করে প্রায় অর্ধশত বালু ব্যবসায়ীকে জেল ও জরিমানাও করা হয়েছে। এরপর আবারও সেখানে অভিযান চালানো হবে বলে জানান তিনি।

বগুড়ার ধুনট উপজেলার ভান্ডারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল জানান, সকাল ৮টার দিকে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের বানিয়াজান স্পারের বেশ কিছু অংশ হঠাৎ ধসে গেছে। স্পারটি পরিদর্শন করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের এই স্পারটি রক্ষা করা না গেলে এই ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রাম ক্ষতির মুখে পড়বে।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর