১১ এপ্রিল, ২০২২ ১৭:০৫

বাগেরহাট হাসপাতালে শয্যার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি ডায়রিয়া রোগী

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাট হাসপাতালে শয্যার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি ডায়রিয়া রোগী

বাগেরহাট ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে প্রতিদিনই বাড়ছে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ডায়রিয়া ইউনিটে শয্যা সংখ্যার কয়েক গুণ বেশি রোগী ভর্তি থাকায় সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন নার্স ও চিকিৎসকরা। রবিবার (১০ এপ্রিল) সকালে বারেহাট জেলা হাসপাতাল ডায়রিয়া ওয়ার্ডে দেখা যায় ৪ শয্যার বিপরীতে চিকিৎসা নিচ্ছেন ২৭ জন। শয্যা সংকুলান না হওয়ায় মেঝের পাশাপাশি আইসোলেশন ওয়ার্ডের দুটি কক্ষে দেওয়া হচ্ছে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় ডায়রিয়া ওয়ার্ডে জনবলের পাশাপাশি বাড়ানো হয়েছে শয্যা সংখ্যাও। 

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ছেলেকে নিয়ে আসা জেলার মোরেলগঞ্জ উপজেলার আছমা বেগম বলেন, গত দুইদিন ধরে ছেলেটার পেট ফাফা, বমি ও পাতলা পায়খানা হচ্ছে। উপজেলার হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েও কোন উপকার হয়নি। তাই সকালে ছেলেকে নিয়ে জেলা হাসপাতালে ভর্তি করেছি। 

জেলার কচুয়া উপজেলার সরোয়ার মোড়ল (৪৫) বলেন, গত চারদিন ধরে ডায়রিয়ায় ভুগছি। বমি, পাতলা পায়খানার সাথে পেট ফুলে রয়েছে। গতকাল রাতে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। এখন কিছুটা সুস্থ আছি। হাসপাতালে এসে দেখছি বয়স্কদের চেয়ে শিশুরাই বেশি। 
বাগেরহাট সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহে বাগেরহাট জেলা হাসপাতালে প্রায় ২০০ ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছেন। এছাড়া জেলার বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সাত শতাধিক ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন।

ডায়রিয়া ওয়ার্ডে কর্তব্যরত নার্স আসমা বেগম জানান, শিফট অনুযায়ী আমরা রোগীদের সেবা দিয়ে থাকি। কিন্তু প্রতিদিনই ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় চিকিৎসা দিতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। প্রতিদিনই নতুন নতুন রোগী ভর্তি হচ্ছে যার মধ্যে অধিকাংশই শিশু। 

বাগেরহাট ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার সমাদ্দার বলেন, হাসপাতালে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে নির্ধারিত ৪টি শয্যা রয়েছে। কিন্তু প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগী ভর্তি হচ্ছেন হাসপাতালে। বর্তমানে যে হারে রোগী বাড়ছে তাতে মেঝের পাশাপাশি অস্থায়ী ভাবে অন্য ওয়ার্ডে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এছাড়া ডায়রিয়া ওয়ার্ডের জন্য জনবল বাড়ানো হয়েছে। আমাদের পর্যাপ্ত ডায়রিয়ার স্যালাইন রয়েছে। আশা করছি কোন সমস্যা হবে না।


বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর